১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঢাকায় ফেসবুকের দুই উর্ধতন কর্মকর্তা, আজ বৈঠক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ফেসবুকের দুই উর্ধতন কর্মকর্তা এখন ঢাকায়। তারা সরকারের আলোচনার প্রস্তাবে সাড়া দিয়ে শনিবার ঢাকায় এসেছেন। আজ রবিবার সকালে স্বরাষ্ট্র, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের ফেসবুকের ওই দুই কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। মন্ত্রণালয় সূত্র জানিযেছে, বৈঠকে বাংলাদেশের তরফ থেকে এখানে এডমিন বসাতে ও চুক্তি করার বিষয়ে আগ্রহ দেখানো হবে। তবে কিভাবে বাংলাদেশের সমস্যাগুলোর সমাধান করা যায় ওই সব বিষয়ে বৈঠকেই আলোচনা হবে বলে জানিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে ফেসবুকের দুই কর্মকর্তা ঢাকায় এসেছেন। আমাদের সমস্যাগুলো আমরা তাদের জানাব। তারাও বিষয়ে ইতিবাচক বলে আমাদের জানিয়েছে। ফলে ওই বৈঠকে দেশের মানুষের নিরাপত্তার জন্য বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে বলে আমি আশাবাদী। ফেসবুকের মাধ্যমে দেশের শতকরা ৭৩ ভাগ নারী নানাভাবে হয়রানির শিকার হন। তাছাড়া সাইবার অপরাধ বন্ধে ফেসবুকের সঙ্গে একটা চুক্তি জরুরী। আমরা ফেসবুক বন্ধ রাখতে চাই না। কিন্তু যুদ্ধাপরাধী সাইদীর রায়ের পরে ফেসবুকে যে অপপ্রচার চালানো হয়েছে- তাতে কয়েক শ’ মানুষের প্রাণ গেছে। সম্পদ হানি হয়েছে কয়েক শ’ কোটি টাকার। সাকা মুজাহিদের বেলায়ও একই ঘটনা ঘটতে পারতো। যদি ফেসবুক বন্ধ রাখা না হতো। সরকারের নির্দেশে আমরা ফেসবুক বন্ধ রেখেছি। সরকার চাইলে আমরা খুলে দেবো। তিনি মনে করেন, ফেসবুক বন্ধ থাকলে কি এমন ক্ষতি তা আমি বুঝি না। কয়েকটা অনলাইন ব্যবসায়ীদের জন্য ফেসবুক খুলে দেয়ার জন্য আমার ওপর নানাভাবে চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। একটা প্রাণহানি ঘটেনি। এটা কি প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য নয় ? এই কথাটা কেউ বলে না। ফেসবুক বন্ধের জন্য একা তারানা হালিম কেন দায়ী হবে। এখানে আরও কর্তৃপক্ষ আছে। তারা যেটা ভাল মনে করেছে সেটাই করা হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দিয়ে সরকারের পক্ষে চিঠি পাঠায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ। ফেসবুক ব্যবহার করে নারীর প্রতি হয়রানি, ধর্মীয় উসকানির মতো বিষয়গুলো বন্ধে এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৭ নবেম্বর প্রথম ফেসবুকের সঙ্গে চুক্তি করার উদ্যোগ নেয়ার কথা জানান ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। একই দিনে জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে ফেসবুক, ভাইবার, হোয়াটসএ্যাপের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো বন্ধ করে দেয় সরকার। এখন পর্যন্ত এগুলো খুলে দেয়া হয়নি।