২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ রানার্সআপ মহিলা টি২০ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে

  • ফাইনালে আয়ারল্যান্ডের কাছে দুই উইকেটে পরাজিত জাহানারারা, ম্যাচ ও সিরিজ সেরা বাংলাদেশের রুমানা আহমেদ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ফাইনাল খেলা খেলে কে না হতে চায় চ্যাম্পিয়ন। শিরোপা জিতলে সবারই আনন্দ ডাবল হয়ে যায়। কিন্তু মহিলা টি২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে সেই স্বাদ পূরণ হল না বাংলাদেশ মহিলা ক্রিকেট দলের। সেমিফাইনালে জিতেই ২০১৬ সালে ভারতে অনুষ্ঠেয় টি২০ বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলা নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। কিন্তু ফাইনাল ম্যাচে গিয়ে চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতার পর ২ উইকেটে আয়ারল্যান্ড মহিলা ক্রিকেট দলের কাছে হার হয়ে যায়। রানার্সআপ হয় বাংলাদেশ।

শ্বাসরুদ্ধকর একটি ম্যাচই হয়েছে। বাংলাদেশের করা ১০৫ রান অতিক্রম করতে গিয়ে দুই বলে জিততে ২ রানের প্রয়োজন থাকে আয়ারল্যান্ডের। হাতে থাকে ২ উইকেট। ১৯.৫ ওভারে ম্যাচ টাই হয়ে যায়। শেষ বলে জিততে ১ রানের প্রয়োজন পড়ে। সেই রান নিয়ে নেয় আইরিশরা। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আনন্দে মাতে। আর বাংলাদেশ ফাইনালের আগে সবকটি ম্যাচ জিতলেও শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে গিয়ে হারের স্বাদ পায়।

অথচ ম্যাচটি জিততে পারত বাংলাদেশও। নিগার সুলতানা ৪১ ও রুমানা আহমেদের অপরাজিত ৩৮ রানে ২০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ১০৫ রান করে বাংলাদেশ। কিয়ারা ম্যাটকেফে ৩ উইকেট নেন। জবাব দিতে নেমে ২ উইকেট করে নেয়া রুমানা ও নাহিদা আক্তারের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ৯৭ রানেই ৮ উইকেট হারায় আয়ারল্যান্ড। তখন জিততে ৮ বলে ৯ রানের প্রয়োজন থাকে। আর কোন উইকেটই নিতে পারল না বাংলাদেশ। সেই সঙ্গে লওরা ডিলানির (২৬*) দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে জয়ই তুলে নেয় আয়ারল্যান্ড। ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১০৬ রান করে জিতে চ্যাম্পিয়ন হয় আইরিশরা। সিসিলিয়া জয়েশ ৩২ রান করেন।

ম্যাচ জয়ের পর সে কি আনন্দ আয়ারল্যান্ড অধিনায়ক ইসোবেল জয়েশের। তা ভাষাতেও প্রকাশ করে দেন। বলেন, ‘অসাধারণ অনুভূতি। আমি সত্যিই আমার দল নিয়ে গর্বিত। অনেক কঠিন কন্ডিশন ছিল। বাংলাদেশ সত্যিই বোলিংয়ে দুর্দান্ত দল। বিশেষ করে সালমা খাতুন যে শেষ ওভারটি করে তাতে অভিজ্ঞতা দেখা গেছে।’ যেখানে ইসোবেল আনন্দিত, সেখানে হেরে হতাশ বাংলাদেশ দলের কোচ জানাক গামাগে। বলেছেন, ‘পরিকল্পনা ছিল আগে ব্যাট করে ১১৫ রান করতে হবে। কিন্তু তা হয়নি। তবে আমাদের বোলাররা অসাধারণ বোলিং করেছে। পুরো টুর্নামেন্টেই বোলিং দাপট দেখা গেছে। হতাশা আছেই। তবে টি২০ বিশ্বকাপে আরও এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা থাকবে। বিশ্বকাপে লক্ষ্য থাকবে কিছু ম্যাচ জিতে নেয়া। এটাও জানা যে, তা হবে খুব চ্যালেঞ্জিং।’ আয়ারল্যান্ড চ্যাম্পিয়ন হলেও টুর্নামেন্ট সেরা কিন্তু বাংলাদেশেরই একজন হয়েছেন। তিনি লেগস্পিনার রুমানা আহমেদ। ১৪ উইকেট নিয়ে এ কৃতিত্ব অর্জন করে রুমানা। বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড টি২০ বিশ্বকাপের টূড়ান্ত পর্বে খেলা আগেই নিশ্চিত করেছে। সেমিফাইনালে জিতেই সেই টিকেট পেয়ে গেছে। এখন দল দুটি মহিলা টি২০ বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, ভারত, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে চূড়ান্ত পর্বে থাকছে। বিশ্বকাপের গ্রুপিং ও সূচী এখনও হয়নি। গ্রুপিং হলেই বোঝা যাবে বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড কোন গ্রুপে খেলবে।

ফাইনাল ম্যাচের আগে বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড দুইদলই সবকটি ম্যাচে জিতেছে। ভারতে অনুষ্ঠেয় আগামী বছর ১১ মার্চ থেকে ৩ এপ্রিলের টি২০ বিশ্বকাপে খেলবে দুইদলই। গ্রুপ পর্বে থাইল্যান্ডকে ৭৩ রানে, স্কটল্যান্ডকে ৮ উইকেটে, পাপুয়া নিউগিনিকে ৪১ রানে হারিয়ে সেমিফাইনালে খেলে বাংলাদেশ। জিম্বাবুইয়েকে ৩১ রানে হারিয়ে ফাইনালে খেলার সঙ্গে বিশ্বকাপেও খেলা নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। আর গ্রুপ পর্বে নেদারল্যান্ডসকে ৮ উইকেটে, চীনকে ২৮ রানে ও জিম্বাবুইয়েকে ৭ উইকেটে হারায় আয়ারল্যান্ড। এরপর সেমিফাইনালে স্কটল্যান্ডকে ৯ উইকেটে হারিয়ে বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে নেয় আইরিশরা। বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড ফাইনালে খেলে। চ্যাম্পিয়ন হয় আয়ারল্যান্ড। রানার্সআপ হয় বাংলাদেশ।

নির্বাচিত সংবাদ