১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিষেধাজ্ঞার বিপক্ষে লড়বেন প্লাতিনি!

  • ব্লাটারের ক্যারিয়ারও সংশয়ে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ঘোর সংশয়ে মিশেল প্লাতিনির ক্যারিয়ার! অবৈধ পন্থায় অর্থ গ্রহণের অভিযোগে উয়েফা সভাপতি মিশেল প্লাতিনিকে এবার আজীবন নিষিদ্ধ করতে চায় ফিফার এথিকস কমিটি। মঙ্গলবার এ তথ্য জানান ফরাসি কিংবদন্তি মিশেল প্লাতিনির আইনজীবী থিবাউদ ডি’এ্যালেস। এরই মধ্যে ফিফার নৈতিকতা কমিটি কর্তৃক ৯০ দিনের নিষেধাজ্ঞা ভোগ করছেন তিনি। তার পাশাপাশি বিশ্বফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফার সভাপতি সেপ ব্লাটারকেও একই মেয়াদে নিষিদ্ধ করে এথিকস কমিটি। দুজনের বিপক্ষে অভিযোগ, প্লাতিনিকে অবৈধভাবে ২০ লাখ ডলার দিয়েছেন ব্লাটার।

মিশেল প্লাতিনির আজীবন নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে তার আইনজীবী বলেন, ‘ফিফা তার মক্কেলের শাস্তিকে ফুটবলের জন্য কলঙ্ক হিসেবে অভিহিত করে তাকে আজীবন নিষিদ্ধ করতে চায়। তবে আজীবন নিষেধাজ্ঞাটা প্লাতিনির আইনজীবীর দৃষ্টিতে ‘অত্যাধিক’। এ সম্পর্কে ডি’এ্যালেসের মন্তব্য, ‘দুর্নীতির প্রমাণ হিসেবে এখন শাস্তি ভোগ করছেন প্লাতিনি। কিন্তু আজীবন নিষেধাজ্ঞা অপরাধের মাত্রা ছাড়িয়ে যায়। মামলার নথিপত্রের ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্তটা নেয়া হচ্ছে না।’ এর আগে ফিফার তদন্ত কমিটি জানায়, ব্লাটার-প্লাতিনির বিপক্ষে একটি মামলা রুজু করা হয়েছে; যার পরিপ্রেক্ষিতে আগামী মাসে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। উল্লেখ্য, আগামী বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি ফিফার কংগ্রেসে পরবর্তী সভাপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আর নিষিদ্ধ থাকা অবস্থায় ফিফা সভাপতি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না প্লাতিনি। এর ফলে কঠিন সময়ের মুখোমুখি ফরাসি ফুটবলের সাবেক এই তারকা ফুটবলার। এদিকে ফিফার অচলাবস্থা কাটাতে ভবিষ্যত সভাপতি নির্বাচন করতে ৫ জন প্রার্থীকে ইতোমধ্যেই চূড়ান্ত মনোনয়ন দিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের গবর্নিং বডি। সাময়িক বরখাস্ত সেপ ব্লাটারের বিকল্প খুঁজতেই ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারির ফিফা সভাপতি নির্বাচন। সম্প্রতি চূড়ান্ত করা ৫ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা হয়নি ফ্রান্সের কিংবদন্তি সাবেক ফুটবলার মিশেল প্লাতিনির। প্রকৃতপক্ষে সভাপতি হওয়ার দৌড়ে প্রথম সারির একজন ছিলেন উয়েফা সভাপতি। কিন্তু অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগে তিন মাসের জন্য বরখাস্ত হয়েছেন তিনি। এর ফলে, ফিফা সভাপতির নির্বাচনের চূড়ান্ত মনোনয়ন থেকে বাদ পড়তে হচ্ছে প্লাতিনিকে। শুধু প্লাতিনিই নয়, ব্যাপকভাবে আলোচনায় থাকা আরেক প্রার্থী লাইবেরিয়া ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মুসা বিলিতিকেও রাখা হয়েছে চূড়ান্ত তালিকার বাইরে। এর ফলে প্রিন্স আলি-বিন হুসাইন, শেখ সালমান-বিন ইব্রাহিম-আল খলিফা, জেরোমে চাম্পাগনে, জিয়ান্নি ইনফান্তিনো ও টোকিয়ো সেক্সায়ালে এই ৫ জন প্রার্থীর মধ্যেই মিলবে ফিফার ভবিষ্যত উত্তরসূরী।

তবে ফিফার সাবেক সভাপতি সেপ ব্লাটারের ভবিষ্যতে কী অপেক্ষা করছে সে ব্যাপারে এখনও তেমন কিছুই জানা যায়নি। ১৯৭৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ৪০ বছর ব্লাটার ছিলেন ফিফার সঙ্গে? ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থায় যোগ দেয়ার আগেও বড় দায়িত্বেই ছিলেন। সুইস আইস হকি এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছিলেন সুইস স্পোর্টস এ্যাসোসিয়েশনের প্রেস সেক্রেটারির দায়িত্বও পালন করেছেন দক্ষতার সঙ্গে? ফিফায় কাজ শুরুর আগে এ্যাডিডাসের কর্ণধার আডল্ফ ডাসলারের একটি ঘড়ি কোম্পানির জনসংযোগ বিভাগের পরিচালকের দায়িত্বেও দেখা গেছে তাকে। ফিফায় প্রথম উল্লেখযোগ্য পদ পেয়েছিলেন ১৯৮১ সালে। সেবার জেনারেল সেক্রেটারির দায়িত্ব পান তিনি। আর শীর্ষে উঠতে তার লেগেছে ১৭ বছর। তখন ফিফা সভাপতি ছিলেন জোয়াও আভেলাঞ্জ।

নির্বাচিত সংবাদ