২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঠাকুরগাঁওয়ে বৈদ্যুতিক কারীগর শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঠাকুরগাঁও ॥ ঠাকুরগাঁও বেসরকারি বৈদ্যুতিক কারীগর শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম ও ভোট জালিয়াতির অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে সোমবার সকালে বিক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা অফিসে তালা ঝুলিয়ে পুনরায় নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানিয়েছে।

জানা যায়, গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত ঠাকুরগাঁও বেসরকারি বৈদ্যুতিক কারিগর শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম ও কারচুপির মাধ্যমে ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। নির্বাচনে ৩৪৭ জন ভোটারের মধ্যে ৩৩৭ জন ভোটার ভোট প্রদান করে। নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেন মজিবর রহমান। পরে প্রার্থীরা পুনরায় ভোট গননার জন্য নির্বাচন কমিশনার বরাবর লিখিত আবেদন জানান। আবেদনের প্রেক্ষিতে রবিবার রাতে পুনরায় ভোট গননা করা হয়। ভোট গননা শেষে দেখা যায়, যারা পরাজিত হয়েছিল তাদের এবং বিজয়ীদের প্রাপ্ত ভোট সমান। এতে বোঝা যায় নির্বাচনে কারচুপির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনার তার মনমতো প্রার্থীকে বিজয়ী করেছেন। এ ঘটনায় শ্রমিকরা প্রতিবাদ জানালেও কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ফলে সোমবার সকালে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা ঠাকুরগাঁও শহরের নিউ মার্কেটে অবস্থিত বেসরকারি বৈদ্যুতিক কারিগর শ্রমিক ইউনিয়ন অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয় এবং পুনরায় নির্বাচন দেওয়া দাবি জানান। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন করার হুশিয়ারি দেন।

জাহাঙ্গীর ইসলাম বলেন, বেসরকারি বৈদ্যুতিক কারিগর শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনে তিনি সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তিনি শতভাগ নিশ্চিত ছিলেন বিজয়ী হবেন। কিন্তু নির্বাচন কমিশনার ব্যাপক অনিয়মের মাধ্যমে ভোট গননা করেন এবং অপর প্রার্থীকে নির্বাচিত করেন।

একই অভিযোগ করেন প্রচার সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী লেলিন চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনে তাঁর মনোনিত পুলিং এজেন্ট ছিল কিন্তু পুলিং এজেন্টকে ব্যালট পেপার না দেখিয়ে ভোট গননা করেন।

কারচুপির অভিযোগ স্বীকার করে নির্বাচন কমিশনার মজিবর রহমান বলেন, সততাকে ফুটিয়ে তোলার জন্য আবেদনের প্রেক্ষিতে দুই ঘন্টার মধ্যে পুনরায় ভোট গননা করা হয়। ভোট গননায় পরাজিত ও বিজয়ী প্রার্থীর ভোট সমান হয়েছে। বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা হবে।