২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মাত্র ১৭ সেকেন্ডেই রুশ বিমান ভূপাতিত করে তুরস্ক!

  • লাভরভ আঙ্কারার উস্কানিমূলক পদক্ষেপকে দুষছেন

একটি রুশ জঙ্গী বিমান তুর্কি আকাশসীমায় ঢুকে পড়েছিল- তুরস্কের একথা সত্য হলেও, বিমানটি আক্রান্ত হওয়ার আগে মাত্র ১৭ সেকেন্ড আঙ্কারার সীমান্তের মধ্যে ছিল এবং সেটি তুর্কিদের প্রতি কোন বৈরী পদক্ষেপও নেয়নি।

আকাশসীমা লঙ্ঘন সব সময়েই ঘটে থাকে এবং সেক্ষেত্রে সাধারণত সতর্কতামূলক গুলিবর্ষণ করা হবে এবং অনুপ্রবেশকারী বিমানটিকে পরে সে স্থান ত্যাগে বা অবতরণে বাধ্য করা হবে বলে প্রত্যাশা করা হয়। তুর্কিরা বিমানটি গুলি করে নামিয়েছিল এবং তারা তা ১৭ সেকেন্ডের মধ্যে করেছিল। আর প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোগান নিজেই গুলি ছোড়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে দাবি করেন। এ থেকে ভালভাবেই বোঝা যায় যে, তারা এক কড়া বার্তা পাঠানোর উদ্দেশে বিমানটির তুর্কি আকাশসীমায় বা এর যথেষ্ট কাছাকাছি আসার জন্য অপেক্ষা করছিল। এদিক দিয়ে সেটি এক উস্কানি ও চোরাগোপ্তা হামলা বলে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের উক্তিটি বোধগম্য। মস্কো এর বিমানটিকে সীমান্তের এত কাছে যেতে দিয়ে বোকামির পরিচয় দিয়ে থাকতে পারে। কিন্ত তুরস্কের জবাব স্বাভাবিক রীতির বাইরে চলে যায়। ২০১২ সালে সিরীয়রা তাদের আকাশসীমায় ঢুকেছিল এমন একটি তুর্কি বিমানকে গুলি করে নামিয়েছিল। সেই সময়ে এরদোগানের ক্রুদ্ধ জবাব ছিল, সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য সীমান্ত লঙ্ঘন কখনও কোন হামলার অজুহাত হতে পারে না।

সেই সময়ে ন্যাটোর মহাসচিব এ্যান্ডারস ফগ রাসমুসেন একে ‘সিরীয় কর্তৃপক্ষের আন্তর্জাতিক রীতিনীতির প্রতি অবজ্ঞা দেখানোর আরেক দৃষ্টান্ত’ বলে অভিহিত করেন। এবার আঙ্কারার সেরূপ সমালোচনা করা হয়নি।

স্বাভাবিক কূটনৈতিক পথে দুটি দেশের প্রকাশ্য সংঘাত সম্ভবত এড়ানো যাবে। কিন্তু তারা গুপ্ত তৎপরতার মধ্য দিয়ে তাদের বৈরিতা চরিতার্থ করতে পারে।

খোদ সিরিয়াতেই রুশরা আঙ্কারার মদদপুষ্ট দলগুলোর ওপর হামলা চালানোর ওপর জোর দিতে পারে। এক তুর্কি ত্রাণ সাহায্যবাহী বহরের ওপর বিমান হামলা এর প্রথম বহির্প্রকাশ। আর তুর্কিরা সম্ভবত রুশদের রক্তক্ষরণ ঘটাতে সবচেয়ে বেশি সমর্থ এমন দলগুলোকে অস্ত্রসজ্জিত ও উৎসাহিত করবে।

এ উপায়ে যা আগে কোন পরোক্ষ লড়াই ছিল না, তা এরূপ লড়াইয়ের রূপ নিতে পারে।