২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অন্তিম শয়ানে ভাষাসৈনিক তোফাজ্জল হোসেন

অন্তিম শয়ানে ভাষাসৈনিক তোফাজ্জল হোসেন

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ সর্বস্তরের মানুষের ভালবাসায় সিক্ত হলেন প্রয়াত ভাষাসৈনিক, কবি ও সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন। রবিবার সকাল ১১টার দিকে তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আনা হয়। এ সময় মন্ত্রী, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ সমাজের সর্বস্তরের মানুষ তার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানায়।

শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে ভাষাসৈনিকের স্মৃতিচারণ করে তার জীবনের নানা দিক তুলে ধরেন সবাই। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তার মরদেহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে নেয়া হয়। সেখানে জানাজা শেষে তাকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে একুশে পদকপ্রাপ্ত এই প্রবীণ সাংবাদিককে সমাহিত করা হয়।

গত শনিবার বেলা ১২টায় শ্যামলীর নিজ বাসভবনে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন প্রবীণ এই সাংবাদিক ও ভাষাসৈনিক। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। তিনি ৩ ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী, আত্মীয়স্বজন এবং শুভাকাক্সক্ষী রেখে গেছেন।

১৯৩৫ সালের ৯ অক্টোবর কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার তালেশ্বর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মিয়া পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন প্রবীণ সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে কবি ও গীতিকার হিসেবে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন তিনি।

মরহুম তোফাজ্জল হোসেন ছিলেন দৈনিক ভোরের কাগজ ও দেশ টেলিভিশনের পরিচালক এবং জাতীয় কবিতা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কবি তারিক সুজাতের পিতা। সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের ওপর যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন প্রয়াত এই ভাষাসৈনিক। দেশী-বিদেশী বিভিন্ন সংবাদপত্রে দায়িত্ব পালন ছাড়াও তিনি তথ্য অধিদফতরের একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাও ছিলেন। এ ছাড়া তার বহু গবেষণাগ্রন্থও রয়েছে।