২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তুর্কি বাহিনী প্রত্যাহারে ইরাকের ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

অনলাইন ডেস্ক ॥ ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় শহর মসুলের কাছে মোতায়েন তুর্কি বাহিনীকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রত্যাহার করা না হলে জাতিসংঘে অভিযোগ জানানোর হুমকি দিয়েছে ইরাক।

বাগদাদ বলছে, কোনো আলোচনা ছাড়া ইরাকের অভ্যন্তরে সেনা মোতায়েনের এ ধরনের পদক্ষেপ জাতীয় সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন।

বিবিসি জানায়, তুর্কি প্রধানমন্ত্রী আহমেত দাভুতোগোলু নিজেদের পদক্ষেপের সাফাই গেয়ে বলেন, একটি শিবির প্রতিষ্ঠার আগে সেখানে সেনাবাহিনীর নিয়মিত যাতায়াতের অংশ এটি।

২০১৪ সাল থেকে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি-সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) ইরাকের মসুল শহরটি দখল করে আছে।

ইরাকি প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল আবাদি এক বিবৃতিতে বলেছেন, “সম্ভাব্য সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার অধিকার ইরাকের রয়েছে। যদি ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সেনা (তুর্কি) সরিয়ে নেয়া না হয় তবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে যাওয়ার বিষয়টিও আমাদের বিবেচনায় রয়েছে।”

দাভুতোগোলু ইরাকি প্রধানমন্ত্রীকে এক চিঠিতে আরো সেনা না পাঠানোর অঙ্গীকার করলেও সেখান থেকে সেনা প্রত্যাহারের ব্যাপারে সম্মত হননি।

এরআগে এক বিবৃতিতে মসুল শহরের কাছে মোতায়েন তুর্কি সেনাদের প্রত্যাহারের দাবি জানায় ইরাক সরকার।

ইরাকি প্রধানমন্ত্রী হায়দায় আল আবাদির কার্যালয় থেকে দেওয়া ওই বিবৃতিতে তুরস্ককে ‘প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখার প্রতি শ্রদ্ধা দেখাতে এবং ইরাকি ভূখণ্ড থেকে তাৎক্ষণিকভাবে (সেনা) প্রত্যাহার করতে’ বলা হয়।

প্রকাশিত পূর্ববর্তী প্রতিবেদনগুলো থেকে জানা গেছে, কুর্দি বাহিনীগুলোকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার্ উদ্দেশে ইরাকের বাশিকা শহরের কাছে প্রায় ১৫০ জন তুর্কি সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, ইরাকের স্বায়ত্তশাসিত কুর্দি অঞ্চলের সঙ্গে তুরস্ক ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রাখলেও সীমান্ত এলাকার সিরীয় কুর্দি গোষ্ঠীগুলোকে শত্রুভাবাপন্ন মনে করে।