১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাহুবন্ধনে দুই দিগন্তের তারকা

  • মাহমুদা সুবর্ণা;###;জার্মান ফুটবল তারকা বাস্তিয়াইন শোয়েনস্টেইগার বনাম সার্বিয়ান টেনিস তারকা আনা ইভানোভিচ

ক্রীড়াজগতের দুই তারকা। একজন টেনিস কোর্টে। আরেকজন ফুটবলের। একজনের বাড়ি জার্মানি আর আরেকজনের সার্বিয়ায়। একজন ফুটবল মাঠের বাস্তিয়ান শোয়েনস্টেইগার আরেকজন টেনিস কোর্টের আনা ইভানোভিচ। দুই তারকা দুই দেশের হলেও মনের টানে মিলে গেছেন একই বিন্দুতে। দুজনই এখন দারুণ উপভোগ্য সময় পার করছেন। টেনিস কোর্টে গত কয়েক মৌসুম ধরেই নিষ্প্রভ সার্বিয়ান তারকা ইভানোভিচ। এই মৌসুমেও তার ব্যতিক্রম নয়। মেজর কোন গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্টের ফাইনাল তো দূরের কথা সেমিফাইনালের বাধাই পেরুতে পারেননি তিনি। তবে কোর্টের লড়াই নিয়ে এখন আর খুব বেশি চিন্তিত নয় ইভানোভিচ। বরং বয়ফ্রেন্ড শোয়েনস্টেইগারের সঙ্গেই যেন সময় কাটাতে বেশি উপভোগ করছেন তিনি। বর্তমানে জার্মানির বিশ্বকাপজয়ী তারকা শোয়েনস্টেইগারের সঙ্গে ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার শহরেই অবস্থান করছেন ইভানোভিচ।

ঘটনার সূত্রপাত অবশ্য গত বছর। সেপ্টেম্বরে হাতে-হাত রেখে নিউইয়র্কের রাস্তায় আনা ইভানোভিচ আর বাস্তিয়ান শোয়েনস্টেইগারকে হাঁটতে দেখা যায়। আর সেই ছবি প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই তাদের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জনের ডালপালা মেলতে শুরু করে। এরপর একের পর এক চমক দেখা যায় তাদের সম্পর্কে। তবে বড় চমকটা উপহার দেন জার্মান ফুটবলার নিজেই। ইভানোভিচের ২৭তম জন্মদিনে হাজির হয়ে যান তিনি। ইভানোভিচের দেয়া পার্টিতে তার সাবেক ক্লাব বেয়ার্ন মিউনিখের সতীর্থদেরকেও নিয়ে হাজির হয়েছিলেন শোয়েনস্টেইগার। শুধু তাই নয়, নিজের ফুটবল জুতোয়, প্রেমিকা আনা ইভানোভিচের দেশের পতাকাও লাগিয়ে ফেলেন জার্মান তারকা। এরপর সঙ্গিনীকে নিয়েই জার্মানিতে ফিরেন শোয়েনস্টোইগার।

অর্ধযুগেরও বেশি সময় আগে ক্যারিয়ারের প্রথম এবং একমাত্র গ্র্যান্ডসøাম জেতা ইভানোভিচকে নিয়ে প্রতিবেদনে প্রকাশিত হয় যে, শোয়েনস্টেইগারকে নাকি বিয়েও করে ফেলেছেন তিনি। তবে সেই খবরের সত্যতা মিলেনি এখনও। আরেকটি প্রতিবেদনে উঠে আসা খবরে বলা হয়, গত জুলাইয়েই বাগদান হয়ে গেছে তাদের। আর বিয়ে করবেন ডিসেম্বর মাসে। ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টারে দুই জনের বিয়ে হবে। তবে এই ভাবী দম্পতি, চাইছেন না গির্জায় বিয়ে করতে। চান, একটু অন্যভাবে দিনটা সেজে উঠুক। তাই এখন থেকেই ওই গুরুত্বপূর্ণ দিনের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন দু’জনে। ম্যানচেস্টারে বিয়ের অনুষ্ঠানের পর, বেলগ্রেড এবং মিউনিখে আরও দুই দফায় দুটি অনুষ্ঠান হবে বলে প্রতিবেদনের দাবি। সেখানে আরও বলা হয় বড়দিনের কাছাকাছি সময়েই বিয়েটা হবে। তবে যাঁদের বিয়ে নিয়ে এত কথা, এত আলোচনা, তাঁদের মুখ বন্ধ। ব্যক্তিগত জীবনে গোপনীয়তা বজায় রাখতে চান দুই জনই।

তবে টেনিস কোর্ট আর ফুটবল মাঠের এই দুই তারকার দুজনই আগে সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন। সার্বিয়ান টেনিস তারকা ইভানোভিচের সম্পর্ক ছিল ইভান পাউনিকের সঙ্গে। কিন্তু ২০১৩ সালের শেষ দিকেই সেই সম্পর্কের ইতি টানেন বিশ্ব টেনিসের অন্যতম সেরা তারকা ইভানোভিচ। এদিকে জার্মান মডেল সারা ব্র্যান্ডনার সঙ্গে প্রেমে মজেছিলেন বাস্তিয়ান শোয়েনস্টেইগারও। সারা ব্র্যান্ডনার সঙ্গে শোয়েনস্টেইগারের প্রথম দেখা হয় ২০০৭ সালে। মিউনিখে শপিং করতে গিয়ে। এর পর আবারও দু’জনকে ইবিজায় ছুটি কাটাতে দেখা যায়। আর শোয়েনস্টেইগার-সারার সম্পর্কের শুরু নাকি সেখান থেকেই। কিন্তু সাত বছরের সেই সম্পর্ক আচমকাই ভাঙ্গনের মুখে পড়ে গত বছর। মূলত আনা ইভানোভিচের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা বেড়ে যাওয়ার কারণেই আগের সম্পর্কের বিচ্ছেদ ঘটে। তবে তাদের সম্পর্কটা এখন খুবই ভাল কাটছে। শোয়েইনির সঙ্গে ইভানোভিচের জুটিটা শেষ পর্যন্ত কেমন জমে সেটা সময়ই বলবে।

টেনিস কোর্টে বর্তমান সময়টা ইভানোভিচের খারাপ গেলেও শুরুটা করেছিলেন দারুণভাবে। সেই ২০০৮ সালের ৫ জুন রাশিয়ার দিনারা সাফিনাকে হারিয়ে প্রথম সার্বিয়ান মেয়ে হিসেবে জিতেছিলেন ফরাসী ওপেনের শিরোপা। সেই বছরের অক্টোবরের পর আর কোন একক শিরোপা জেতা হয়নি ইভানোভিচের। তখন থেকেই শিরোপা ক্ষুধায় ভুগতে থাকা এ সার্বিয়ান নিজেকে ফিরে পেতে লড়াই করে যাচ্ছেন নিয়মিতই। ফরাসী ওপেনের সাবেক চ্যাম্পিয়ন ইভানোভিচ বর্তমানে তার পারফরম্যান্স সম্পর্কে বলেন, ‘আমি নিজেকে ফিরে পেতে লড়াই করে যাচ্ছি।’

ফ্রেঞ্চ ওপেন জয়ের পর ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের কারণে বিশ্ব টেনিস র‌্যাংকিংয়ের এক নাম্বারেও উঠে এসেছিলেন আনা ইভানোভিচ। কিন্তু তা আর ধরে রাখতে পারেননি তিনি। তবে এই মৌসুমে নিষ্প্রভ থাকা সার্বিয়ান এই টেনিস তারকা ২০১৬ সালটা শুরু করতে চান দারুণভাবে। এ বিষয়ে নতুন বছর সম্পর্কে আনা ইভানোভিচ বলেন, ‘প্রথমত, আমি এ বছর ধারাবাহিকভাবে সাফল্য পেতে চাই। কিছু টুর্নামেন্টে গত বছরে আমার পারফরম্যান্স একেবারে অসাধারণ ছিল, আবার কোনোটাতে নিতান্তই সাধারণ মানের।

এবার আমি সে অর্জন ও ব্যর্থতার ব্যবধান কমাতে চাই। কোর্টে নিয়মিত সফল হওয়াটাই এখন আমার মূল লক্ষ্য। তবে এর চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ হলো, আমার খেলার মান ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি করা এবং অতীতের ভুলগুলো থেকে ভবিষ্যতের জন্য শিক্ষা নেয়া- এটাই আপাতত করতে চাই।’

এদিকে বাস্তিয়ান শোয়েনস্টেইগারের সময়টা বেশ ভালই কাটছে। শনিবার ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচেও গোলের দেখা পেয়েছেন তিনি। চলতি মৌসুমে দুর্দান্তভাবে খেলতে থাকা লিচেস্টার সিটি প্রথমে গোল করে এগিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু দারুণ এক গোল করে দলকে সমতায় ফেরান জার্মান তারকা শোয়েনস্টেইগারই। গত দুটি মৌসুমে একেবারেই বাজেভাবে কেটেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের। তবে শোয়েনস্টেইগারের ম্যানইউ সেই সঙ্কট থেকে বেরিয়ে এসেছে। বর্তমানে শীর্ষ তিনে অবস্থান করছে ম্যানইউ।