১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভারতের ৪৩তম প্রধান বিচারপতি টিএস ঠাকুর

বিচারপতি টিএস ঠাকুর ভারতের ৪৩তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে রাষ্ট্রপতি ভবনে তিনি শপথ নেন। এ সময়ে অন্যদের মধ্যে উপ রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন। এর আগে প্রধান বিচারপতি ছিলেন এইচ এল দাত্তু। বুধবার ছিল তার শেষ কার্যদিবস। খবর এএফপির।

টিএস ঠাকুর ১৯৫২ সালের ৪ জানুয়ারি জম্মু ও কাশ্মীরের রামবন জেলার বাত্রুতে জন্মগ্রহণ করেন। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে তার অবসরে যাওয়ার কথা। ঠাকুর জম্মু ও কাশ্মীরে তার পিতা ডি ডি ঠাকুরের ল চেম্বারে ক্যারিয়ার শুরু করেন। তার পিতা ছিলেন অসম ও অরুণাচল প্রদেশের সাবেক রাজ্যপাল। চলতি বছরের জানুয়ারিতে ইন্ডিয়ার প্রিমিয়ার লীগের স্পট ফিক্সিং ও ব্যাটিং নিয়ে তার বেঞ্চের দেয়া রায়ের কারণে ভারত ক্রিকেট প্রশাসন দুর্নীতিমুক্ত হয়।

প্রকাশিত হলো না ‘দ্য হিন্দু’

তামিলনাড়ুর অবিরাম বৃষ্টি পথ আটকে দিল সংবাদপত্রেরও। ভারতের ১৩৭ বছর পুরনো সংবাদপত্র ‘দ্য হিন্দু’ প্রকাশিত হয়নি বুধবার। ১৮৭৮ সালে পথচলা শুরু হয়েছিল হিন্দুর। ছুটির দিন ছাড়া অন্য কোন কারণে কখনও বন্ধ হয়নি এটি। এই প্রথম এমন ঘটনা ঘটল বলে জানিয়েছেন এর প্রকাশক এন মুরলী। -ওয়ান ইন্ডিয়া

ওয়াই-ফাই এ এ্যালার্জি

বিশ্বায়নের যুগে ওয়াই-ফাইয়ের জন্য প্রাণ গেল জেনা ফ্রাই নামে ব্রিটেনের এক কিশোরীর। ২০১২ সাল থেকে ‘ইলেক্ট্রো-হাইপারসেনসিভিটি’ এ্যালার্জিতে ভুগছিল জেনা। ওয়াই-ফাইয়ের কাছাকাছি গেলেই তার শারীরিক ও মানসিক অসুস্থতা দেখা দিত। তার এই অসুস্থতার কারণে তার বাড়ি থেকেও সরিয়ে দেয়া হয়েছিল সব ধরনের ইলেক্ট্রনিক্স যন্ত্রপাতি। স্কুলে জানানো হয়েছিল। কিন্তু স্কুল কোন ব্যবস্থা নেয়নি। অবশেষে চরম যন্ত্রণায় ভুগে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় জেনা। এই মৃত্যুর জন্য ওয়াই-ফাইকে দায়ী করে তার পরিবার। -ওয়েবসাইট