১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কয়েক শ’ সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীর খোঁজে এফবিআই

মার্কিন ফেডারেল তদন্ত ব্যুরোর (এফবিআই) হাতে চরমপন্থীদের সহিংসতাবিষয়ক প্রায় এক হাজার মামলা রয়েছে। ব্যুরো সন্ত্রাসী দলগুলোর সঙ্গে সন্দেহজনক সম্পর্ক রয়েছে- এমন কয়েক শ’ লোকের খোঁজ করছে। সংস্থাটি তাদের অন্তত ৬০ জনকে ইসলামিক স্টেটবিষয়ক অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত করেছে।

কিন্তু গোয়েন্দাদের ওই জাল কখনও ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সান বারনারডিনোর গুলিবর্ষণকারীদের কাছেও পৌঁছতে পারেনি। তাদের আধাসামরিক কায়দায় চালানো হামলা ঠেকাতে কর্তৃপক্ষকে ক্ষমতাহীন বলেই মনে হয়। ঘটনা পরম্পরায় কতগুলো উদ্বেগজনক ক্লু ধরা পড়ে। দুই ঘাতক সৈয়দ রিজওয়ান ফারুক (২৮) ও তার স্ত্রী তাশফিন মালিক (২৭) তাদের বাড়িতে এক ক্ষুদ্র অস্ত্রভা-ার গড়ে তুলেছিলেন। একই সময়ে তারা ইসলামিক স্টেটের প্রতি অনুগত হতে থাকেন। ফেসবুকে দেয়া এক ঘোষণায় এ আনুগত্যের বিষয়টি প্রকাশ পায় বলে কর্তৃপক্ষ জানায়। মার্কিন কর্মকর্তারা আরও বলেন, হামলাকারীদের একজন বা উভয়েই এর আগে এমন ব্যক্তিদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিলেন, যাদের চরমপন্থী দৃষ্টিভঙ্গি এফবিআইয়ের নজরদারিতে ছিল। কিন্তু ওই যোগাযোগকে এতই দোষশূন্য বলে বর্ণনা করা হয় যে, ব্যুরো এ নিয়ে আরও তদন্ত চালানোর কোন কারণ দেখেনি। মার্কিন কর্মকর্তারা ও সন্ত্রাস দমন বিশেষজ্ঞরা বলেন, হামলার মিশ্র প্রকৃতি এমন এক হুমকি উদ্ঘাটন করে যে, যা অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর সামর্থ্যকে ক্ষুণœ করতে পারে। ওই হামলায় ইসলামী জঙ্গী এজেন্ডা, কর্মস্থল নিয়ে অভিযোগ থাকার সম্ভাবনা এবং বৈধ উপায়ে অস্ত্র সংগ্রহ- এ তিন উপাদনের মিশ্রণ ঘটেছিল। ডার্ট মাউথ কলেজের অধ্যাপক ড্যানিয়েল বেঞ্জামিন বলেন, হামলার লক্ষ্যস্থল এবং অস্বাভাবিকতার কথা বিবেচনা করলে আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দেবে- এমন কিছু উপাদানের সংমিশ্রণ সেখানে ছিল কিনা তা ভাবতে হবে। তিনি বলেন, মোটিভগুলো এতই সংমিশ্রিত ছিল যে, এতে জড়িত ব্যক্তিদের চরমপন্থী মতবাদ বা সংশ্লিষ্টতা ছিল কিনা তা আসলে স্পষ্ট হয়ে ওঠে না। -ওয়াশিংটন পোস্ট।

তালেবান প্রধান মনসুর জীবিত!

আফগান তালেবান শনিবার মোল্লা আখতার মনসুরের একটি অডিও বিবৃতি প্রকাশ করেছে। এ সপ্তাহের প্রথম দিকে এক বন্দুকযুদ্ধে আখতার মনসুর গুরুতর আহত হয়েছেন বলে খবর প্রকাশিত হওয়ার পর তালেবান দাবি করে আসছে যে তাদের নেতা জীবিত আছেন এখনও। তাদের এ দাবির পক্ষে প্রমাণ উপস্থাপনের জন্য গ্রুপের ওপর চাপ সৃষ্টি হলে বিবৃতিটি প্রকাশ করা হয়।

মনসুরের ভাগ্যের ব্যাপারে কয়েকদিনের অনিশ্চয়তার পর গ্রুপের ওয়েবসাইটে বিবৃতির রেকর্ডিং আপলোড করা হয়। বেশ কিছু রিপোর্টে বলা হয়েছে তালেবান প্রধান মনসুর বেলুচিস্তানের কুচলাকে অন্য এক তালেবান কমান্ডারের বাড়িতে মঙ্গলবার শেষের দিকে এক বন্দুকযুদ্ধে মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন। -এক্সপ্রেস ট্রিবিউন