২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাইবান্ধায় ৩০ বধ্যভূমির সন্ধান

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাক হানাদার বাহিনী গাইবান্ধার বিভিন্ন স্থানে পৈশাচিক নির্যাতন চালিয়ে অসংখ্য মানুষ হত্যা করে। গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে। সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া লোকোশেড, সুজাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ, দলদলিয়াসহ অন্যান্য বধ্যভূমি সংরক্ষণেরও কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। সদর উপজেলার বল্লমঝাড় ইউনিয়নের নান্দিনা গ্রামে পাকবাহিনীর সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে শহীদ ৬ মুক্তিযোদ্ধার করবস্থান সংরক্ষণ হয়নি।

বধ্যভূমি সংরক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক জিএম চৌধুরী মিঠু জানান, এসব বধ্যভূমি সংরক্ষণে রাষ্ট্রীয়ভাবে উদ্যোগ নেয়া না হলে কালের বিবর্তনে একদিন হারিয়ে যাবে। অবিলম্বে সেসব স্থানে স্মৃতিসৌধ স্থাপন করা প্রয়োজন। তা না হলে এমন এক সময় হয়ত আসবে যখন কেউ শহীদের স্মরণ করতে আসবে না।

Ñআবু জাফর সাবু, গাইবান্ধা থেকে