২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ পৌর নির্বাচনে বিভিন্ন এলাকায় বড় দুই দলে দেখা গেছে বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে বৃহস্পতিবার শেষ দিনে তারা মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতাদের।

রাজশাহী ॥ পৌরসভা নির্বাচনে এখন রাজশাহীতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি। রাজশাহীর ১৩ পৌরসভার মধ্যে ৮টিতে আওয়ামী লীগের ও ১১টিতে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তবে জেলার কাঁকনহাট ও কেশরহাট পৌরসভায় কোন দলের বিদ্রোহী প্রার্থী নেন।

পুঠিয়া পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি। সেখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিএম হিরা বাচ্চু। একই পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী আসাদুল হক আসাদ। তার বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন হাসিবুল ইসলাম ও সাইফুল ইসলাম।

তাহেরপুর পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী আবু নাঈম শামসুর রহমান মিন্টু বিপরীতে স্বতন্ত্র হিসেবে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী পৌরসভা ছাত্রদলের সভাপতি এসএম আরিফুল ইসলাম আরিফ। ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হলেও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র আব্দুর রাজ্জাক বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র হিসেবে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন পৌরসভা যুবদলের সভাপতি শাহীনুর ইসলাম শাহীন।

চারঘাটে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী নার্গিস খাতুন হলেও স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বিপ্লব। অপরদিকে, বিএনপি মনোনীত জাকির হোসেন বিকুলের বিপক্ষে স্বতন্ত্র হিসেবে পৌর বিএনপির সভাপতি কায়েমুদ্দিন।

মু-ুমালা পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম রাব্বানী। সেখানে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আহসানুল হক স্বপন, আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক লুৎফর রহমান। এখানে বিএনপি মনোনীত ফিরোজ কবীর প্রার্থী হলেও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী পৌর সভাপতি মোজাম্মেল হক মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

তানোর পৌরসভায় বিএনপি মনোনীত মিজানুর রহমান মিজানের বিরুদ্ধে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন পৌর বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান মেয়র ফিরোজ সরকার।

আড়ানী পৌরসভায় আওয়ামী লীগ থেকে মোক্তার হোসেন মনোনয়ন দেয়া হলেও মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি মতিউর রহমান মতি ও আওয়ামী লীগ নেতা মাফুজুর রহমান কলিন্স। অপরদিকে, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী তোজাম্মেল হক। সেখানে বিদ্রোহী হিসেবে বর্তমান মেয়র নজরুল ইসলাম মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

দুর্গাপুরে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন। সেখানে আওয়ামী লীগ নেতা হাসানুজ্জামান সান্টু মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। অপরদিকে, বিএনপি মনোনীত সাইদুর রহমান মুন্টু। তার বিপক্ষে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও বিএনপির সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল উদ্দিন।

গোদাগাড়ীতে বিএনপি মনোনীত আনোয়ারুল ইসলামের বিপক্ষে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন বিএনপি নেতা গোলাম কিবরিয়া রুলু। কাটাখালিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত আব্বাস আলী। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন উপজেলার সহ-সভাপতি আবু সামা, আওয়ামী লীগ নেতা মোতাহার হোসেন, জহুরুল ইসলাম, মুঞ্জুর রহমান। অপরদিকে, বিএনপি মনোনীত মাসুদ রানার বিপক্ষে বিদ্রোহী হয়েছেন পৌর বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম। নওহাটায় আওয়ামী লীগ মনোনীত আবদুল বারী খান। তার বিপক্ষে বিদ্রেহী হয়েছেন পৌর যুবলীগের সভাপতি হাফিজুর রহমান হাফিজ ও আফজাল হোসেন বাবলু। অপরদিকে, বিএনপি মনোনীত শেখ মকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন পৌর বিএনপির সভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিক, কাউসার আলী।

দিনাজপুর ॥ দিনাজপুরের ৪টি পৌরসভা বীরগঞ্জ, ফুলবাড়ী, বিরামপুর ও হাকিমপুরে মেয়র পদে ২২ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। ক্ষমতাসীন দলের মন্ত্রীর ভাইসহ ৪টি পৌরসভায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি। বীরগঞ্জ পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী হলেন আওয়ামী লীগের মোশাররফ হোসেন বাবুল, বিএনপির আমিরুল বাহার, জাতীয় পার্টির দেলোয়ার হোসেন আবু, জামায়াত সমর্থিত বর্তমান মেয়র স্বতন্ত্র প্রার্থী মওলানা মোঃ হানিফ, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোকসেদ আলী মিয়া, বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আসাদুল ইসলাম দুলাল, জাতীয় পার্টির বিদ্রোহী প্রার্থী রশিদুল ইসলাম এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম।

ফুলবাড়ী পৌরসভায় মেয়র পদে ৬ প্রার্থী হলেনÑ আওয়ামী লীগের শাহজাহান আলী সরকার পুতু, বিএনপির সাহাজুল ইসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টির সাইফুল ইসলাম জুয়েল, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানের ছোট ভাই খাজা মইনউদ্দীন, স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম নুরুজ্জামান এবং বর্তমান মেয়র মর্তুজা সরকার মানিক। বিরামপুর পৌরসভায় ৪ মেয়র প্রার্থী হলেনÑ আওয়ামী লীগের অধ্যাপক আক্কাস আলী, বিএনপির বর্তমান মেয়র আজাদুল ইসলাম আজাদ, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী লিয়াকত আলী টুটুল এবং বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী হুমায়ুন কবির। হাকিমপুর পৌরসভায় ৪ মেয়র প্রার্থী হলেনÑ আওয়ামী লীগের এসএম জামিল হোসেন চলন্ত, বিএনপির বর্তমান মেয়র সাখাওয়াত হোসেন শিল্পী, জাতীয় পার্টির সুরুজ আলী শেখ এবং জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী সুমন খন্দকার।

যশোর ॥ যশোরের ৫টি পৌরসভায় স্বতন্ত্র হিসেবে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। পাশাপাশি ২টি পৌরসভায় বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরাও মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। সাবেক পৌর চেয়ারম্যান এসএম কামরুজ্জামান চন্নু, চৌগাছা পৌরসভায় এসএম সাইফুর রহমান বাবুল, বাঘারপাড়ায় পৌরসভায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুর রউফ, মণিরামপুরে পৌরসভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জিএম মজিদ, নওয়াপাড়া পৌরসভায় ফারুক হোসেন ও সাবেক পৌর চেয়ারম্যান সরদার ওলিয়ার রহমান। অপরদিকে, বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেনÑ বাঘারপাড়া পৌরসভায় আবু তাহের সিদ্দিকী ও নওয়াপাড়া পৌরসভায় মশিয়ার রহমান।