২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এ্যাডিলেডে দিবারাত্রির ইতিহাস

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মাঠে গড়াল দিবারাত্রির টেস্ট। জ্বলে উঠল ফ্লাডলাইট, বোলারের হাত থেকে ছুটে এল গোলাপি বল। ইতিহাসের সাক্ষী হলো এ্যাডিলেড। এ্যাডিলেড ওভালে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড সিরিজ নির্ধারণী টেস্টে আর সবই যে গৌণ। আলোচনায় কেবলই ‘দিবারাত্রির’ আয়োজন। টস জিতে ব্যাটিং নেয়া কিউদের জন্য এমন ঐতিহাসিক দিনটা অবশ্য সুখকর হয়নি। অসি-বোলিং তোপে প্রথম ইনিংসে ২০২ রানে অলআউট ব্রেন্ডন ম্যাককুলামের দল। জবাবে ২ উইকেটে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ৫৪। ২৪ রান নিয়ে ব্যাট করছেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। ব্যক্তিগত ৯ রানে তার সঙ্গী এ্যাডাম ভোগস। তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০তে এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া।

‘ডিনার’ শেষ হতেই সত্যিকারের দিবারাত্রির আমেজ। ভুল নয়, ঠিকই পড়ছেন ‘ডিনার’! অনেক প্রথমের এক টেস্টের সর্বশেষ অবদান টেস্ট ক্রিকেটের প্রথম ডিনার সেশন। প্রথাগত লাঞ্চ বিরতির জায়গায় চা-বিরতি, আর চা-বিরতির জায়গাটা নিয়েছে ডিনার। টেস্ট ম্যাচে ফ্লাডলাইট জ্বলে উঠলে এমনটাই হওয়ার কথা! ইতিহাসের নতুন একদিকের উন্মোচন। এ্যাডিলেডের কৃত্রিম আলোয় প্রথমবারের মতো গোলাপি বলে টেস্ট খেলছে দু’টি আন্তর্জাতিক দল। ম্যাচের আর সব ছাপিয়ে যেখানে সব আলো কেড়ে নিচ্ছে দিবারাত্রির আয়োজন। দু’টি সেশন ফুরোবার পরই আগমন সেই মহেন্দ্র ক্ষণের, যখন আলোর নিচে টেস্টের নাচন, গ্যালারিতে ঔজ্জ্বল্য ছড়াল দর্শক।

৪০ মিনিটের ডিনার বিরতির পর দু’দল মাঠে নামতেই অভিনব সেই দৃশ্য। ওভাল ঘিরে জ্বলছে ফ্লাডলাইট। ৪৪ হাজারেরও বেশি দর্শকের সামনে সাদা পোশাক গায়ে গোলাপি বলে ‘ব্যাট-বলের’ কাব্য রচনা করছেন ক্রিকেটাররা। ফ্লাডলাইটে প্রথম পেসার হিসেবে বলটা করেন অস্ট্রেলিয়ার পিটার সিডল। তার সেই বলটি খেলার সৌভাগ্য হয় প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ডের বিজে ওয়াটলিংয়ের। তবে জস হ্যাজলউডের নামটিই হয়ত বেশি ইতিহাস হয়ে থাকবে। শুরুতে মার্টিন গাপটিলকে এলবিডব্লিউ করে দিবারাত্রির টেস্টের প্রথম উইকেটটি নেন তিনিই । ও হ্যাঁ খেলা শুরুর আগে অকাল প্রয়াত ফিলিপ হিউজেসকে স্মরণ করতেও ভুল হয়নি অসিদের। মাঠের ক্রিকেটার থেকে শুরু করে গোটা গ্যালারি দাঁড়িয়ে ছিল শ্রদ্ধাবনত মাথায়। ঐতিহাসিক দিবারাত্রির টেস্ট মাঠে গড়ানোর দিনটাই যে ছিল হিউজেসের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী।

খেলায় ফেরা যাক। নিউজিল্যান্ডের স্কোর দুই শ’ ছাড়িয়েছে মূলত টম লাথাম (৫০) ও মিচেল (৩১) স্যান্টনারের সৌজন্যে। এছাড়া বাকিরা আশা জাগিয়েও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। স্বাগতিকদের হয়ে পেসার হ্যাজলউড ও মিচেল স্টার্ক নেন ৩টি করে উইকেট।

স্কোর ॥ নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংস ২০২/১০ ৬৫.২ ওভার (লাথাম ৫০, স্যান্টনার ৩১, ওয়াটলিং ২৯, উইলিয়ামসন ২২, সাউদি ১৬; স্টার্ক ৩/২৪, হ্যাজলউড ৩/৩৩, লেয়ন ২/৪২, সিডল ২/৫৪)

অস্ট্রেলিয়া প্রথম ইনিংস ৫৪/২ ২২ ওভার (স্মিথ ২৪*, বার্নস ১৪, ভোগস ৯*; ব্রেসওয়েল ১/৬, বোল্ট ১/১৫)

ক্স প্রথম দিন শেষে

নির্বাচিত সংবাদ