২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আইওয়ার ডেয়ারি ফার্মে বিশ্বে প্রথম শিং ছাড়া গরু

  • ডিএনএ এডিটিংয়ে সাফল্য

গত বসন্তকালে জন্ম নেয়া শিংবিহীন দুটো গরু এখন বেড়ে উঠছে যুক্তরাষ্ট্রের আইওয়ার একটি ডেয়ারি ফার্মে। এ গরু দুটোর বিশেষত্ব হলো জিনগত রূপান্তর ঘটিয়ে এদের শিংবিহীনভাবে জন্মানো হয়েছে। ভবিষ্যতে প্রকৃতির ওপর মানুষের আধিপত্য বিস্তারের ইঙ্গিত দিচ্ছে।

শিং না গজানোয় খামারের অন্যসব গরুর মতো এগুলোর শিং কাটার কোন প্রয়োজন হবে না। নিরাপত্তার জন্য খামারের ষাড়গুলোর শিং কেটে দেয়ার রীতি প্রচলিত রয়েছে। আমেরিকান ভেটেরিনারি মেডিক্যাল এ্যাসোসিয়েশনের মতে শিংকাটা গরুর জন্য একটি বেদনাদায়ক অভিজ্ঞতা।

শিংবিহীন ষাঁড় জন্মানোর জন্য নয়া মার্কিন গবেষণামূলক প্রতিষ্ঠান রিকম্বিনেটিক্সের গবেষকদের প্রচেষ্টা শেষ পর্যন্ত সফল হয়েছে। মাংসের জন্য বিভিন্ন দেশে পালন করা হয় এ্যাঙ্গুস প্রজাতির গরু। এই গরুগুলোর শিং নেই। এই গরুর জিন কপি করে গবেষণাগারে নতুন ধরনের জিন উদ্ভবন করে তা দিয়ে জন্মানো হয়েছে শিংবিহীন গরু। বিজ্ঞানীরা আশা করছেন পরবর্তী প্রজন্মগুলোতে ধারাটি অব্যাহত থাকবে। প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নিতে থাকবে শিংছাড়া গরু।

জিনগত পরিবর্তন ঘটিয়ে প্রাণীদেহের বৈশিষ্ট্য বদলে দেয়া নতুন কিছু নয়। সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা ম্যালেরিয়া প্রতিরোধী মশার উদ্ভাবন করেছেন। মশার কোষ থেকে ম্যালেরিয়ার জীবাণু বাহক ডিএনএ’র অপসারণ ঘটিয়ে জিন রূপান্তরিত মশার উদ্ভাবন করেন তারা। জিন পরিবর্তন ঘটিয়ে প্রাণীর বৈশিষ্ট্য বদলে দিলে ভবিষ্যতে এমন প্রাণী জন্মালে মানুষ বা পরিবেশের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। বিষয়টির নৈতিক বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায়। -ইন্টারন্যাশনাল নিউইয়র্ক টাইমস

প্যারিস হামলায় নতুন দুই সন্দেহভাজনকে খুঁজছে পুলিশ

প্যারিস হামলার পলাতক সন্দেহভাজন সালাহ আবদে সালামকে সহায়তা করার অভিযোগে নতুন দুই সন্দেহভাজনকে খুঁজছে পুলিশ। বেলজিয়ামের সরকারী আইনজীবীদের দফতর থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতির বরাতে শনিবার এ কথা জানানো হয়েছে। খবর বিবিসির।

বিবৃতিতে দুই সন্দেহভাজনকে ‘সশস্ত্র ও বিপজ্জনক’ এবং তারা সেপ্টেম্বরে আবদে সালামকে হাঙ্গেরী ভ্রমণে সহায়তা করেছিলেন বলে সন্দেহ করা হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে। তদন্তকারীরা বলছেন, প্যারিস হামলার রাতে আবদে সালাম সম্ভবত আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীদের স্তাদে দ্য ফ্রঁাঁস স্টেডিয়ামে গাড়ি চালিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন। বেলজীয় পুলিশ জানিয়েছে, সেপ্টেম্বরে হাঙ্গেরী-অস্ট্রিয়া সীমান্তে আবদে সালামকে থামানো হয়েছিল, তখন তার সঙ্গে সুফিয়ান কায়াল এবং সামির বউজিদ নামের ভুয়া পরিচয়পত্রধারী দুজন সঙ্গী ছিলেন। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘কেন্দ্রীয় সরকারী আইন কর্মকর্তাদের দফতর ও তদন্তকারীরা হন্যে হয়ে খুঁজছে এমন দুই নতুন সন্দেহভাজনের খোঁজ করতে জনতার প্রতি আবেদন জানাচ্ছে।’