২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নির্বাচন কমিশন অক্ষম, নতজানু ॥ রিপন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে অক্ষম, নতজানু ও মেরুদ-হীন বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মুখপাত্র ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পৌরসভা নির্বাচনে দলের মেয়র প্রার্থীদের তালিকা তৈরির কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

পৌরসভা নির্বাচনের সম্ভাব্য প্রার্থীসহ বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে অভিযোগ করে রিপন বলেন, এ নির্বাচন কতটা প্রতিযোগিতামূলক হবে, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। এভাবে গণগ্রেফতারের কারণে আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রশ্ন রাখতে চাই, নির্বাচন কমিশন কী ধরনের নির্বাচন করতে চায়? তিনি বলেন, আমরা আগেই গ্রেফতার বন্ধের দাবি করেছিলাম। এরপরও গণগ্রেফতার অব্যাহত রয়েছে। সোমবার ময়মনসিংহের নান্দাইল পৌরসভার বর্তমান মেয়র বিএনপি নেতা এএফএম আজিজুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা এর নিন্দা জানাই। সেই সঙ্গে গ্রেফতার বন্ধের দাবি জানাচ্ছি। তিনি বলেন, নির্বাচনে সকলের জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টির জন্য গ্রেফতার ও হয়রানী বন্ধ করতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশে পাকিস্তানী সেনারাই গণহত্যা ঘটিয়েছে। সত্যকে আড়াল করা যাবে না। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নতুন ৫০ লাখ ভোটারকে পৌরসভা নির্বাচনে ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। তিনি বলেন, আমরা নির্বাচন কমিশনকে স্বাধীন ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ভাবতে চাই। তারা অক্ষমতা থেকে সক্ষমতা অর্জন করবে, এটাই আমরা প্রত্যাশা করি। কিন্তু নির্বাচন কমিশন যদি চোখ-কান বন্ধ করে থাকে, তাহলে এ নির্বাচন আদৌ প্রতিযোগিতামূলক হবে না। এ নির্বাচন হবে সরকারের নীল নক্সায় ভরপুর একটি নির্বাচন।

বিএনপির মুখপাত্র বলেন, পৌর নির্বাচনে অংশগ্রহণের লক্ষ্যে বিএনপি নির্বাচন কমিশনের কাছে কিছু পর্যবেক্ষণ ও দাবি তুলে ধরেছিল। কিন্তু দুঃখের সঙ্গে লক্ষ্য করছি, কমিশন এসব দাবি নিরসনের কোন পদক্ষেপ নেয়নি। আমরা প্রতীকীভাবে ১৫ দিন সময় বাড়ানোর কথা বলেছিলাম। এর জন্য এক মাস সময় লাগলে লাগতে পারত, তাহলে সমস্যা কী হতো। এর মধ্য দিয়ে ৫০ লাখ নতুন ভোটার নির্বাচনের সঙ্গে যুক্ত হতে পারত। নির্বাচন কমিশন নির্বাচন না পেছানোর কারণ হিসেবে বিশ্ব ইজতেমা ও ফেব্রুয়ারিতে মাধ্যমিক পরীক্ষার কথা বললেও এক পরীক্ষা থেকে আরেক পরীক্ষার মধ্যে চার দিনের গ্যাপে এ নির্বাচন করা সম্ভব ছিল। যদি কমিশনের সদিচ্ছা থাকত তাহলে নির্বাচন পেছানো কোন সমস্যা হতো না।

সোমবার পাবনায় ৯১, দিনাজপুরে ৪, সাতক্ষীরায় ২৫ এবং নেত্রকোণায় ২ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে অভিযোগ করে রিপন বলেন, আমরা দাবি জানাচ্ছি, যারা নির্বাচনের আগে ও পরে গ্রেফতার হয়েছেন, তাদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। তা নাহলে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হবে না। সেই সঙ্গে তিনি বিচারবহির্ভূত সকল হত্যাকা-ের বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, সহ-দফতর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, আসাদুল করিম শাহীন, দলের কেন্দ্রীয় নেতা তকদির হোসেন জসিম, মনিরুজ্জামান মনির প্রমুখ।