২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দরজা খুলছে আমিরের

দরজা খুলছে আমিরের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইঙ্গিতটা আগে থেকেই ছিল, সঙ্গে বিতর্ক। যা ঘিরে দানা বাঁধছিল একটি প্রশ্নÑ সহসা পাকিস্তান জাতীয় দলে ফেরান হবে কলঙ্কিত নায়ক মোহাম্মদ আমিরকে? বয়স বিবেচনায় সহানুভূতি প্রকাশ করেছিল খোদ পাকিস্তান বোর্ড (পিসিবি)। কিন্তু তাতে বগড়া বাধায় বর্তমানরা। শহীদ আফ্রিদি-মোহাম্মদ হাফিজের মতো তুখোড় তারকা তাকে ফেরানর বিপক্ষে! তাদের যুক্তি, আলোচিত স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়া ক্রিকেটারকে ফেরালে হিতে-বিপরীত হতে পারে, নষ্ট হতে পারে ড্রেসিং রুমের পরিবেশ। কিন্তু ফেরার পর ঘরোয়া ক্রিকেটে দুরন্ত বোলিং করা আমির চলমান বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগেও (বিপিএল) ঝলক দেখিয়ে চলেছেন। ফলে তার হয়ে কথা বললেন খোদ পিসিবির চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান।

‘আমার ধারণা বল হাতে আমির যে পারফর্মেন্স দেখাচ্ছে, তাতে পাকিস্তান দলে সুযোগ সে পেতেই পারে। তার আগে অবশ্য ওর সঙ্গে কথা বলতে হবে, দলে ফিরতে চাইলে কী ধরনের আচরণ করা উচিত, সেটি ওকে বোঝাতে হবে। তবে শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্তটা নির্বাচকদের।’ ২০১০ সালে ইংল্যান্ড সফরে লর্ডস টেস্টে আলোচিত সেই স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়ে তৎকালীন পাকিস্তান অধিনায়ক সালমান বাট, দুই পেসার মোহাম্মদা আসিফ ও মোহাম্মদ আমির। দোষ প্রমাণিত হওয়ায় পাঁচ বছরের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন আমির। জেলও খাটতে হয় তাদের। বয়স কম হওয়ায় (তখন ১৮ বছর) কিশোর সংশোধনাগারে কাটাতে হয় আমিরকে। গত সেপ্টেম্বরে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ঘরোয়া ক্রিকেট দিয়ে আবার খেলায় ফেরেন। যেনতেন ফেরা নয়, বল হাতে আগুনের গোলা ছড়াচ্ছে তিনি। যেন নিষেধাজ্ঞার সময়টায় আরও তেতে উঠেছেন।

পাকিস্তানের ঘরোয়া কায়েদ-ই-আযম ট্রফির বাছাইপর্ব ও মূল পর্ব মিলিয়ে নিয়েছেন ৫০ উইকেট। সেই ধারা অব্যাহত বিপিএলে। চিটাগাং ভাইকিংসের হয়ে ১১ উইকেটÑ এখন পর্যন্ত আসরে যা যৌথভাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শিকারের রেকর্ড। সেরা ৪/৩০। ওভারপ্রতি রান দিয়েছেন ৫.৭১ করে। আমিরের দুরন্ত পারফর্মেন্স পিসিবি কর্তাদের নড়েচড়ে বসতে বাধ্য করেছে। সমস্যা হচ্ছে পাকিস্তান চাইলেও গুরুত্বপূর্ণ অনেক খেলোয়াড়ই তাকে সতীর্থ হিসেবে মেনে নিতে রাজি নন! কদিন আগে আমিরের সঙ্গে ড্রেসিং রুম ভাগাভাগি করতে হবে বলে চিটাগাং ভাইকিংসের মোটা অঙ্কের প্রস্তাব পর্যন্ত ফিরিয়ে দেন হাফিজ! টি২০ অধিনায়ক আফ্রিদি পিসিবিকে সতর্ক করে দিয়েছেন। বিষয়টা পিসিবির নজর এড়ায়নি। এ প্রসঙ্গে বস শাহরিয়ার বলেন, ‘এ জন্যই আমাদের সবাইকে একসঙ্গে বসতে হবে। যেখানে নির্বাচক, ম্যানেজমেন্ট এমন কি সিনিয়র খেলোয়াড়রাও থাকতে পারে।’

নির্বাচিত সংবাদ