২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সরকারকে ফেসবুকের বিষয় পরিষ্কার করতে হবে ॥ জাফর ইকবাল

বিডিনিউজ ॥ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক কবে খুলে দেয়া হবে তা সরকারকে সুনির্দিষ্টভাবে বলা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন লেখক-অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হওয়া দুইদিনের প্রযুক্তি উৎসব ‘আইপিভিশন সিএসই কার্নিভাল ২০১৫’ চলাকালে তিনি এ কথা বলেন। বিভিন্ন সময়ে নাগরিক অধিকারের পক্ষে আন্দোলনে নামা এই অধ্যাপক বলেন, ‘ফেসবুক যদি সাময়িকভাবে বন্ধ করা হয় তাহলে তা মেনে নিতে রাজি আছি। যদি সাময়িক না হয় তাহলে আমাদের সিরিয়াস আপত্তি আছে। ‘তাই ফেসবুক কবে খুলে দেয়া হবে সে বিষয়ে সরকারকে সুনির্দিষ্ট ও পরিষ্কারভাবে বলতে হবে।’

ফেসবুক খুলে দেয়া প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে কম্পিউটার সায়েন্সের এই অধ্যাপক বলেন, ‘দেশে ফেসবুকভিত্তিক অনেক কাজকর্ম হয়ে থাকে। অনেকে ব্যবসা করে, অনেক শিক্ষক তার ছাত্রছাত্রীদের পড়ানোর কাজে এই মাধ্যম ব্যবহার করে থাকেন। ‘কাজেই এটা যদি অনির্দিষ্টভাবে বন্ধ করা হয়ে থাকে তাহলে দেশের অনেক বড় ক্ষতি হবে।’ ফেসবুকের পাশাপাশি দেশে আরও কিছু সাইট বন্ধ রয়েছে উল্লেখ করে জাফর ইকবাল বলেন, ‘আমি তো এখন ড্রপবক্সও ব্যবহার করতে পারছি না। এটা বন্ধ করার কারণে আমি তো খুবই বিপদে পড়ে গেছি।’ বাংলা সার্চ ইঞ্জিন ‘পিপীলিকা’ বন্ধ করার ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘চারটি এ্যাপস বন্ধ থাকার কথা থাকলেও সরকারের উচ্চ পর্যায়ে যারা দায়িত্ব পালন করছেন তারা কতটুকু দায়িত্ব পালন করছেন তা আমি জানি না।’

সর্বোচ্চ আদালতে যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড পুনর্বিবেচনার আবেদন খারিজ হওয়ার পর গত ১৮ নবেম্বর বাংলাদেশে ফেসবুক, মেসেঞ্জার, ভাইবার ও হোয়াটসএ্যাপসহ ইন্টারনেটে যোগাযোগের কয়েকটি মাল্টিমিডিয়া এ্যাপ বন্ধ করা হয়। এর চারদিনের মাথায় শীর্ষ পর্যায়ের এই যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসি কার্যকরের পর সপ্তাহ হতে চললেও ফেসবুকসহ অন্য এ্যাপগুলো খোলেনি। ফেসবুকসহ এসব এ্যাপ বন্ধ থাকায় বাংলাদেশে ইন্টারনেট ডেটা ব্যবহার প্রায় ৩০ শতাংশ কমেছে বলে মোবাইল ফোন অপারেটর ও আইআইজি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা বলেছেন। নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে বন্ধ করার পর কবে নাগাদ সোশ্যাল মিডিয়া খুলে দেয়া হবে, তা এখনও নিশ্চিত করেনি সরকার। ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বৃহস্পতিবার এক লেখায় ফেসবুক বন্ধের কারণ ব্যাখ্যা করলেও তা খুলে দেয়ার বিষয়ে স্পষ্ট কিছু বলেননি।