১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টয়া কাহিনী

একজন মডেল হিসেবে টয়া তার প্রথম দুই বিজ্ঞাপনেই আলোচনায় আসেন। বিশেষত মেজবাউর রহমান সুমনের নির্দেশনায় চিত্রনায়ক অনন্ত জলিলের সঙ্গে গ্রামীণ ফোনের বিজ্ঞাপনে তার বলা সংলাপ-এতো অসম্ভব! ২০১৩ সালে বেশ দর্শকপ্রিয়তা পায়। একই সময়ে টয়াকে কিসলুর নির্দেশনায় ফেমিকনের বিজ্ঞাপনেও মডেল হিসেবে দেখা গেছে। এরপর ফ্রুটফিল, প্রাণ বাবলগামসহ বেশকিছু বিজ্ঞাপন চিত্রের মডেল হিসেবে কাজ করেছেন জনপ্রিয় এই মডেল ও অভিনেত্রী। ‘লা লিভ’ পোশাক ব্র্যান্ডের ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানের সঙ্গে ব্র্যান্ড এ্যাম্বাসেডরও তিনি।

২০১০ সালের ‘লাক্স চ্যানেল আই প্রতিযোগিতা’র শীর্ষ পাঁচ-এ থাকা টয়া প্রথম অভিনয় করেন অপূর্বর বিপরীতে রুমানা রশীদ ঈশিতার নির্দেশনায় ‘অদেখা মেঘের কাব্য’ টেলিফিল্মে। এটি ২০১১ সালে ভালবাসা দিবসে চ্যানেল আইতে প্রচার হয়। এরপর কয়েটি ধারাবাহিক নাটক, টেলিফিল্ম অভিনয় করছেন তিনি। টয়া অভিনীত প্রথম ধারাবাহিক নাটক আফসানা মিমি পরিচালিত ‘পৌষ ফাগুনের পালা’। তার অভিনীত প্রথম টেলিফিল্ম ‘বাহিনী’। টিভি পর্দায় ‘ছায়াবৃতা’, ‘ইউনিভার্সিটি’, ‘টো টো কোম্পানি’ ও ‘ললিতা’ নামে ধারাবাহিক নাটক এবং ‘ভালোবাসা ১০১’, ‘নোয়াখালী টু চিটাগাং জার্নি অব ম্যারেজ’, ‘না শুনতে রাজি না’, আত্মসাৎ, ‘দ্য ফাইনাল চ্যাপ্টার’, ‘অনেস্টি ইজ দ্য বেস্ট পলিসি’ নামে বেশকিছু খ নাটকে অভিনয় করেন। এছাড়াও এই প্রতিভাময়ী অভিনেত্রী’ আমাদের শার্লক হোমস’ এ অভিনয় করে দর্শকপ্রিয়তা পান। এদিকে তিনি আফসানা মিমির নির্দেশনা ‘সাতটি তারার তিমির’, রুবায়েত মাহমুদের ‘সাইন আপ’, রেদওয়ান রনির ‘ঝালমুড়ি’ ও রায়হান খানের ‘সুপারস্টার’ ধারাবাহিক নাটকে নিয়মিত অভিনয় করছেন। এছাড়াও ইমরাউল রাফাতের ‘রাব্বু ভাইয়ের বউ’ নিয়মিত প্রচারিত হয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে টয়া আর অন্য ৭ জন তরুণ তারকাকে নিয়ে স্যামসাং দুই মাসব্যাপী ক্যাম্পেইন ‘ইনভাইট এনভি’ শেষ করেছে। আর এই ক্যাম্পেইন ব্যাপক সাড়া ফেলেছে এই তারকাদের সোশ্যাল মিডিয়া ভক্তদের মাঝে। এই ক্যাম্পেইন বিষয়ে অভিনেত্রী টয়া বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়া ইন্সটাগ্রাম আজকাল বেশ জনপ্রিয়। গুগল প্লে-স্টোর থেকে বাংলাদেশে ডাউনলোড হওয়া শীর্ষ পাঁচ এ্যাপের একটি ইন্সটাগ্রাম। মূলত ছবি ও ভিডিও শেয়ার করার এই সোশ্যাল মিডিয়াতেও বাংলাদেশীদের আনাগোনা কম নয়। তারকারাও আছেন এখানটায়। নিয়মিত ছবি আর ভিডিও আপলোড করে যাচ্ছেন তারা। এ রকমই আট ইন্সটাগ্রাম তারকাকে নিয়ে স্যামসাংয়ের নতুন ক্যাম্পেইন ‘ইনভাইট এনভি’ আমরা যুক্ত হই। ‘মূলত মুমতাহিনা টয়া, আজমেরি আশা, বেনজির ইশরাত, শাহতাজ, ইশিকা খান, রাফা, তৌসিফ মাহবুব, বৃষ্টি ইসলামÑ এই আটজন ইন্সটাগ্রাম তারকাকে নিয়ে স্যামসাংয়ের নতুন ক্যাম্পেইন ‘ইনভাইট এনভি’। এরা সবাই নতুন প্রজন্মের কাছে বেশ পছন্দের শিল্পী। নতুন উদ্যম, নতুন ভাবনাÑ সবকিছুতেই নতুনত্বের আবিষ্কার এই সময়ের বৈশিষ্ট্য। আর তাই এই ৮ তারকাদের সবার হাতেই স্যামসাংয়ের নতুন মডেলের স্মার্টফোন এ ৮ শোভা পাচ্ছে।

২৪ এপ্রিল জন্ম নেয়া টয়া সম্প্রতি একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ শেষ করেছেন। অনেক চরিত্রেই তো অভিনয় করেছেন, ভবিষ্যতে কোন ধরনের চরিত্রে কাজ করতে চান? এমন প্রশ্নের জবাবে টয়া বলেন, ‘আমি এমন চরিত্রে সব সময় কাজ করতে চাই যেখানে আমি ব্যক্তি টয়া নই। অভিনয়কে যথাযথভাবে ফুটিয়ে তুলতে চ্যালেঞ্জিং চরিত্রগুলো আমার বেশি প্রিয়।

অভিনেত্রী ও মডেল মুমতাহিনা চৌধুরী টয়া টিভি নাটকে, বিজ্ঞাপনে ও উপস্থাপনায় নিয়মিত থাকলেও চলচ্চিত্রে কাজ করার আগ্রহ রয়েছে তার। তবে পুরো বাণিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্রে কাজ করার চেয়ে তার বেশি আগ্রহ বিকল্প ধারার গল্পনির্ভর চলচ্চিত্রের প্রতি। এখনও টয়া এই ধরনের চলচ্চিত্রে কাজ করার সুযোগ না পেলেও তার বিশ্বাস ভবিষ্যতে বিকল্প ধারার কোন চলচ্চিত্রে কাজ করার সুযোগ পাবেন। টয়া বলেন, ‘সম্পূর্ণ বাণিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্রে নিজেকে নায়িকা হিসেবে উপস্থাপন করার আগ্রহ আপাতত আমার নেই। কিন্তু বিকল্প ধারার চলচ্চিত্রে আমি কাজ করতে চাই যেখানে নিজের অভিনয় সক্ষমতা তুলে ধরার সুযোগ থাকবে।’ নোয়াখালীর মেয়ে টয়া ইতোমধ্যে বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলে ভিন্ন ধারার লাইভ শোর উপস্থাপনাও করছেন পুরোদমে। গত রমজানের ঈদে টয়াকে একসঙ্গে বারোটি স্যাটেলাইট চ্যানেলে উপস্থাপনা করতে দেখা গেছে। ‘লাক্স স্টাইল চেক’ নামের অনুষ্ঠানে টয়ার উপস্থাপনা ছিল বেশ প্রশংসনীয়। লাক্স চ্যানেল আই সুন্দরী প্রতিযোগিতার মাধ্যমে মিডিয়াতে আসেন টয়া। অবশ্য এ নিয়ে আছে মজার কাহিনী। কথায় কথায় জানালেন, তিনি যে বছর প্রতিযোগিতায় নাম লেখান, তার আগের বছর অন্য একজনের রেজিস্ট্রেশন করে দেন। আর পরের বছর নিজে নিজেই দুষ্টুমির ছলে রেজিস্ট্রেশন করে ফেলেন। অডিশনে যাওয়ার আগেরদিন মাকে সবকিছু বলার পর প্রথমেই রাজি হননি। পরে বড় বোনকে পটিয়ে রাজি করান মাকে। কিন্তু বাবাকে নিয়ে ঘটল বিপত্তি! কিছুতেই তিনি নরম হচ্ছিলেন না। পরে মা গিয়ে রাজি করাতে সক্ষম হন বাবাকে।

বাকপটু এ মডেল অভিনেত্রী বন্ধুমহলে ‘টমবয় হিসেবে বেশ পরিচিত। সেই ছোটবেলা থেকেই টয়ার চেহারা আর চালচলন ছিল অনেকটা ছেলেদের মতো। কথায় যেমন পটু তেমনি চঞ্চল। তুখোড় আড্ডাবাজ। শূটিং স্পটের যেখানেই হৈহুল্লোড় সেখানেই টয়া! চুপচাপ থাকতে একদম পছন্দ করেন না। লাফালাফিতে তাঁর জুড়ি মেলে না। সে কারণেই নাটকের ডানপিটে চরিত্রগুলোতে পরিচালকদের প্রথম পছন্দ টয়া। অভিনয়ের আইডল হিসেবে তিনি মনেপ্রাণে মানেন অভিনেত্রী তিশাকে। পছন্দের পোশাক হিসেবে শাড়ি আর বিভিন্ন ক্যাজুয়াল পোশাকই পড়তে ভালবাসেন। ঘুরতে পছন্দ করেন দেশ-বিদেশের যে কোন প্রান্তে। অবসর পেলে বিভিন্ন বই পরে, মুভি দেখে বা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডাবাজি করে সময় পার করে দেন। আর মুভি যদি হয় আঞ্জেলিনা জোলির, তা হলে তো কথাই নেই!