২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘ট্রাস্ট আজিয়াটা কোম্পানি’ গঠনে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আপত্তি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ মোবাইল ব্যাংকিং ও এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রম ও কার্ড সেবা পরিচালনার জন্য ‘ট্রাস্ট আজিয়াটা ডিজিটাল কোম্পানি’ নামের একটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান গঠন করতে চায় বেসরকারী খাতের ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড। যেখানে ৫ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধনের ৫১ শতাংশ প্রদান করবে ব্যাংক ও ৪৯ শতাংশ প্রদান করবে মালেয়শিয়া ভিত্তিক কোম্পানি অজিয়াটা গ্রুপ। তবে মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনায় এ ধরনের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান ট্রাস্ট ব্যাংক করতে পারে না বলে মনে করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

জানা যায়, মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান করার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে ট্রাস্ট ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ। তবে মোবাইল ফোন অপারেটর হিসেবে কার্যরত কোন প্রতিষ্ঠান মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান গঠন করতে পারে না। আজিয়াটা গ্রুপের একটি মোবাইল ফোন অপারেটর রবি বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এর ফলে ট্রাস্ট ব্যাংক এভাবে সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠন করতে পারে না বলে মনে করেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেম বিভাগের মহাব্যবস্থাপক কে এম আব্দুল ওয়াদুদ। তিনি বলেন, সাবসিডিয়ারি গঠনের প্রক্রিয়া ঠিক নয়। তারা এ ধরনের প্রতিষ্ঠান করতে পারে না। এটা আইনসম্মত নয় বলে তিনি জানান।

গত ২৫ নবেম্বর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে বলা হয়, পুঁজিবাজারে নিবন্ধিত ট্রাস্ট ব্যাংক ও মালয়েশিয়াভিত্তিক আজিয়াটা গ্রুপের সঙ্গে তারা বাংলাদেশে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস, এজেন্ট ব্যাংকিং এবং কার্ড সেবা চালু করতে ‘ট্রাস্ট আজিয়াটা ডিজিটাল কোম্পানি’ নামে একটি সাবসিডিয়ারি গঠন করবে। এতে বলা হয়, প্রস্তাবিত কোম্পানির অথরাইজড ক্যাপিটাল হবে ৫ কোটি। এখানে ট্রাস্ট ব্যাংকের মালিকানা থাকবে ৫১ ভাগ। ঘোষণায় তারা আরও জানায় ট্রাস্ট ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ সাবসিডিয়ারি গঠনের অনুমোদন দিয়েছে। তারা শীঘ্রই এ সংক্রান্ত চুক্তি করবে আজিয়াটা গ্রুপের সঙ্গে। নিয়ন্ত্রণ সংস্থার অনুমোদন সাপেক্ষে ৩ মাসের মধ্যে কার্জক্রম শুরু করবে তারা। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আপত্তির মুখে নতুন করে চিন্তা করতে হচ্ছে ব্যাংকটিকে। ট্রাস্ট ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইশতিয়াক আহমেদ চৌধুরী জানান, আমরা ৩ মাসের মধ্যে কার্যক্রম শুরু করার কথা বলেছিলাম। কিন্তু এখন আরও একটু সময় নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে আবেদন করব। কারণ আমাদের মনে হয়েছে মার্কেট গবেষণার জন্য আমাদের আরও কাজ করা প্রয়োজন। আর পর্ষদ অনুমোদ দিলেও আমরা আজিয়াটা গ্রুপের সঙ্গে এখনও চুক্তি করিনি। আমরা তো নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনের আগে কোন চুক্তি করতে পারি না। নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন পেলেই তা করব। তবে স্টক একচেঞ্জে ঘোষণা করার সময় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলেছিল, বোর্ডের অনুমোদনের পর এখন আমরা আজিয়াটা গ্রুপের সঙ্গে চুক্তি করব। তারপর নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে আবেদন করব।

সম্প্রতি মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস (গঋঝ) প্রদান করার লক্ষ্যে একটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বেসরকারী খাতের ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেডের (ইউসিবিএল)।