২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দিল্লী টেস্টে যত রেকর্ড

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দিল্লী টেস্টে অনেক রেকর্ড হয়েছে- (১) ভারতের উমেশ যাদব ২১ ওভার বল করে দিয়েছেন মাত্র ৯ রান! মেডেন ১৬! কোন ফাস্ট বোলার টেস্ট ম্যাচে এত কৃপণ বোলিংয়ের নজির আর নেই। (২) ৩৩৭Ñ রানের হিসেবে এটাই ভারতের সবচেয়ে বড় ব্যাবধানে জয়। এর আগে ২০০৮ সালে ভারত, অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েছিল ৩২০ রানে। (৩) স্পিনার রবীন্দ্র জাদেজা দ্বিতীয় ইনিংসে ৪৬ ওভার বল করে নিয়েছেন ৩৩ মেডেন। ভারতের হয়ে এমন রেকর্ড রয়েছে ভিনু মাকড়ের। তিনি ৭৬ ওভার বল করে ৪৭ মেডেন নিয়েছিলেন। (৪) সিরিজে জে পি ডুমিনির গড় ১০.৬২। বিশ্বের আর কোন দেশের বিপক্ষে তার পারফর্মেন্স এতটা কুৎসিত নয়! (৫) ব্যাটিংয়ে সবচেয়ে মন্থরতম পার্টনারশিপও হয়েছে এই টেস্টেই। অন্তত ২০০ বল খেলা হয়েছে, সেক্ষেত্রে হাশিম আমলা আর এবি ডি ভিলিয়ার্স করেছেন মাত্র ২৭ রান! (৬) হাশিম আমলা গড়েছেন মন্থরতম ব্যাটিংয়ের রেকর্ড। তার স্ট্রাইক রেট ১০.২৪! ২৪৪ বলে করেন ২৫! পিছিয়ে ছিলেন না এবি ডি ভিলয়ার্সও। তিনি ২৯৭ বলে করেন ৪৩! (৭) দক্ষিণ আফ্রিকা এই টেস্টে প্রথম ৫০ ওভার ব্যাট করে তোলে মাত্র ৪৯! (৮) যেখানে নিজের আগের ২১ টেস্টে অজিঙ্কা রাহানের ছক্কা ৫টি, সেখানে এই টেস্টেই মেরেছেন ৭টি (৯) দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথম ভারতীয় হিসেবে দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরি করেন রাহানে।

এএফসি কাপ ফুটবল মূলপর্বে শেখ জামাল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইদানীং বিভিন্ন কারণে সময়টা ভাল যাচ্ছে না বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লীগের শিরোপাধারী শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব লিমিটেডের। তবে শনিবার দিনটা ‘শনিময়’ নয় ‘বৃহস্পতি তুঙ্গে’ই বলা যেতে পারে। কারণ প্লে-অফ না খেলেই এএফসি কাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে ‘বেঙ্গল ইয়োলোস’ খ্যাত ধানম-ির এই দলটি।

মূলত কয়েকটি দেশের ওপর ফিফার নিষেধাজ্ঞা ও কয়েকটি ক্লাব দল নাম প্রত্যাহার করে নেয়াতেই ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়েছে শেখ জামালের। এশিয়ান ফুটবলে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থান ‘ইস্ট জোন’-এ। এই অঞ্চল থেকে এএফসি কাপে অংশগ্রহণ করবে মোট ১৬ দল। ইন্দোনেশিয়া ও কুয়েতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আর আফগানিস্তান ও উত্তর কোরিয়ার ক্লাবগুলো নাম প্রত্যাহার করে নেয়ায় সবমিলিয়ে দলই থাকছে ১৬টি। তাই এএফসি কাপের প্লে-অফ বা বাছাইপর্বের প্রয়োজন হচ্ছে না। ম্যাকাওয়ের বেনফিকা ও স্বাগতিক কিরগিজ ক্লাব এফসি আলগাকে টপকে প্লে-অফের ছাড়পত্র পেয়েছিল শেখ জামাল।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালে ক্লাবটির যাত্রা শুরু হবার পর এ পর্যন্ত ক্লাবটি ফুটবলে জিতেছে মোট নয়টি শিরোপা। এর মধ্যে দেশের বাইরে জিতেছে তিনটি শিরোপা। এগুলো হলো: ভুটানে কিংস কাপ শিরোপা, নেপালে সাফাল পোখরা গোল্ডকাপ শিরোপা এবং বুদ্ধ সুব্বা গোল্ডকাপ শিরোপা।