২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এবার নায়ক লিয়াম প্ল্যাঙ্কেট

  • টি২০ সিরিজেও হার পাকিস্তানের, ব্যাট হাতে আশা জাগিয়েও ব্যর্থ আফ্রিদি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ওয়ানডের পর টি২০ সিরিজেও হারল পাকিস্তান। টানা দুই জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতে নিল ইংল্যান্ড। পেসার লিয়াম প্ল্যাঙ্কেটের দুরন্ত বোলিং নৈপুণ্যে এবার ইংলিশদের জয় ৩ রানে। ছোট্ট এক ঝড়ো ইনিংসের পথে আশা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ পাক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি। দুবাইয়ে নাটকীয়তাময় দ্বিতীয় টি২০তে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৭২ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে ইংল্যান্ড। জবাবে সমান সংখ্যক উইকেট হারিয়ে ১৬৯-এ থামে পাকিস্তান। এর আগে প্রথম ম্যাচে ১৪ রানে জিতেছিল বদলে যাওয়া ইংল্যান্ড। শারজায় আনুষ্ঠানিকতার তৃতীয় ও শেষ টি২০ সোমবার। দুবাইয়ের ম্যাচটি ছিল দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। জয়ের জন্য শেষ ২ ওভারে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ২৫ রান, শেষ ওভারে ১১। হাতে ৩ উইকেট। ক্রিজে ছিলেন সরফরাজ আহমেদ ও আনোয়ার আলি। দু’জনই হিটার। রুদ্ধশ্বাস অপেক্ষায় গ্যালারিতে হাজারো দর্শক। ক্রিস ওকসের প্রথম বলই অভিনব স্টাইলে টেনে খেলতে গিয়ে বোল্ড সরফরাজ! ক্রিজে এসে দ্বিতীয় বলেই দারুণ এক চার হাঁকিয়ে খেলা আরও জমিয়ে তোলেন সোহেল তানভির। ৪ বলে চাই ৭ রান। তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম বলে সিঙ্গেলস এলে জয়ের জন্য শেষ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন হয় ৪ রান। একটি মাত্র চার। গ্যালারিতে নেমে আসে পিনপতন নীরবতা। ওকসের দুর্দান্ত সুইং থেকে রান নিতে ব্যর্থ আনোয়ার আলি। দৃশ্যপটের আফ্রিদি প্রসঙ্গ তারও আগে।

১৭তম ওভারে অন্যতম ভরসা শোয়েব মালিক (২৬) যখন সাজঘরে ফেরেন ৬ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তান তখন অনেকটাই ব্যাকফুটে। সুনামির বেগে শুরু করেন অধিনায়ক। যতক্ষণ ক্রিজে ছিলেন মনে হয়েছে জয়ের দেখা পাবে দল। মাত্র ৮ বলে ১ চার ও ৩ ছক্কায় ২৪ রানের এক টর্নেডো ইনিংস খেলে যৌবনের আফ্রিদিকে মনে করিয়ে দিচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু টেম্পারেচার নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি। ওকসের ফুললেন্থের আউট সাইড ডেলিভারিতে সহজ এক ক্যাচ তুলে দেন, যেটি ধরতে ভুল করেননি ম্যাচের নায়ক প্ল্যাঙ্কেট! প্ল্যাঙ্কেট কেন নায়ক? উত্তরটা অনুমেয়। চাপের মুখে অসাধারণ বল করেছেন ৩০ বছর বয়সী ইয়র্কশায়ার পেসার। ৩৩ রান দিয়ে তুলে নিয়েছেন তিন সেরা ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ হাফিজ, শোয়েব মালিক আর উমর আকমলকে। সঙ্গে আফ্রিদিকে ফেরানো ওই ক্যাচ। ক্যারিয়ারের মাত্র তৃতীয় টি২০তে এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো ৩ উইকেট নিলেন প্ল্যাঙ্কেট।

তার আগে কোন বড় ইনিংস না থাকলেও সম্মিলিত প্রচেষ্টায় চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায় ইংল্যান্ড। সর্বোচ্চ ৩৮ রান করেন তরুণ জেমস ভিঞ্চ। ম্যাচে অধিনায়কত্ব করা জস বাটলার ৩৩, ওপেনার জেসন রয় ২৯, প্রথম ম্যাচের নায়ক স্যাম বিলিংস করেন ১১ রান। প্রত্যেকে রানের চেয়ে বল কম খেলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। পাকিস্তানের হয়ে আফ্রিদি ৩ ও পেসার আনোয়ার আলি নেন ২টি করে উইকেট। আগামী মার্চে ভারতে বসবে টি২০ বিশ্বকাপের আসর। তারই প্রস্তুতি হিসেবে এই সিরিজটা দু’দলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে উপমহাদেশীয় কন্ডিশনে উজ্জীবিত হওয়ার মতো দারুণ এক সাফল্য তুলে নিল ইংলিশরা। স্বভাবতই সন্তুষ্ট প্রধান কোচ ট্রেভর বেইলিস বলেন, ‘ওয়ানডের পর টি২০ সিরিজেও ছেলেরা দারুণ খেলছে। এটি আমাদের টি২০ বিশ্বকাপের দল গড়তে সাহায্য করবে।’