২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ড. ভ্যালেরিকে দেয়া হলো এইচআরপিবি এ্যাওয়ার্ড

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আন্তর্জাতিক সালিশী আদালতের সদস্য ও সাবেক প্রধান বিচারপতি এম তাফাজ্জল ইসলাম বলেছেন, শুধু আইন করে সমাজে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা যাবে না। এজন্য দরকার সমাজে সচেতনতা সৃষ্টি করা। তিনি বলেন, আমাদের মধ্য থেকে নিজেদের সচেতন করতে হবে। তাহলে হয়ত ধীরে ধীরে দেখব আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। শনিবার মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস এ্যান্ড পীস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) এ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিচারপতি তাফাজ্জল ইসলাম এসব কথা বলেন। পক্ষাঘাতগ্রস্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসন নিয়ে কাজ করা সেন্টার ফর রিহ্যাবিলিটেশন প্যারালাইজড (সিআরপি) এর প্রতিষ্ঠাতা ড. ভ্যালেরি টেইলরকে এ বছর সংগঠনের পক্ষ থেকে এ এ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এইচআরপিবির সভাপতি এ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। অনুষ্ঠানে বিচারপতি এম তাফাজ্জল বলেন, ভারতের বিচার বিভাগ অনেক এগিয়ে গেছে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, শিক্ষা ও পরিবেশে অনেক পরিবর্তন এসেছে সেখানে। আশা করি আমরাও এদেশে সেই পরিবর্তন আনতে সক্ষম হব। তিনি বলেন, আজকের দিনে সারা পৃথিবী হিংসায় উন্মত্ত। এখানে ওখানে বোমা মারা হচ্ছে। এখন আমাদের দরকার শান্তি।

বিচারপতি তাফাজ্জল আরও বলেন, শহরের বাইরে যারা প্রান্তিক মানুষ তারা কখনও সুবিধা পায় না। এরা অবহেলিত, অত্যাচারিত ও দুর্বল। এদের সেবায় এগিয়ে এসেছেন ভেলরি টেইলর। আশা করি ভেলরির কাজে উদ্বুদ্ধ হয়ে একদিন দেখব বহু মানুষ জনস্বার্থ রক্ষায় কাজ করছেন। তখন হয়ত এই দেশ আর আগের মতো থাকবে না।

প্রবীণ আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক বলেন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে উন্নয়ন করা সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। আমরা আইনজীবীরা যে টাকা আয় করি তা থেকে যদি জনগণকে কিছু ভাগ দেয়া হয় তাহলে সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে। মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান বলেন, আমাদের দেশে টর্ট মামলা একদমই দেখা যায় না। যতক্ষণ পর্যন্ত টর্ট মামলা না হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত যারা অপঘাতে মৃত্যুবরণ করছে ও আহত হচ্ছে তাদের স্বার্থ রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে না। অনুষ্ঠানে সিনিয়র আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, আব্দুল মতিন খসরু, বিশিষ্ট কলামিস্ট অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এম মাহবুবউদ্দিন খোকন প্রমুখ বক্তব্য দেন।