১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কমনওয়েলথ গেমসে ক্রিকেট ফেরানোর পরিকল্পনা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ কমনওয়েলথ গেমস আয়োজকরা পরবর্তী আসর থেকে আবার ক্রিকেট যুক্ত করার পরিকল্পনা করছে। ইতোমধ্যেই আয়োজকরা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনাও শুরু করে দিয়েছে। চার বছর পরপর কমনওয়েলথ গেমস অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। ১৭ বছর আগে মাত্র একবারই এ প্রতিযোগিতামূলক ইভেন্টে ক্রিকেট আয়োজিত হয়েছিল। কমনওয়েলথ গেমসের ইতিহাসে সেটাই প্রথম ও শেষবার ক্রিকেট ইভেন্ট ছিল। এবার ক্রিকেট যোগ হলে প্রতিযোগিতায় ক্ষুদ্রতম ফরমেট টি২০ খেলবে দলগুলো। অলিম্পিকের পর দ্বিতীয় সেরা বহুজাতিক এ বহুমাত্রিক ক্রীড়া ইভেন্ট হচ্ছে কমনওয়েলথ গেমস। তবে ১৯৯৮ সালে একবারই মাত্র এ প্রতিযোগিতায় ক্রিকেট খেলা যুক্ত করা হয়েছিল। সেবার কুয়ালালামপুরে অনুষ্ঠিত হয়েছিল প্রতিযোগিতাটি। এরপর আর ক্রিকেট হয়নি কমনওয়েলথ গেমসে। কিন্তু এবার নতুন করে ক্রিকেটকে ফিরিয়ে আনার জন্য পরিকল্পনা করছে কমনওয়েলথ গেমস ফেডারেশন (সিজিএফ)। আয়োজকরা মনে করছে ক্ষুদ্রতম ফরমেটের ক্রিকেট আয়োজন করলে তা বাড়তি এক উত্তেজনা আনবে পুরো গেমসে। সিজিএফ জানিয়েছে মোট ৭১টি দেশ ও আঞ্চলিক সদস্য ক্রিকেট ফিরিয়ে আনতে সম্মত হয়েছে। মালটায় কমনওয়েলথ সম্মেলন শেষে সিজিএফ প্রধান নির্বাহী ডেভিড গ্রেভেমবার্গ এ বিষয়ে বলেন, ‘আইসিসির সঙ্গে আমাদের চমৎকার আলোচনা হয়েছে। এটি অনেক অনুসন্ধানমূলক বিষয়। আমাদের কার্যক্রমের মধ্যে এখন এটা অনেক বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে। আমরা এটা নিয়ে আইসিসির সঙ্গে কাজ শুরু করেছি। এটা গেমসের সঙ্গে পুরোপুরি সঙ্গতিপূর্ণ ও উত্তেজনাপূর্ণ ফরমেটে আয়োজনের কথা বিবেচনা করা হচ্ছে।’

১৯৯৮ সালের কমনওয়েলথ গেমসে ১৬টি দেশ ক্রিকেট ইভেন্টে অংশ নিয়েছিল। সে সময় বিশ্ব ক্রিকেটে মাত্র দুটি ফরমেট ছিল- ওয়ানডে ও টেস্ট। এ কারণে ৫০ ওভারের ফরমেটে খেলা হয়েছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ অংশ না নিয়ে ক্যারিবিয়ান দ্বীপরাষ্ট্রগুলো এককভাবে ও উত্তর আয়ারল্যান্ড অংশ নিয়েছিল সেবার। ইংল্যান্ড সেবার অংশ নেয়নি ঘরোয়া আসরগুলো চলার কারণে। ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে স্বর্ণ জিতেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে এখন দারুণ সুযোগ আরও উত্তেজনাপূর্ণ আয়োজন করার।