১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাইবান্ধায় ধর্ষণের দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা ॥ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় স্বামী পরিত্যক্ত এক নারীকে ধর্ষণের দায়ে মঙ্গলবার দুপুরে খায়রুল ইসলাম (৩৮) নামে এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে। ধর্ষণের ঘটনার দীর্ঘ সাড়ে ১০ বছর পর গাইবান্ধার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক রতেœশর ভট্টাচার্য এ রায় প্রদান করেন। রায়ের সময় আসামি খায়রুল ইসলাম আদালতে উপস্থিত ছিলেন। দণ্ডপ্রাপ্ত খায়রুল ইসলামের বাড়ি জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বাজারপাড়ায়। তিনি ওই গ্রামের আবদুল করিমের ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০০৫ সালের ৫ মে রাতে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বাজারপাড়ার ছামছুল আলমের মেয়ে স্বামী পরিত্যক্তা শামছুনাহার লাভলী পানি আনতে পাশের বাড়িতে যান। এ সুযোগে প্রতিবেশী খায়রুল ইসলাম তার ঘরে প্রবেশ করে খাটের নিচে লুকিয়ে থাকে। পরে রাতে জোর পূর্বক খায়রুল ইসলাম ধর্ষণ করে দরজা খুলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় লাভলী নিজেই বাদী হয়ে ১৭ মে ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে মামলার আবেদন জানান। পরে আদালতের নির্দেশে সুন্দরগঞ্জ থানা পুলিশ ৫ জুলাই খায়রুল ইসলামের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলাটি রুজু করে। পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট একেএম মহিবুল হক সরকার মোহন জানান, আসামি খায়রুল ইসলাম জেলা কারাগারে রয়েছেন। মামলাটি অধিকতর তদন্ত শেষে পুলিশ আদালতে প্রতিবেদন (চার্জশিট) দাখিল করে। মঙ্গলবার আদালতে সাক্ষী প্রমাণ ও আসামি খায়রুল ইসলামের উপস্থিতিতে দীর্ঘ শুনানি শেষে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেন বিচারক। আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট নিরঞ্জন কুমার ঘোষ।