২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পৌর নির্বাচনের কারণে সাত প্রকল্প অনুমোদন স্থগিত

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ পৌর নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে ৭ উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন প্রক্রিয়া স্থগিত করেছে পরিকল্পনা কমিশন। আজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠেয় জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) বৈঠকে এসব প্রকল্প অনুমোদন দেয়ার কথা ছিল।

সোমবার পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে পরিকল্পনা কমিশনের উর্ধতন কর্মকর্তাদের এক জরুরী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ বৈঠকে পৌরসভা নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘন হওয়ার কারণে সাতটি প্রকল্প উপস্থাপন করা হবে না বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সাতটি প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে চট্টগ্রামে সিঙ্গেল মুরিং টার্মিনাল ও পাইপ লাইন নির্মাণ প্রকল্প,

পশ্চিমাঞ্চলীয় গ্রিড নেটওয়ার্ক উন্নয়ন, বাকেরগঞ্জ-বরগুনা সড়ক প্রশস্ত ও মজবুতকরণ, ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক গোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প, দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্প, পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রত্যন্ত এলাকায় মিশ্র ফল চাষ এবং যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প রয়েছে।

পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিকুল আজম বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ হবে এমন কোন প্রকল্প অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে না। মূলত সব ধরনের বিতর্কের উর্ধে থাকার জন্য পরিকল্পনা কমিশন এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যেসব প্রকল্প তালিকাভুক্ত করার পরও উপস্থাপন করা সম্ভব হবে না সেগুলো নির্বাচনের পরই অনুমোদন দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে। মূলত একনেকে তালিকাভুক্ত করার সময় নির্বাচনের বিষয়টি ভুলক্রমে বিবেচনা না করায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

সূত্র জানায়, নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধিমালার প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, তফসিল ঘোষণার পর

নির্বাচন পূর্ব সময়ে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার সরকারী, আধা সরকারী বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের রাজস্ব বা উন্নয়ন তহবিলভুক্ত কোন প্রকল্পের অনুমোদন, ঘোষণা বা ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন বা ফলক উন্মোচন করা যাবে না। এছাড়া এ সময়ে সরকারী-বেসরকারী বা স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের তহবিল হতে কোন ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে কোন প্রকার অনুদান ঘোষণা বা বরাদ্দ বা অর্থ অবমুক্তও করতে

পারবে না।

পরিকল্পনা কমিশনের একাধিক কর্মকর্তা বলেছেন, এবারের নির্বাচনের আচরণবিধি পরিকল্পনা কমিশনে পাঠায়নি। এ কারণে পৌরসভা নির্বাচনের এলাকার আওতাভুক্ত প্রকল্প ভুলে তালিকাভুক্ত হয়েছে।