২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গোলাপি বলের রোমাঞ্চ

  • এ্যাডিলেডে শুক্রবার শুরু ঐতিহাসিক দিবারাত্রির টেস্ট

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শুক্রবার এ্যাডিলেডে শুরু অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড তৃতীয় ও শেষ টেস্ট। প্রথম ম্যাচ জিতে সিরিজে ১-০তে এগিয়ে স্বাগতিক অসিরা। দ্বিতীয় টেস্ট ড্র হয়। গোটা ক্রিকেট বিশ্বের দৃষ্টি এ্যাডিলেড টেস্টের দিকে। কারণ এ ম্যাচ দিয়ে দিবারাত্রির নতুন যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে টেস্ট ক্রিকেট। যেখানে ফ্লাডলাইটের আলোয় ব্যবহৃত হবে গোলাপি বল। কৃত্রিম আলোয় গোলাপি বল দেখার পক্ষে (দৃষ্টি) কতটা সহায়ক হবে, তা নিয়ে রয়েছে ঘোরতর বিতর্ক। তবে ঐতিহাসিক ম্যাচে নামতে তর সইছে না স্বাগতিক তারকা নাথান লেয়ন, মিচেল স্টার্কের। প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড কোচ মাইক হেসনও এ নিয়ে উচ্ছ্বসিত। লেয়ন বলেন, ‘ফ্লাডলাইটের আলোয় হলেও গোলাপি বলে সুইং পেতে অসুবিধা হবে না। বিশেষ করে নতুন বল নেয়ার সময়। সব মিলিয়ে ম্যাচ নিয়ে রোমাঞ্চিত আমি।’ স্টার্কের বক্তব্য প্রায় একই রকম। মিচেল জনসন অবসরে যাওয়ায় অস্ট্রেলিয়ার পেস আক্রমণে নেতৃত্ব দেবেন তিনি। স্টার্ক বলেন, ‘ফ্লাডলাইটের আলো, গোলাপি বলে টেস্ট ক্রিকেট, মাঠে নামতে আর তর সইছে না। এটা সত্যি এক অসাধারণ অভিজ্ঞতা হতে যাচ্ছে। অনেকে শুধুই বিতর্কের তৈরি করছে। আমরা এই বলে ঘরোয়া ক্রিকেট, এমনকি নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছি। সমস্যা হয়নি।’ নিউজিল্যান্ড কোচ হেসন বলেন, ‘আমার মনে হয় সন্ধ্যায় কৃত্রিম আলোয় গোলাপি বল আরও বেশি সুইং করবে।

উইকেট তুলে নিতে পেসারদের আদর্শ সময় হতে পারে সেটিই। সব মিলিয়ে ম্যাচটা দেখতে মুখিয়ে আমি। দারুণ এক টেস্টের হাতছানি।’ ঐতিহাসিক টেস্টটি মাঠে গড়াতে একদিন মাত্র বাকি। কিন্তু গোলাপি বল নিয়ে বিতর্ক শেষ হয়নি। ‘আমাকে পরিষ্কারভাবে বলটা দেখতে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। ঠিক লাল বলের মতো পরিষ্কার দেখতে পাচ্ছিলাম না। একটু ঝাপসা মনে হচ্ছিল, যা কখনই আদর্শ হতে পারে না।’ প্রস্তুতির অভিজ্ঞতা থেকে বলেন সদ্য অবসরে যাওয়া অসি তারকা ওপেনার ক্রিস রজার্স। আরেক সাবেক ডেভিড হাসি তো পরীক্ষামূলক নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া একাদশের মধ্যকার প্রস্তুতি ম্যাচটিতে মাঠেই ছিলেন। তার বাস্তব অভিজ্ঞতাটাও নাকি সুখকর নয়। তিনি বলেন, ‘এটা ৮০ ওভারের মতো টেকসই নয়। ম্যাচে আমাদের দুইবার বল বদল করতে হয়েছিল। সুতরাং আমার মনে হয়, দেরি হওয়ার আগেই ভাবার প্রয়োজন আছে!’ টি২০-ওয়ানডের দাপটে ক্রমশ জনপ্রিয়তা হারাচ্ছে ঐতিহ্যের টেস্ট। কমে যাচ্ছে দর্শক। এ নিয়ে আলোচনার শেষ নেই। মূলত মাঠে দর্শক টানতেই ফ্লাডলাইটের আলোয় গোলাপি বলে এ আয়োজন। যাতে অফিস শেষ করে বিকেল বেলায় দর্শকরা মাঠে আসতে পারেন। এর আগে দিবারাত্রির টেস্টের পক্ষে কথা বলেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) প্রধান জেমস সাদারল্যান্ড এবং মোড়ল দেশ ভারতের সাদা পোশাকের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অন্যদিকে সকল বিতর্ক ছাপিয়ে গোলাপি বল টেস্টের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত বলে জানিয়েছে এটির প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান কুকাবুরা। গত পাঁচ বছর ধরে এটাকে তারা অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকার ঘরোয়া ক্রিকেটে সফলভাবে ব্যবহারের দাবি জানিয়েছে। ঐতিহাসিক দিবারাত্রির ম্যাচের সাক্ষী হতে পেরে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ব্রেট এলিয়ট।

নির্বাচিত সংবাদ