২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিশ্বজুড়ে ভ্রমণ সতর্কতা জারি

  • সন্ত্রাসী হামলার হুমকির মুখে নাগরিকদের নিরাপত্তায় পদক্ষেপ যুক্তরাষ্ট্রের

বিভিন্ন জঙ্গী গ্রুপের সন্ত্রাসী হামলার হুমকির মুখে নিজ দেশের নাগরিকদের জন্য ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ‘বর্ধিত সন্ত্রাসী হামলার হুমকি’ উল্লেখ করে পররাষ্ট্র দফতর মার্কিন নাগরিকদের জন্য বিশ্বজুড়ে ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে। এতে বলা হয়েছে, ইসলামিক স্টেট (আইএস), আল কায়েদা, বোকো হারাম এবং অন্যান্য কয়েকটি গ্রুপ বিভিন্ন জায়গায় সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে। আগামী বছর ২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এই সতর্কতা বলবত থাকবে। খবর ইয়াহু নিউজ ও বিবিসির।

ফ্রান্স, রাশিয়া, মালি এবং আরও কয়েকটি দেশে সন্ত্রাসী হামলার পর যুক্তরাষ্ট্র এই সতর্কতা জারি করে। বিভিন্ন জঙ্গী গ্রুপ এসব হামলার দায় স্বীকার করেছে। পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্রকে উদ্ধৃত করে বিবিসি জানায়, নির্দিষ্টভাবে কেবল যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের ওপর হামলা হতে পারে এমন কোন নির্দিষ্ট তথ্য তাদের হাতে নেই। ভ্রমণ সতর্কতার অর্থ বিদেশের মাটিতে চলাফেরা, জনসমাগমস্থলে যাতায়াত এবং যানবাহন ব্যবহারের সময় বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে মার্কিন নাগরিকদের। ভিড় এড়িয়ে চলা এবং আশপাশে কারা আছে তার প্রতি সব সময় খেয়াল রাখা। যুক্তরাষ্ট্রে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার পর প্রায় নিয়মিত ব্যবধানে ভ্রমণ সতর্কতা জারি করে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র। ২০১১ সালের মে মাসে আল কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনকে হত্যার পর এবং একই বছর সেপ্টেম্বরে ৯/১১ হামলার দশকপূর্তিতে দুই দফা পুরো বিশ্বে এ ধরনের ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। সর্বশেষ ২০১৩ সালের আগস্টে একই ধরনের সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। কোন সুনির্দিষ্ট তথ্য ছাড়া সতর্কতা জারি করা হয়। বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক তৈরি হয়ে যায় বলে প্রতিবারই সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রকে। তবে ১৩ নবেম্বর প্যারিস হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রের এ ধরনের সতর্কতার জারির যৌক্তিক প্রেক্ষাপট তৈরি হয়েছে। ওই হামলায় ১৩২ জন নিহত এবং সাড়ে ৩শ’ লোক আহত হয়। এর মালির রাজধানী বামাকোর একটি পাঁচতারকা হোটেলে পরিচালিত জঙ্গী হামলা প্রায় ৩০ জন নিহত হয়। এদিকে জঙ্গীদের খোঁজে ফ্রান্স ও বেলজিয়ামে তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে। ২৬ বছর বয়সী ব্রাসেলসের বারকর্মী আবদেসালাম এখনও পলাতক। ফ্রান্স ও বেলজিয়ামের পুলিশ তাকে খুঁজছে। প্যারিস হামলার পর একটি পরিত্যক্ত গাড়িতে তার মোবাইল ফোনটি পাওয়া যায়। এই ফোনের সূত্র ধরেই ওই হামলার সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতা ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদিকে নতুন করে হামলার হুমকি পাওয়ার পর ব্রাসেলসে সোমবার থেকে উচ্চমাত্রার সতর্কতা বজায় রয়েছে। বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী চার্লস মিচেল সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ইউরোপের প্রাতিষ্ঠানিক রাজধানীতে (ব্রাসেলস) সমম্বিত সিরিজ হামলার ঝুঁকি এখনও রয়ে গেছে। দেশটির স্কুলগুলো ও পাতাল রেল বুধবার খুলে দেয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান। আবদে সালামসহ বেলজিয়ামের চারজনকে প্যারিস হামলার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার খোঁজ পেয়েছে বেলিজিয়ামের কর্তৃপক্ষ।

আইএসের বিরুদ্ধে ওয়াশিংটন ও প্যারিস অভিযান জোরদার করেছে। ভূমধ্যসাগরে অবস্থানরত বিমানবাহী রণতরী থেকে সিরিয়ায় আইএসের ঘাঁটি লক্ষ্য করে নিয়মিত বিমান আক্রমণ করে যাচ্ছে ফ্রান্স। ওয়াশিংটন জঙ্গী গ্রুপটির বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে জোট গড়ার আহ্বান জাানিয়েছে। ফরাসী প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ইতোমধ্যেই ঘোষণা করেছেন যে, তার দেশ আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধাবস্থায় রয়েছে।