২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বরিশাল মেডিক্যালে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ ॥ পুলিশসহ আহত ৫

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হোস্টেলে সোমবার রাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশ কর্মকর্তাসহ কমপক্ষে ৫জন আহত হয়েছে। এ বিষয়ে মেডিক্যাল কলেজে সাময়িকভাবে সব ধরনের ছাত্ররাজনীতি বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় কর্তৃপক্ষ ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে একাডেমিক কাউন্সিলের সভা শেষে এ সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ ভাস্কর সাহা।

জানা গেছে, সোমবার রাত দশটার দিকে মেডিসিন ক্লাবের একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন কলেজ ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত অনুপ-নাসিম গ্রুপের নেতাকর্মীরা। অনুষ্ঠান চলাকালীন কলেজ ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটির সভাপতি ইমরান হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক তুহিনের সমর্থকরা মিছিল সহকারে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করলে দুই গ্রুপের মধ্যে কয়েকদফা ধাওয়া পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে ইমরান গ্রুপ ১ নম্ব¦র হোস্টেলে এবং অনুপ গ্রুপ ২ নম্বর হোস্টেলের সামনে অবস্থান নিয়ে সড়কে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। রাত একটার দিকে অনুপ গ্রুপের সমর্থকরা লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে ১ নম্বর হোস্টেলে হামলা চালায়। এ সময় ১ নম্বর হোস্টেলে অবস্থানরত ইমরান গ্রুপ প্রতিপক্ষকে প্রতিহত করে পাল্টা হামলা চালায়। পুনরায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় উভয়পক্ষের ছোড়া ইটের আঘাতে পুলিশের এসআই ফরিদসহ উভয় গ্রুপের ৫ জন আহত হয়। এ সময় পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ ভাস্কর সাহা জানান, এ ঘটনায় মঙ্গলবার দুপুরে কলেজ একাডেমিক কাউন্সিলের জরুরী সভায় ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির রিপোর্টের পরই দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি আরও জানান, ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের কারণে কলেজে সাময়িকভাবে সকল প্রকার ছাত্ররাজনীতি বন্ধ ঘোষণার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি শাখাওয়াত হোসেন জানান, ক্যাম্পাসে ছাত্রদের দু’গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা থাকায় সোমবার রাত থেকেই সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।