২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তৃতীয় প্রান্তিকে রবির গ্রাহক বেড়েছে ১০ লাখ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মোবাইল ফোন অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেডের চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) রাজস্ব ও গ্রাহক দুটোই বেড়েছে। এই সময়ে রাজস্ব বেড়েছে ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ এবং গ্রাহক বেড়েছে ১০ লাখ। ভয়েস সেবার চেয়ে ডাটা খাত থেকে রাজস্ব আয় বাড়ছে। অপরদিকে, নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে ও গুণগত সেবা নিশ্চিত করতে বিনিয়োগও বাড়িয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তৃতীয় প্রান্তিকে এখাতে রবির মূলধনী ব্যয়ের পরিমাণ ৪৩০ কোটি টাকা।

রবিবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানে রবির কর্পোরেট অফিসে এক সংবাদ সম্মেলনে তৃতীয় প্রান্তিকে ব্যবসায়িক প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। প্রতিবেদন তুলে ধরেন রবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সুপুন বীরাসিংহে। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রধান অর্থ কর্মকর্তা ইয়াপ উই ইপ, প্রধান করপোরেট ও মানবসম্পদ কর্মকর্তা মতিউল ইসলাম নওশাদ প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ২০১৫ সালের প্রথম ৯ মাসে রবিতে ৩১ লাখ গ্রাহক যুক্ত হয়েছে। এতে রবির মোট গ্রাহক সংখ্যা ২ কোটি ৮৪ লাখে পৌঁছেছে। এটি দেশের মোট মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর ২১ দশমিক ৬ শতাংশ। গত বছরের তৃতীয় প্রান্তিক থেকে চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে রাজস্ব হার বেড়েছে ৬ দশমিক ৭ শতাংশ। দুই ঈদ উৎসব রাজস্ব বৃদ্ধিতে সহায়ক হয়েছে। পরিচালন মুনাফা বেড়েছে ১ দশমিক ৭ শতাংশ। আর কর পরবর্তী মুনাফার হার ২০ দশমিক ৪ শতাংশ।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, ২০১৫ সালের প্রথম ৯ মাসে নেটওয়ার্ক বিস্তারে ১ হাজার ৭৮০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। যা আগের বছরের তুলনায় ২৩ দশমিক ৫ শতাংশ বেশি। আর রাষ্ট্রীয় কোষাগারে রবি জমা দিয়েছে ১ হাজার ২৬০ কোটি টাকা। যা মোট রাজস্বের ৩২ দশমিক ৭ শতাংশ।

সিইও সুপুন বীরাসিংহে বলেন, ডাটা থেকে রাজস্ব বেড়েছে ১০০ শতাংশেরও বেশি। গ্রাহকের জন্য সর্বোচ্চ মান সম্মত ২ দশমিক ৫জি এবং ৩ দশমিক ৫ জি মোবাইল সেবা দিতে নেটওর্য়াক খাতে বিনিয়োগ আগের তুলনায় বাড়ানো হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে সুপুন বীরাসিংহে বলেন, সরকারি সিদ্ধান্তে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের কয়েকটি মাধ্যম বন্ধ থাকায় ডাটার ব্যবহার ৩০ শতাংশের মতো কমেছে। চতুর্থ প্রান্তিকে এর আর্থিক প্রভাব নিশ্চিতভাবেই পড়বে। তবে জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে আপস করার কোনো সুযোগ নেই। এজন্য রবির সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। এয়ারটেলের সঙ্গে একীভূত হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রবি বা এয়ারটেল কেউ কাউকে কিনে নিচ্ছে না। এক্ষেত্রে অর্থ নয়, বিনিময় হবে দুটো প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধার। একীভূত হওয়ার প্রক্রিয়াটির বিভিন্ন আইনগত ধাপ আছে, যা সময়সাপেক্ষ। এক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান বিটিআরসি ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মেনেই সবকিছু করা হবে। উল্লেখ্য, রবি ও এয়ারটেল একীভূত হলে নতুন কোম্পানির মোট গ্রাহক হবে ৩ কোটি ৮০ লাখের মতো।