২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাফ ফুটবলে জয় দিয়ে শুরু চান কোচ মারুফ

  • মজিবর রহমান

এখন আর পরীক্ষা-নিরীক্ষার সুযোগ নেই। ফুটবলাররা কে কেমন পারফর্মার সবই আমার জানা। কাজেই শক্তি, সামর্থ্য যা আছে তা নিয়ে লড়াই করতে হবে। খেলতে হবে আমাদের মর্যাদার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ। দক্ষিণ এশিয়ার এই আসরে বাংলাদেশ সব সময় শিরোপার জন্য খেলে। এবারও আমরা সে লক্ষ্যেই মাঠে নামবো। কথাগুলো বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোচ মারুফুল হকের। আগামী রবিবার থেকে বিকেএসপিতে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের আবাসিক ক্যাম্প। সম্ভাব্য ২৫ ফুটবলার নিয়ে অনুষ্ঠিত ক্যাম্প থেকেই চূড়ান্ত করা হবে ২০ জনকে। সাফ ফুটবল সামনে রেখে জাতীয় দলের এই আবাসিক ক্যাম্পে ফিরতে পারেন কৃতী দুই ফরোয়ার্ড জাহিদ হোসেন ও এনামুল হক। বর্তমান দলে থাকা ২০ খেলোয়াড়ের সঙ্গে এ দু’জনসহ আরও মোট পাঁচ খেলোয়াড়কে যোগ করবেন কোচ মারুফ। আগামীকাল শনিবার তার সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তি হবে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে)। যদিও ইতালিয়ান কোচ ফ্যাবিও লোপেজকে বরখাস্ত করার পরই জাতীয় দলের দায়িত্ব মারুফের ওপর ছেড়ে দিয়েছে বাফুফে। সেটা মৌখিক আলোচনায়। মূলত এরপরই কাগজে-কলমে কাজ শুরু করেন নতুন কোচ।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার চীন থেকে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ফুটবলার, কোচ, কর্মকর্তা। বিমান বন্দর থেকেই ফুটবলারদের ছুটি দিয়ে দেয়া হয়। পরে তারা সেখার থেকে যে যার গন্তব্যে চলে যান। তবে রবিবার থেকে বিকেএসপিতে ক্যাম্প শুরু এ কথা সবাইকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ গতকাল জনকণ্ঠকে জানান, ইতালিয়ান কোচ লোপেজকে শনিবার বিদায় করে দেয়া হবে। তবে মৌখিকভাবে ইতোমধ্যে লোপেজকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে তাকে আর রাখা হচ্ছে না। ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত চুক্তি থাকলেও জাতীয় দলের পারফর্মেন্সে সন্তুষ্ট নয় বাফুফে। বিশেষ করে চীনে জাতীয় দলের খেলা, রেজাল্টে হতাশ সবাই। এটাই লোপেজকে মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে বাদ দেয়ার অন্যতম কারণ। পাশাপাশি বিশ্বকাপ ফুটবল বাছাইয়েও তার প্রশিক্ষণে প্রত্যাশিত খেলা খেলতে পারেনি বাংলাদেশ জাতীয় দল। বিষয়গুলো অবহিত করে শনিবার অনুষ্ঠানিক বিদায় জানানো হবে লোপেজকে। প্রসঙ্গত লোপেজের প্রশিক্ষণ, পরীক্ষা-নিরীক্ষায় জাতীয় দলের অবস্থা বর্তমানে অনেকটা নড়বড়ে। এ অবস্থায় সাফ ফুটবলকে সামনে রেখে দায়িত্ব নিয়েছেন দেশের পরীক্ষিত কৃতী কোচ মারুফুল হক। তিনি নিজেও অবগত জাতীয় দলের অবস্থা প্রসঙ্গে। তারপরও একে চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিচ্ছেন মারুফ। তার কথায় কঠিন একটা সময়ে জাতীয় দলের দায়িত্ব নিয়েছি। তবে আমি আশাবাদী দলটাকে পুনর্গঠনে। খেলোয়াড়দের কার ক্ষমতা, সামর্থ্য বা মেধা কতটুকু সবই আমার জানা। ফলে আশা করছি মানসিকভাবে তাদের চাঙ্গা করার পাশাপাশি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে প্রত্যাশিত রেজাল্টের লক্ষ্যে সুবিন্যাস্ত একটা দল গড়া সম্ভব। হাতে যথেষ্ট সময় না থাকলেও যা আছে এর মধ্যেই গোছগাছ করতে হবে। উল্লেখ্য, সাফ ফুটবলের এবারের আয়োজক ভারত। খেলা হবে কেরালায়। প্রতিযোগিতা শুরু ২২ ডিসেম্বর। বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ২৪ ডিসেম্বর। এই ম্যাচটাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন কোচ মারুফ। তার কথায় গ্রুপের প্রথম ম্যাচটা সবচেয়ে ‘ভাইটাল’। আর এটা উৎরাতে পারলে দলের টিম স্পিরিট আরও বেড়ে যায়। কাজেই জয় দিয়েই শুরু চাই আমি।

দেশে ফেরার পর অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম মামুন তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, চীনে বাজে রেজাল্টের জন্য দায়ী কোচ লোপেজ। তিনি সবচেয়ে বড় ক্ষতি করেছেন খেলোয়াড়দের পজিশন পরিবর্তন করে। তিনি আমাকেও নিয়মিত খেলাননি। তার ইচ্ছামতো দল সাজিয়েছেন দুই ম্যাচে। পরবর্তীতে তাকে বাদ দেয়ার পর তৃতীয় ম্যাচে দল ঠিক করি আমি নিজে। আর এ ম্যাচেই শান্তনার জয় পাই আমরা। নতুন কোচ মারুফুল হককে আমার শুভেচ্ছা। তিনি জাতীয় দলের দায়িত্ব নিয়ে ভাল করবেন, এ বিশ্বাস আমার রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২৩ ডিসেম্বর নেপাল-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে সাফ ফুটবলের বল। বাংলাদেশ দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে ২৬ ডিসেম্বর মালদ্বীপের বিপক্ষে। আর ২৮ ডিসেম্বর গ্রুপের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভুটান।