২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফিরলেন প্যাটিনসন ও কোল্টার-নাইল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ঘরের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজের জন্য অস্ট্রেলিয়া তাদের পেস বোলিং বিভাগকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে জেমস প্যাটিনসন ও ন্যাথান কোল্টার-নাইলকে অন্তর্ভুক্ত করেছে। মিশেল জনসনের সাম্প্রতিক অবসর ও মিশেল স্টাকের্র ইনজুরির কারণে অস্ট্রেলিয়ান পেস আক্রমণ হঠাৎ করেই কিছুটা ক্ষতির মুখে পড়ে। তবে আগামী ১০-১৪ ডিসেম্বর হোবার্টে অনুষ্ঠিতব্য সিরিজের প্রথম টেস্টে ১২ জনের দলে এই দুই পেসারকে জায়গা করে দিয়ে অসি নির্বাচকরা প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন অস্ট্রেলিয়ার রিজার্ভ খেলোয়াড়রাও কোন অংশে কম নয়। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ফেব্রুয়ারিতে ফিরতি দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজকে সামনে রেখে নির্বাচক প্যানেল অবশ্য এ্যাডিলেড টেস্টে ম্যাচসেরা জস হ্যাজেলউডের ওপরই বেশি আস্থা রাখতে চাইছেন।

২৫ বছর বয়সী প্যাটিনসন ক্যারিয়ারের ১৩টি টেস্টের সর্বশেষ ম্যাচটি খেলেছিলেন ২০১৪ সালের মার্চে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। কিন্তু তারপর থেকে পিঠ ও হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে তিনি মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন। অন্যদিকে কাঁধের ইনজুরির কারণে ঘরোয়া শেফিল্ড শিল্ডের একটি ম্যাচও না খেলেই টেস্ট দলে ডাক পেয়েছেন ২৮ বছর বয়সী কোল্টার-নাইল। গত সপ্তাহে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার হয়ে তার বোলিংয়ের সুযোগ আসলেও ঘরোয়া দ্বিতীয় একাদশ লীগে আম্পায়ারের সাথে অশোভন আচরণের দায়ে এক ম্যাচ নিষেধাজ্ঞায় পড়ায় সেই সুযোগও হয়নি। ফলে মার্চে শেফিল্ড শিল্ড ক্রিকেটই ছিল তার সর্বশেষ প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট।

এ সম্পর্কে নির্বাচক রড মার্শ বলেছেন, দীর্ঘদিন ধরেই আমাদের দৃষ্টি নাথানের ওপর ছিল। তার পারফর্মেন্স আমাদের অনেক আগেই নজর কেড়েছে। কিন্তু ফাস্ট বোলার হবার সুবাদে ইনজুরির সাথে তাকে লড়াই করতে হয়েছে। তবে আমাদের কাছে মনে হয়েছে দুই মিশেলের অনুপস্থিতিতে আমাদের পেস লাইন-আপটা সমৃদ্ধ করাটা জরুরী। সে কারণেই ১২ জনের দলে তাকে ডাকা হয়েছে। অভিজ্ঞ পিটার সিডলকে দলে রাখা হলেও পুরোপুরি ফিট না হওয়ার কারণে বিকল্প হিসেবে স্কট বোল্যান্ডকে স্ট্যান্ডবাই হিসেবে দলে ডাকা হয়েছে। মার্শ বলেছেন, আশা করছি এ্যাডিলেড টেস্টের পরে কিছুদিনের মধ্যে সবাই সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন। কিন্তু আসন্ন সিরিজে পেস বোলারদের অতিরিক্ত কাজের চাপের দিকটিও আমাদের লক্ষ্য রাখতে হচ্ছে।

সম্প্রতি হ্যাজেলউডকে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে সর্বমোট ১১৯ ওভার বল করতে হয়েছে। যা একজন পেসারের জন্য সত্যিই বেশ কঠিন।’

অস্ট্রেলিয়ান টেস্ট দল ॥ স্টিভেন স্মিথ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, এ্যাডাম ভোগস, শন মার্শ, মিশেল মার্শ, পিটার সিডল, পিটার নেভিল (উইকেটরক্ষক), জোস হ্যাজেলউড, জেমস প্যাটিনসন, নাথান লেয়ন, নাথান কোল্টার-নাইল।