২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গলে যাচ্ছে কানাডার মেরু অঞ্চলের হিমায়িত মাটি

  • বায়ুমণ্ডলে কার্বন তিনগুণ বাড়বে ॥ গবেষকদের সতর্কবাণী

কানাডার মেরু অঞ্চলে পার্মাফ্রস্ট নামে পরিচিত হিমায়িত মাটি গলে যাচ্ছে। বিষয়টি জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে বিপজ্জনক লক্ষণ হিসেবে বিশেষজ্ঞরা চিহ্নিত করেছেন। জলবায়ু পরিবর্তন সারাবিশ্বের জন্য এখন একটি উদ্বেগের বিষয়।

বৈশ্বিক উষ্ণতার ফলে কানাডার উত্তরাঞ্চলীয় হাডসন উপসাগর উপকূলে বরফের আস্তরণ অনেক দিন ধরেই ক্ষয় হচ্ছিল; এর সঙ্গে এখন যোগ হয়েছে হিমায়িত মাটি গলে যাওয়ার বিষয়টি। ফ্রান্সের ন্যাশনাল সেন্টার ফর সায়েন্টিফিক রিসার্চের গবেষক ফ্লরা দোমিনি বলছেন, পার্মাফ্রস্টে বায়ুম-লের তুলনায় দ্বিগুণ পরিমাণ কার্বন থাকে। কাজেই এটি যদি গলে যেতে আরম্ভ করে তবে বায়ুম-লে কার্বনের পরিমাণ বেড়ে তিনগুণ হবে। পরিণতিতে জলবায়ু পরিবর্তনের গতি বেড়ে যাবে। পৃথিবী হয়ে উঠবে মানুষের বসবাসের অনুপযুক্ত।

প্রাকৃতিকভাবে উত্তর মেরু অঞ্চলীয় উপকূলীয় ভূমির এক-চতুর্থাংশ পার্মাফ্রস্ট। এতে হিমায়িত জৈবের আকারে সঞ্চিত রয়েছে ১.৭ ট্রিলিয়ন টন কার্বন। পার্মাফ্রস্ট গলে গেলে এ থেকে কার্বন ডাই-অক্সাইড ও মিথেন বেরিয়ে আসবে বায়ুম-লে। নতুন করে গতিলাভ করবে বিদ্যমান জলবায়ু পরিবর্তনের দুষ্টচক্র। অস্বাভাবিক হারে বাড়বে বৈশ্বিক উষ্ণতা। বায়ুম-লে কার্বন ডাই-অক্সাইড বাড়ায় মেরু অঞ্চলে বরফ গলার হারও বাড়বে। বরফ দ্রুত সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়াবে। উপকূলীয় অঞ্চলে বসবাসরত মানুষের জীবন ও জীবিকা হুমকির মুখে পড়বে। পার্মাফ্রস্ট গলে যাওয়াকে তাই জলবায়ু টাইম বোম্ব হিসেবে উল্লেখ করতে চান দোমিনি। পার্মাফ্রস্ট গলতে শুরু করলেও এটি কি হারে গলেছে বা বায়ুম-লের ওপর এর কী প্রভাব হতে পারে, সে বিষয়ে গবেষকদের কাছে এখনও যথেষ্ট তথ্য নেই। তারা উপকূলীয় অঞ্চলের মাটির কার্বন, তাপমাত্রা ও গলনের হার পরীক্ষা করে পার্মাফ্রস্ট গলনের ধরনটি জানার চেষ্টা করছেন। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব অন্য যে কোন এলাকার চেয়ে মেরু অঞ্চলে যে বেশি পড়ে সেটি অনেক দিন ধরেই লক্ষ্য করা গেছে। -এএফপি