১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পৌর নির্বাচন ॥ অস্ত্র উদ্ধার, চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের নির্দেশ

অনলাইন রিপোর্টার ॥ আসন্ন পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণ করতে বেআইনী অস্ত্র উদ্ধার, চিহ্নিত চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপ-সচিব সামসুল আলম স্বাক্ষরিত নির্দেশনা শনিবার ২৩৬টি পৌরসভার রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর পাঠানো হয়েছে। এছাড়া নির্দেশনার অনুলিপি মন্ত্রিপরিষদ সচিব, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, বিজিবি, র‌্যাব, আনসারে মহাপরিচালক বরাবর পাঠানো হয়। নির্বাচন বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করতে অনুরোধ করা হয়েছে।

নির্দেশনা বলা হয়, ভোটকেন্দ্রে এবং ভোটকক্ষের বাহিরে গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থাসহ সকল বেআইনী অস্ত্র উদ্ধার পরিচালনা জোরদার করতে হবে। একই সঙ্গে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের তালিকা প্রণয়ণ করে চাঁদাবাজ, মাস্তান ও চিহ্নত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে ব্যবস্থা করতে হবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তাদের সমর্থকেরা যাতে নির্বাচনী আচরণ মেনে চলেন এবং কোনো তিক্ত, উস্কানিমূলক ও ধর্মানূভুতিতে আঘাত করে, এমন কার্যকলাপ বা বক্তব্য প্রদান হতে বিরত থাকেন। অর্থাৎ পেশীশক্তি অথবা স্থানীয় ক্ষমতা দ্বারা কেউ নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে না পারেন এবং পারস্পরিক সৌহার্দ্য ও সুসম্পর্ক বজায় রাখায় হয় তার নিশ্চয়তা বিধানের জন্য সংশ্লিষ্ট সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করতে হবে এবং প্রয়োজন বোধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

এছাড়া সকল স্তরের ভোটারদের নির্ভয়ে ও নির্বিঘ্নে ভোটদানে উদুদ্ধ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সকল শ্রেণীর ভোটার, বিশেষ করে সংখ্যালঘু ও মহিলা ভোটাররা যেন নির্ভয়ে ও নির্বিঘ্নে ভোটদান করতে পারেন সে ব্যবস্থা করতে হবে।

উল্লেখ, আগামী ৩০ ডিসেম্বর ২৩৬টি পৌরসভায় এক যোগে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। গত ২৪ নভেম্বর এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। তফসীল অনুযায়ী- মনোয়নপত্র দাখিলে শেষ দিন ৩ ডিসেম্বর, যাচাই-বাছাই ৫ ও ৬ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৩ ডিসেম্বর।