২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাজীপুর ও রংপুরে মেট্রোপলিটন পুলিশ হচ্ছে

  • মন্ত্রিসভায় অনুমোদন ;###;বিনা অনুমতিতে বিমানবন্দরে প্রবেশ করলে গ্রেফতারের নির্দেশ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ বিনা অনুমতিতে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রবেশ করলে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিমানবন্দরে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। সোমবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে তিনি এ নির্দেশ দেন। পাশাপাশি অন্যান্য সিটি কর্পোরেশন এলাকার মতো গাজীপুর ও রংপুরও মহানগর পুলিশ পেতে যাচ্ছে। সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘গাজীপুর মহানগরী পুলিশ আইন-২০১৫’ এবং ‘রংপুর মহানগরী পুলিশ আইন-২০১৫’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মন্ত্রিসভা বৈঠকে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, ভিআইপি মুভমেন্টের সময় বিমানবন্দরে ব্যাপক ভিড় হয়। এ সময় অনেকে বিনা অনুমতিতে বিমানবন্দরে ঢুকে পড়ে। নিরাপত্তা কর্মীরা বাধা দিলেও জোর করে তারা বিমানবন্দরের মধ্যে ঢুকে পড়ে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, বিনা অনুমতিতে কেউ বিমানবন্দরে ঢুকবে না। বিনা পাসে কেউ ঢুকলে তাকে আটক করার নির্দেশ দেন তিনি। বিমানবন্দরে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

বৈঠকে উপস্থিত মন্ত্রীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমাদের অনেক সফলতা রয়েছে। এটি যাতে অব্যাহত থাকে সে লক্ষ্যে সকলে তৎপর থাকতে হবে। মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন কর্মকা-গুলো আমলাদের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদেরও খোঁজখবর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। বৈঠকে পদ্মা ব্রিজ নিয়েও আলোচন হয়। একজন প্রতিমন্ত্রী বলেন, পদ্মা ব্রিজ একটি যুগান্তকারী সাফল্য এ সরকারের। বেগম জিয়া সারাজীবন ক্ষমতায় থাকলেও এ জাতীয় কাজ করতে পারবে না। তাই একটি মন্ত্রিসভা বৈঠক সেখানে করতে পারি আমরা। এর সরাসরি কোন জবাব না দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে পদ্মা ব্রিজ যাতে না হয় সে লক্ষ্যে সকল প্রকার চেষ্টা চালানো হয়েছে। এমনকি আমাকে এবং আমার পরিবারকেও অভিযুক্ত করতে চেয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা পারেনি। কানাডার যে আদালতে মামলা দায়ের হয়েছিল, সে আদালতে শেষ পর্যন্ত পদ্মা সেতু নিয়ে কোন অভিযোগ তারা প্রমাণ করতে পারেনি। এখন ওই আদালতই যারা অভিযোগ করেছিল তারা এ অভিযোগ কেন করেছিল তার কারণ দর্শাতে বলেছে। তারা এখনও এর কোন জবাব দিতে পারেনি। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব বিজয় ভট্টাচার্য্য সাংবাদিকদের বলেন, প্রতিটি মেট্রোপলিটন এলাকার আলাদা পুলিশ আছে। এবার গাজীপুর ও রংপুর মেট্রোপলিটন এলাকার জন্যও আলাদা পুলিশ গঠনের আইন হচ্ছে। ওই সকল (মেট্রোপলিটন) এলাকার জনগণকে অধিকতর আইনী ও পুলিশী সেবা দেয়ার জন্যই নতুন আইন করা হচ্ছে।

আইনের খসড়া নিয়ে বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে জানিয়ে অতিরিক্ত সচিব বলেন, মন্ত্রিসভা কতগুলো পর্যবেক্ষণ দিয়ে খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। এখন আইন মন্ত্রণালয়ের ভেটিং শেষে যথাযথ প্রক্রিয়ায় এটা চূড়ান্ত আইনে পরিণত করা হবে। আইনে কী কী বিষয় থাকছে তার বিস্তারিত না জানিয়ে তিনি বলেন, সাধারণভাবে অন্য মেট্রোপলিটন পুলিশ আইন যেভাবে হয়েছে, সেই ধারাবাহিকতায় এ আইন করা হচ্ছে।