২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন শুরু

অনলাইন ডেস্ক ॥ একটাই বিশ্ব- আর সেটাই রক্ষা করতে হবে- এই দাবিতে সিডনি থেকে লন্ডন পর্যন্ত দুনিয়ার তাবৎ শহরে রাজপথে নেমেছে মানুষ।ছয় বছর আগে কোপেনহেগেন সম্মেলনের মতো ব্যর্থতাই যেন ঝুলিতে পুরতে না হয়, সেই আশা নিয়ে সোমবার প্যারিসে কম-টুয়েন্টি ওয়ানে জড়ো হচ্ছেন ১৫০টি দেশের নেতারা।

কার্বন নিঃসরণ কমিয়ে ২০২০ সাল নাগাদ বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি যেন ২ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের মধ্যে ধরে রাখা যায়, তাতে উন্নত ও উন্নয়নশীল বিশ্বের মতৈক্য প্রতিষ্ঠায় বিশ্বনেতাদের চাপ সৃষ্টিই ছিল বিক্ষোভের লক্ষ্য। সম্মেলন যেখানে হচ্ছে, সেই প্যারিসে বিক্ষোভ শুরু হলেও তা পণ্ড হয়ে গেছে পুলিশের কাঁদুনে গ্যাস ও লাঠিপেটায়। প্যারিসে সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী হামলার পর জরুরি অবস্থার মধ্যে কর্মসূচি পালনে বাধা দেওয়া হয়।

বাধার পর প্যারিসের লা রিপাবলিক চত্বরে ২০ হাজার জোড়া জুতা রেখে প্রতীকী প্রতিবাদ জানায় কর্মসূচি আয়োজনকারীরা।

প্রতীকী এই প্রতিবাদে সংহতি জানিয়ে একজোড়া করে জুতা পাঠিয়ে জলবায়ু পরিবর্তন রোধে কার্যকর পদক্ষেপ চেয়েছেন ক্যাথলিক ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস ও জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুনও।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বিলুপ্তির সম্মুখীন পেঙ্গুইন, মেরু ভল্লুকে মতো প্রাণীর সাজে সেজে ক্ষতিপূরণের দাবিও জানিয়েছেন অনেকে।

জার্মানির রাজধানী বার্লিনে জড়ো হয় প্রায় ৫ হাজার মানুষ। তাদের অনেকে ছিলেন পেঙ্গুইনের সাজে।

অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে ওপেরা হাউসের সামনে প্রায় ৪৫ হাজার মানুষের বিক্ষোভ হয়েছে। তাদের স্লোগান ছিল- ‘পৃথিবীর বিকল্প আর নেই’, ‘বিদ্যুতের জন্য গাছ কাটা বন্ধ কর’। লন্ডনে বিক্ষোভে সামিল হয়েছিলেন ফ্যাশন ডিজাইনার ভিভিয়েন ওয়েস্টউড, অভিনেত্রী এমা থম্পসনের মতো তারকারা।

“এই পৃথিবীটা আমাদের এবং এটি এখন ভীষণ, ভীষণ বিপদে আছে,” কর্মসূচিতে নিজের অংশগ্রহণের কারণ তুলে ধরেন থম্পসন।

সম্মেলনে যোগ দেওয়া দেশগুলো আশা করছে, এবার এমন একটি চুক্তি হবে যাতে জীবাশ্ম জ্বালানি নির্ভারতা থেকে বায়ু এবং সৌরশক্তির মতো নবায়নযোগ্য জ্বালানির দিকে এগুনোর পথে নতুন মোড় পরিবর্তন ঘটবে।

আগামী ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সম্মেলনে সম্মেলনে রাষ্ট্রনেতা ও সরকারি কর্মকর্তারাসহ ৪০ হাজারের মতো মানুষ অংশ নেবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

২০১১ সালে কোপেনহেগেনে কপ-টোয়েন্টি শেষ হয়েছিল এই প্রতিশ্রুতিতেই যে ২০১৫ সালের মধ্যে সর্বসম্মত একটি চুক্তি হবে। সেই প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়নের আশা নিয়েই বসছে প্যারিসে কপ-টোয়েন্টি ওয়ান ।