১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কাউকে সাম্প্রদায়িক বীজ বপন করতে দেয়া হবে না

  • কঠিন চীবরদান অনুষ্ঠানে সৈয়দ আশরাফ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, যে কোন মূল্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুণœ রাখতে হবে। দেশের কোন কোন মহল প্রায়ই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা করে। একটু সুযোগ পেলেই সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। এ ব্যাপারে দেশবাসীকে সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। দেশে আমরা কাউকে সাম্প্রদায়িক বীজ বপন করতে দেব না।

বুধবার বিকেলে রাজধানীর সবুজবাগের ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘ আয়োজিত ‘কঠিন চীবর দানোৎসব-২০১৫’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়তে চেয়েছিলেন। তাঁর স্বপ্ন ছিল একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ। কিন্তু দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করার মধ্য দিয়ে দেশকে একটি উগ্র সাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করা হয়েছিল। এখন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সেই অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, আমি বিভিন্ন ধর্মের অনুষ্ঠানে যাওয়া পছন্দ করি। জ্ঞান আহরণের জন্য আমি সব ধর্মের অনুষ্ঠানে যাই। তবে একটি বিশেষ মহল থেকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু তারা সফল হতে পারেনি এবং ভবিষ্যতে আর পারবেও না। সৈয়দ আশরাফ বলেন, বাংলাদেশ ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। অর্থাৎ ধর্মনিরপেক্ষতা হলে সকলে স্বাধীনভাবে নিজ নিজ ধর্ম পালন করতে পারবে। সকল ধর্মের মানুষ স্বাভাবিক ধর্ম-কর্ম পালন করবেন। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেন, দেশে যেমন ষড়যন্ত্র চলছে তেমনি সরকারও এ ব্যাপারে সচেতন রয়েছে। কেননা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একটি অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক দেশ প্রতিষ্ঠা করতে দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ। তিনি বলেন, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের শত্রুপক্ষ চিহ্নিত হলেও দেশ গড়ার সংগ্রামের শত্রুরা চিহ্নিত নয়। আর এই অচিহ্নিত শত্রুদের মোকাবেলা করেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক সমৃদ্ধ দেশ গড়ে তুলতে হবে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে সংঘনায়ক শ্রদ্ধানন্দ মহাথেরো জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে ‘অতীশ দীপঙ্কর’ পুরস্কারে ভূষিত করেন এবং পুরস্কারটি তার হাতে তুলে দেন। তার উদ্দেশে অভিনন্দনপত্র পাঠ করেন বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচারসংঘের মহাসচিব ড. প্রণব বড়ুয়া। অনুষ্ঠানে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গীতিনৃত্যানুষ্ঠান চ-ালিকা পরিবেশন করা হয়।

বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের সভাপতি শ্রদ্ধানন্দ মহাথেরোর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেনÑ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য ও বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের মহাসচিব অধ্যক্ষ ড. প্রণব কুমার বড়ুয়া, এটিএন বাংলা টেলিভিশনের উপদেষ্টা মীর মোতাহার হোসেন, ক্যামব্রিয়ান এডুকেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান এম কে বাশার, বাংলাদেশ হামদর্দ ল্যাবরেটরিজের পরিচালক (মার্কেটিং) ড. হাকিম রফিকুল ইসলাম, পি আর বড়ুয়া, রণজিৎ কুমার বড়ুয়া, ড. বিকিরণ প্রসাদ বড়ুয়া প্রমুখ।