২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অপেক্ষা এবার শেষ চমকের

অপেক্ষা এবার শেষ চমকের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ঢাকায় প্রথম পর্বই আকর্ষণীয় করে তুলেছিল এবার বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) টি২০ ক্রিকেটের তৃতীয় আসরকে। অংশগ্রহণকারী ৬ দলের মধ্যে চিটাগাং ভাইকিংস ও সিলেট সুপারস্টারস ছাড়া বাকিদের মধ্যে হয়েছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। শীর্ষস্থান নিয়ে মাশরাফি বিন মর্তুজার নেতৃত্বাধীন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স শেষ করেছিল। মাঝে চট্টগ্রাম পর্বের চারদিনের লড়াই শেষেও সেই শীর্ষ অবস্থানটা ধরে রেখেছে তারা। তবে দ্বিতীয় অবস্থানে হয়েছে নড়চড়। চার নম্বর অবস্থান থেকে দুইয়ে উঠে এসেছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের বরিশাল বুলস। আর তিনে নেমে গেছে সাকিব আল হাসানের রংপুর রাইডার্স। ভাগ্য ফেরেনি চিটাগাং ও সিলেটের। আগের মতোই যথাক্রমে তলানির দুটি অবস্থান ৫ ও ৬ নম্বরে আছে দল দুটি। উভয়দলেরই শেষ চারে ওঠার সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে গেছে, কিন্তু একেবারেই শেষ হয়ে যায়নি। সেক্ষেত্রে চিটাগাং ভাইকিংসের বাকি থাকা দুই ম্যাচ এবং সিলেট সুপারস্টারসের বাকি ৪ ম্যাচেই জিততে হবে। হারতে হবে চারে থাকা কুমার সাঙ্গাকারার ঢাকা ডায়নামাইটস ও রংপুর রাইডার্সের। তাই শেষ চমকের অপেক্ষা এবার। রবিবার থেকে চলতি বিপিএলে ঢাকায় প্রাথমিক রাউন্ডের ফিরতি পর্ব শুরু। ৫ দিনের খেলা শেষেই নিশ্চিত হয়ে যাবে কোন চার দল গ্রুপ পর্ব পেরিয়ে যাবে সেটা। তাই এখন শেষ চমকের অপেক্ষা।

চট্টগ্রাম পর্বেই সব দল তাদের বিদেশী রিক্রুট ক্রিকেটারদের অনেককেই দলে পেয়েছে। যোগ হয়েছেন শহীদ আফ্রিদি, আহমেদ শেহজাদ, শোয়েব মালিক, উমর আকমল ও সোহেল তানভীরদের মতো তারকারা। ঢাকায় তৃতীয় ও শেষ পর্বে আরও যোগ হচ্ছেন ক্রিস গেইলের মতো টি২০ ক্রিকেটের অন্যতম বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান। তাই আরও জমজমাট একটি লড়াই শুরু হবে দলগুলোর মধ্যে পরস্পরকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। চট্টগ্রাম পর্বে নামার আগে মাশরাফির কুমিল্লা ৪ ম্যাচে তিন জয়ে শীর্ষস্থান নিয়ে শেষ করেছিল। চট্টগ্রামে আরও তিন ম্যাচ খেলে একটি পরাজয় দেখলেও বাকি দুটিতে জিতে ৭ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান অটুট রেখেছে দলটি। তবে এক ম্যাচ কম খেলে সমান পয়েন্ট নিয়ে কুমিল্লার ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছে বরিশাল বুলস। তারা মাত্র একটি ম্যাচে হেরেছে। ঢাকা পর্বে প্রথম থেকেই বরিশাল আরও শক্তিধর হয়ে উঠবে। কারণ গেইল শুক্রবারই ঢাকায় পা রেখেছেন এ ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে খেলার জন্য। ৬ ম্যাচে ৫ জয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে রানরেটে পিছিয়ে থাকার কারণে দুইয়ে অবস্থান দলটির। তবে রবিবার থেকে শুরু হতে যাওয়া ঢাকায় বিপিএলের তৃতীয় পর্বে উত্থান-পতন হবে এটা প্রায় নিশ্চিত। কারণ শেষ সময়ে সব দলই আপ্রাণ চেষ্টা করবে ওপরে ওঠার।

ঢাকায় প্রথম পর্বে জয়শূন্য ছিল মুশফিকুর রহীমের দল সিলেট সুপারস্টারস। ৪ ম্যাচেই হেরেছিল তারা। তবে চট্টগ্রামে গিয়ে প্রথম জয়ের স্বাদ নিয়েছে দলটি। যদিও অবস্থানের নড়চড় হয়নি অন্য আরেকটি ম্যাচে হেরে। তাদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে এবার ঢাকার ফিরতি পর্বে। কারণ শেষ চার নিশ্চিত করতে হলে সব ম্যাচ শুধু জিতলেই চলবে না, প্রতিপক্ষদেরও পরাজয় কামনা করতে হবে। কারণ সর্বনিম্ন ২ পয়েন্ট তাদের ৬ ম্যাচের ৫টিতেই পরাজয় দেখার কারণে। তবে ঢাকা পর্বের চেয়ে চট্টগ্রামে পবে সুপারস্টারসের উন্নতি ঘটেছে। দলে যোগ হয়েছেন ‘বুম বুম’ আফ্রিদি। আবার দলে যোগ হবেন ইংলিশ পেসার ক্রিস জর্দান। তাই এগিয়ে যাওয়ার দারুণ সুযোগ রয়েছে দলটির পেছনের ব্যর্থতা ভুলে। অপরদল চিটাগাং ভাইকিংস নিজেদের মাটিতে গিয়েও ঘুরে দাঁড়াতে ব্যর্থ হয়েছে। চট্টগ্রাম পর্বে সর্বাধিক ৪ ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছে দলটি। কিন্তু ঢাকায় প্রথম পর্বে যে অবস্থানে ছিল ঠিক সেই তিমিরেই আছে তারা। প্রথম পর্বে তামিম ইকবালের দল ৪ ম্যাচে একটি জয় পেয়েছিল, চট্টগ্রাম পর্বেও সমান ম্যাচ খেলে ওই একটি জয় পেয়েছে তারা। আর মাত্র দুটি ম্যাচ বাকি তাদের। এই দুই ম্যাচেই জিততে হবে তাদের শেষ চারে ওঠার ক্ষীণ আশা জিইয়ে রাখার জন্য। সবচেয়ে কম ৬টি করে ম্যাচ খেলেছে বরিশাল ও ঢাকা। এখনও চারটি করে ম্যাচ বাকি উভয়দলের। তাই শীর্ষস্থানে ওঠার দারুণ সুযোগ এখনও উন্মুক্ত আছে এ দুটি দলেরই। নিজ শহর ঢাকায় ৪ ম্যাচে তিন জয় তুলে নিতে পারলেও চট্টগ্রাম পর্বে দুই ম্যাচ খেলেই পরাজিত হয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস। এবার সে ব্যর্থতা ঘোচানোর লড়াই তাদের তৃতীয় পর্বে। সবমিলিয়ে আরও আকর্ষণীয় ও হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের মধ্যে দিয়ে ঢাকায় চলতি বিপিএলের ফিরতি পর্বে অপেক্ষা করছে আরও চমক।