১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হবিগঞ্জে ৫ পৌরসভায় প্রচার তুঙ্গে

  • প্রার্থীরা দ্বারে দ্বারে

নিজস্ব সংবাদদাতা, হবিগঞ্জ, ৫ ডিসেম্বর ॥ আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে হবিগঞ্জের স্ব স্ব এলাকায় প্রচারণা ক্রমেই তুঙ্গে উঠছে। সর্বত্র বিরাজ করছে সাজ সাজ রব। নেতাকর্মী, সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ীরা ভোটারদের বাড়িঘর, দোকানপাট, অফিস-আদালতে উপস্থিত হয়ে নিজ নিজ দলীয় এবং স্বতন্ত্র মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীদের পক্ষে তাদের ব্যক্তিগত, রাজনৈতিক ও সামাজিক অবস্থান তুলে ধরে ভোট প্রার্থনা করছেন। নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের আশঙ্কায় চলছে গোপনে ঘরোয়া-উঠান বৈঠক আর শলাপরামর্শ। এখনও বিরত রয়েছেন প্রকাশ্য সভা-সমাবেশ আর মিছিল থেকে। ইতোমধ্যে পাঁচটি পৌরসভায় মেয়র এবং সংরক্ষিত মহিলা ও সাধারণ কাউন্সিলর পদের সম্ভাব্য প্রার্থীরা তাদের ভোট প্রার্থনায় বিভিন্ন কৌশলে প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন। তবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে মাঠে কাজ অব্যাহত রাখায় শেষ মুহূর্তের অপেক্ষায় দলীয় প্রার্থীরা চিন্তিত। হবিগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এক সময়কার তুখোড় ছাত্রনেতা জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সাবেক অর্থমন্ত্রী এসএএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলার আসামি কারা অন্তরীণ জেলা বিএনপির সেক্রেটারি (বর্তমান বহিষ্কৃত মেয়র) জিকে গউছ, জাপা (এ) মনোনীত প্রার্থী তরুণ উদীয়মান আইনজীবী শিবলী খায়ের, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মনোনীত প্রার্থী আব্দুল কাইয়ূম ও ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টির মনোনীত প্রার্থী আব্দুল কাদির ছাড়াও বিদ্রোহী প্রার্থী (স্বতন্ত্র) হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান, বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী (স্বতন্ত্র) হিসেবে ক্রীড়া সংগঠক পৌর বিএনপির সভাপতি আমিনুর রশীদ এমরান, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি ইসলাম তরফদার তনু মাঠে রয়েছেন। তবে এই বিদ্রোহী প্রার্থীরা দলীয় নির্দেশ অমান্য করে শেষ অবধি তাদের অবস্থান ধরে রাখতে পারবেন কি-না তা নিয়ে সাধারণ ভোটাররা সংশয়ে রয়েছেন। হবিগঞ্জ সদরের শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সমাজসেবক ছালেক মিয়া, বিএনপি প্রার্থী বর্তমান মেয়র ফরিদ আহমেদ অলি ছাড়াও বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের আতাউর রহমান মাসুক এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী উদীয়মান নাট্যব্যক্তিত্ব প্রভাষক জালাল উদ্দিন রুমী, আব্দুল মজিদ, রকিব আহমেদ ও খালেদা বেগম এখন পর্যন্ত মাঠ চষে ভোট প্রার্থনা করছেন। মাধবপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র হিরেন্দ্র লাল সাহা, বিএনপি প্রার্থী হাবিবুর রহমান মানিক তাদের স্ব স্ব দলীয় নেতাকর্মী-সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ীদের নিয়ে ভোটারদের দোয়া কামনা অব্যাহত রেখেছেন। চুনারুঘাট পৌরসভায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাইফুল আলম রুবেল, বিএনপি প্রার্থী বর্তমান মেয়র নাজিম উদ্দিন সামছু ছাড়াও মাঠে ভোট প্রার্থনা করছেন স্বতন্ত্র হিসেবে এসকে ইফতেখারুল গণি ও মীর সাহেব আলী। নবীগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র অধ্যাপক তোফাজ্জল ইসলাম চৌধুরী, বিএনপির প্রার্থী ছাব্বির আহমেদ চৌধুরী ছাড়াও স্বতন্ত্র হিসেবে মাহমুদ চৌধুরী, জাহাঙ্গীর আলম ও জুবায়ের চৌধুরী ভোট প্রার্থনায় তাদের প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। তবে ভোটাররা এবার নাছড়বান্দা। তারা অতীতের মতো বার বার প্রার্থীদের মন গলানো মিথ্যা বুলি শুনতে চায় না।