২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আইএসের আদর্শ সমাজের গভীরে ছড়িয়ে পড়ছে

  • লাইব্রেরি অব কংগ্রেসে টনি ব্লেয়ারের হুঁশিয়ারি

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার বলেছেন, ‘ইসলামিক স্টেট বা আইএসের আদর্শ সমাজের গভীরে ছড়িয়ে পড়ছে।’ সিরিয়ায় আইএসের অবস্থানের ওপর চলমান মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক অভিযানে অংশগ্রহণের পক্ষে ব্রিটেনের লেবার পার্টির যেসব সদস্য ভোট দিয়েছেন তিনি তাদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। ব্লেয়ার বলেছেন, মুসলিম সমাজগুলোতে আইএসের আদর্শ অনেকদূর ছড়িয়ে পড়েছে। তাই ইউরোপের মাটিতে বড় ধরনের হামলার আশঙ্কা রয়ে গেছে। খবর গার্ডিয়ান অনলাইনের।

ব্লেয়ার বলেছেন, আইএসের আদর্শকে পরাজিত করা না গেলে গত মাসে প্যারিসে বন্দুক ও বোমা দিয়ে যে ধরনের হামলা হয়েছে তার চেয়েও বড় ধরনের হামলা হতে পারে। তিনি মনে করেন, ইসলাম ও পশ্চিমের মধ্যকার দ্বন্দ্ব একটি আদর্শগত বিষয়। এই আদর্শে বিশ্বাসীর সংখ্যা একদম কম নয়। লাইব্রেরি অব কংগ্রেসে সপ্তম কিসিঞ্জার বক্তৃতা অনুষ্ঠানে ব্লেয়ার এসব মন্তব্য করেন। তার এই বক্তব্য এর আগে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেবিড ক্যামেরনের দেয়া বক্তব্যের সঙ্গে মিল রয়েছে। ক্যামেরনও বলেছিলেন, আইএসের আদর্শ সমাজে ছড়িয়ে যাচ্ছে। চরমপন্থী হামলা রুখতে হলে চরমপন্থী মতাদর্শের রাশ আগে টেনে ধরতে হবে। ব্লেয়ার বলেন, বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে অনেক মুসলিম যেমন আইএসের প্রতি সহানভূতিশীল তেমনি আইএসকে পুরোপুরি প্রত্যাখ্যানকারী মুসলিমের সংখ্যাও কম নয়। তিনি বলেন, অনেক মুসলিম দেশের ব্যাপক জনগোষ্ঠীর মধ্যে এমন ধারণা প্রচলিত রয়েছে যে, যুক্তরাষ্ট্রে ৯/১১ হামলার জন্য দায়ী সিআইএ অথবা ইহুদীরা। অবিশ্বাসীদের মেরে ফেলার জন্য উৎসাহ দিচ্ছেন ও জিহাদে যেতে অনুপ্রাণিত করছেন এমন অনেক ধর্মীয় বক্তা রয়েছেন, টুইটারে যাদের লাখ লাখ ফলোয়ার রয়েছেন...। এ থেকে বোঝা যায় চরমপন্থী মতাদর্শ কিভাবে গভীরে শিকড় ছড়াচ্ছে। এগুলো সমূলে উৎখাত করা এখন আমাদের কর্তব্য। খেলাফত ও মহাপ্রলয়ের ধারণাকে আইএসের আদর্শের দুটি মূল ভিত্তি উল্লেখ করে ব্লেয়ার বলেন, ইসলামের যে ব্যাখ্যা আইএস বুঝেছে সেই মত অনুযায়ী মহাপ্রলয়ের আগে সিরিয়ার দাবিক শহরে (আলেপ্পো থেকে ৪০ কিলোমিটার) খ্রীস্টান ও মুসলিম বাহিনীর মধ্যে লড়াই হবে। এই দৃষ্টিকোণ থেকে পুরনো মুসলিম ভূখ-ে তারা খেলাফত পুনরুদ্ধার করেছে বলে দাবি করছে।

ব্লেয়ার বলেন, পুরো মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চল থেকে আইএসকে মূলোচ্ছেদ করতে হবে। শুধুমাত্র সামরিক শক্তি দিয়ে এ কাজ করা যাবে না। ইসলামপন্থীদের তাদের মতবাদের গভীরে গিয়ে তার মোকাবেলা করতে হবে। চরমপন্থীরা ধর্মীয় বিশ্বাসের যে অবমাননা করছে মধ্যপন্থী মুসলিমদের কাছে তা যথাযথভাবে তুলে ধরার মাধ্যমে উগ্রপন্থীদের নির্মূল করা সম্ভব বলে ব্লেয়ার মনে করেন।