২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দিল্লী টেস্টে কোণঠাসা দক্ষিণ আফ্রিকা

  • ভারতের বিশাল লিড

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দিল্লীতে মান রক্ষার শেষ সুযোগটাও হারাতে চলেছে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা। তৃতীয় দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে ১৯০ রান করে এরই মধ্যে ৪০৩ রানের পাহাড়সম লিড নিয়ে নিয়েছে ভারত। প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ছিল ৩৩৪, আর প্রোটিয়ারা গুটিয়ে যায় ১২১ রানে। অতএব নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে অবিশ্বাস্য ব্যাটিং অথবা প্রাকৃতিক দুর্যোগই কেবল হাসিম আমলাদের বাঁচাতে পারে। কারণ দিল্লীর পিচে চতুর্থ বা পঞ্চম দিনে চতুর্থ ইনিংসে এত রান করে জেতা অসম্ভব। সেক্ষেত্রে ইতিহাসটা নতুন করে লিখতে হবে আগেই ২-০তে সিরিজ খোয়ানো দক্ষিণ আফ্রিকাকে। ৩-০তে হারের পথে কার্যত ভারত সফরে টেস্ট সিরিজে বড় লজ্জার মুখে র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল প্রোটিয়ারা! ভারতের ৩৩৪ রানের জবাবে দ্বিতীয় দিনই ১২১ রানে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম ইনিংস গুটিয়ে যায়।

ফলোঅনে পড়ে সফরকারীরা। ওই দিন বাকি ৫ ওভার আর খেলা হয়নি, কাল ফলোঅন না করিয়ে ভারতই দ্বিতীয়বার ব্যাটিং শুরু করে। ২১৩ রানে এগিয়ে থাকা স্বাগতিকদের শুরুটা অবশ্য ভাল ছিল না। স্কোর বোর্ডে ৮ রান যোগ করতে সাজ ঘরে ফেরেন ওপেনার মুরলি বিজয় (৩) ও ওয়ান ডাউনে নামা রোহিত শর্মা (০)। দু’জনকেই ফেরান প্রোটিয়া পেসার মরনে মরকেল। যিনি প্রথম ইনিংসে নিয়েছেন ৫ উইকেট। সময়টা একদমই ভাল যাচ্ছে না ওয়ানডে ইতিহাসের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলা রোহিতের। এ নিয়ে সিরিজের দুই টেস্টে তার স্কোর ২, ২৩, ১ ও ০! ব্যাটিং অর্ডারে ওপরে উঠে এসেও ফল হয়নি। ২১ রানে শিখর ধাওয়ান যখন মরকেলের তৃতীয় শিকার তখন ৩ উইকেটে ভারতের রান ৫৩। চার রানের ব্যবধানে স্পিনার ইমরান তাহির চেতেশ্বর পুজারাকে (২৮) তুলে নিয়ে প্রোটিয়াদের দারুণ কিছুর ইঙ্গিত দেন। কিন্তু ওই পর্যন্তই।স্বাগতিকদের ঘুরে দাঁড়ানো গল্পের শুরুটা এরপরই। যেখানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান সুপার অজিঙ্কা রাহানে। উইকেটের চরিত্র বুঝে অতিথি বোলারদের শাসন করে চলেছেন ভারতের সময়ের সেরা দুই ব্যাটসম্যান। শাসন বলতে চড়াও নয়, ধীরে রান তুলে আমলার মনের ওপর বিরূপ প্রভাব তৈরি করেছেন। ৮১ ওভারে ২.৩৪ গড়ে রান তারই প্রমাণ। তাতেই অবশ্য কাজের কাজটি হয়ে যায়। পঞ্চম উইকেটে ৪৯.৫ ওভারে অবিচ্ছিন্ন ১৩৩ রানের জুটি গড়েছেন কোহলি-রাহানে। ফলশ্রুতিতে লিডটাকে ৪০৩Ñএ তুলে নিয়েছে স্বাগতিকরা। ভারতের পিচে এর জবাব দেয়া যে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে প্রায় অসম্ভব। প্রথম ইনিংসে, এমন কি আগের তিন টেস্টে আমলাদের ব্যাটিং দৈন্যতাই তার প্রমাণ। হাতে দু’দিন সময়। টিকে থেকে ম্যাচ ড্র করাও তাদের পক্ষে অসম্ভব! শীতকাল। আবহাওয়া বৃষ্টির পূর্বাভাস নেই। নাম্বার ওয়ানদের সামনে হয়তো আরও একটি বড় পরাজয় অপেক্ষা করছে! সিরিজে পিচ নিয়ে আলোচনা কম হচ্ছে না। আড়াইদিনে প্রথম টেস্ট জিতে নেয়া ভারত তৃতীয় ম্যাচে সাফল্য পায় তিন দিনে। স্বাগতিক স্পিনারদের ঘূর্ণিবিষে নীল প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানরা। নাগপুরের পিচ নিয়ে অসন্তোষ খোদ আইসিসির।

সে অর্থে এরই মধ্যে চতুর্থ দিনে গড়ানো এই ম্যাচটা ক্রিকেট মোড়লদের মানও বাঁচাবে!

পাক-ভারত সিরিজ হচ্ছে না!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রতিবেশী দুইদেশের মধ্যে কূটনৈতিক পর্যায়ে শীতল সম্পর্ক থাকায় নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকার নিরপেক্ষ ভেন্যুতে পাকিস্তানের বিপক্ষে ক্রিকেট সিরিজ আয়োজনে বিসিসিআই’র প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করতে যাচ্ছে।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্টে বলা হয়, দেশের জনগণের মনোভাব বিবেচনা করে ভারত সরকার দ্বিপক্ষীয় সিরিজ অনুমোদনের পক্ষে নয়।

নির্বাচিত সংবাদ