২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাংবাদিকদের বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ প্রয়োজন ॥ স্পীকার

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ জাতীয় সংসদের স্পীকার ও কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারপার্সন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী পরিবর্তনশীল বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সাংবাদিকদের ‘বিশেষায়িত’ প্রশিক্ষণের ওপর গুরুত্ব দিয়ে বলেছেন, আমরা চাই গণতন্ত্র বিকশিত হোক। আর গণতন্ত্র বিকাশের জন্য সংসদকে কার্যকর করতে হবে। সংসদীয় গণতন্ত্রের বিকাশে সাংবাদিকদের অবদান রয়েছে। আপনারা (সাংবাদিক) সংসদের কার্যক্রমকে বস্তুনিষ্ঠভাবে তুলে ধরেন বলেই জনগণ জানতে পারছে।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের ১৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্পীকার আরও বলেন, বিশ্বায়নের এই যুগে সাংবাদিকদের বিশেষায়িত জ্ঞানের প্রয়োজন। আর এজন্য প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ গুরুত্বের দাবি রাখে। তিনি বলেন, সংসদীয় গণতন্ত্র সম্পর্কে সংসদ সদস্য ও সাংবাদিকদের বিশেষ জ্ঞান অর্জন করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে সংবাদ পরিবেশন আরও সহজ হবে, গণতন্ত্র হবে আরও বেশি বিকশিত। স্পীকার বলেন, নির্বাহী বিভাগ, বিচার বিভাগ ও সংসদ- এ তিনটি রাষ্ট্রের প্রধান স্তম্ভ। সংসদীয় গণতন্ত্রকে আরও বেশি কার্যকর করতে হলে এ তিনটি বিভাগের মধ্যে সম্পর্ক কেমন, কার পরিধি কতটুকু- এ বিষয়গুলো জানার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

গণমাধ্যমে সাব-এডিটরদের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, তথ্য-প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে এখন গণমাধ্যমেও অনেক পরিবর্তন আসছে। সংবাদপত্রের পাশাপাশি অনলাইন ও টেলিভিশনের খবরও গুরুত্বের সঙ্গে প্রচারিত হচ্ছে। তিনি বলেন, রিপোর্টাররা যে খবর সরবরাহ করেন সেটাই তাৎক্ষণিক পরিবর্তন আনতে হয়। দ্রুত আপডেট করতে হয়। আর এ কাজটিই সাব-এডিটররা করে থাকেন।

সাব এডিটরদের উদ্দেশে স্পীকার বলেন, আপনারা অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ করেন। সেটা অনেকে জানে না। আমরা যারা জানতাম না, সেটা আমাদের ব্যর্থতা। প্রত্যেকটি কাজের আলাদা নেচার (চরিত্র) আছে। রিপোর্টাররা যেমন অনেক চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করতে হয়, আপনাদের (সাব-এডিটর) নিভৃতে কাজ করতে হয়। তাই বলে আপনাদের কাজ যে ক্ষুদ্র, তেমন না।

তিনি সাব এডিটরদের বিশেষ প্রশিক্ষণ ও বিশেষ প্রযুক্তি সম্পর্কে জানার ব্যবস্থা করার আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ও ডেইলি অবজারভারের সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, সাংবাদিকদের মধ্যে কোন বিভেদ নেই। অধিকার আদায়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আইন থাকা সত্ত্বেও অনেক সংবাদপত্র সাংবাদিকদের বেতন, ভাতা দিচ্ছে না। এক্ষেত্রে বেতন বোর্ড আইন অনুযায়ী সকল সংবাদ মাধ্যমকে আইন কার্যকরে বাধ্য করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান বলেন, সংবাদকর্মীদের মধ্যে কোন বিভাজন নেই। সংবাদ মাধ্যমে সাব এডিটর, রিপোর্টার, ফটো সাংবাদিক কাউকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই।

সংগঠনের সভাপতি নাছিমা আক্তার সোমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু, দৈনিক ইত্তেফাকের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক তাসমিমা হোসেন, ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সভাপতি মীর মোস্তাফিজুর রহমান, হুমায়ুন সাদেক চৌধুরী, শাহ মুহাম্মদ মুতাসিম বিল্লাহ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটা, অতিথিদের ক্রেস্ট বিতরণ ও সংসদদের মধ্যে বার্ষিক সুভেনিয়র এবং গিফট বিতরণ করা হয়।