১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সীতাকুণ্ডে ডাকাতের কবলে পড়ে ভারতের ৪ শিখ পুণ্যার্থী আহত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ডাকাতের কবলে পড়ে সর্বস্ব খুঁইয়েছেন ভারতের পাঞ্জাবের শিখ সম্প্রদায়ের কয়েকজন পুণ্যার্থী। এ সময় ডাকাতের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে চারজন পুণ্যার্থী আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে দু’জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আহতরা হচ্ছেন- সাধুরামের পুত্র মূল চান্দ্র, বধন সিংয়ের পুত্র ভূপেন্দর সিং, জোনানিন ধর সিং ও শাহিদ সিংয়ের পুত্র অমরজিত সিং। সোমবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপজেলার নূনাছড়া-কলাবাড়িয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) একেএম হাফিজ আক্তার জানান, ভারতের পাঞ্জাব থেকে চট্টগ্রামের চকবাজারের শিখ টেম্পল দেখতে এসেছিলেন ৩২ সদস্যের একটি তীর্থদল। তারা চারটি হাইচ মাইক্রোযোগে ঢাকায় যাওয়ার পথে সীতাকু-ের টেরিহাটে ডাকাতের কবলে পড়েন। এ সময় ডাকাতদের ছুরিকাঘাতে দু’জন আহত হয়েছেন। এ ছাড়া তাদের কাছ থেকে টাকা আর মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়েছে। খবর পেয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাদের পুলিশী প্রহরায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে এ ঘটনায় পুলিশ এখনও কাউকে আটক করতে পারেনি বলে জানান পুলিশ সুপার হাফিজ আক্তার।

সীতাকু-ের নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, চট্টগ্রাম শিখ মন্দির পরিদর্শন শেষে ভারতীয় ৮-১০ জন পুণ্যার্থী ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন। মহাসড়কে যাত্রাকালে উপজেলার নূনাছড়া-কলাবাড়িয়া মাঝামাঝি এলাকা অতিক্রমকালে শিম ক্ষেতে লুকিয়ে থাকা ডাকাতদল সুকৌশলে পুণ্যার্থীদের গাড়ি থামায়। গাড়িচালক ঘটনা আঁচ করতে না পেরে গাড়ি থেকে নামলে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে চালককে। এরপর পুণ্যার্থীদের অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ডাকাতরা টাকা-মোবাইল ও মূল্যবান জিনিসপত্র নিতে কয়েকজন পুণ্যার্থীকে ছুরিকাঘাত করে এবং মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যান। এতে ৪ পুণ্যার্থী গুরুতর আহত হন। আহত পরবর্তী অন্য গাড়িতে থাকা পুণ্যার্থীরা তাদের উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী উপজেলা মীরসরাই সেবা হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যান। সেবা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘আহত পুণ্যার্থীদের ৪ জনের মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের আহতবস্থায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করি। এ বিষয়ে জানতে সীতাকু- থানার অফিসার ইনচার্জ ইফতেখার হাসানের মোবাইলে বারবার ফোন দিলেও উনার ফোন রিসিভ করেননি।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভারতের পাঞ্জাব থেকে শিখ সম্প্রাদায়ের একটি দল তীর্থ দর্শনে সড়কপথে বেনাপোল দিয়ে বাংলাদেশে আসেন। ৩২ সদস্যের এ দলটি ময়মনসিংহসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের শিখ মন্দির পরিদর্শনের জন্য ৩ ডিসেম্বর ঢাকায় এসে পৌঁছান।

গত ৮ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের চকবাজার জয়নগরের গুরুদুয়ারা শিখ মন্দির পরিদর্শনে আসেন। সেখান থেকে সোমবার রাতে চারটি হাইচ মাইক্রোযোগে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। পথিমধ্যে রাত সাড়ে ১২টার দিকে সীতাকু-ের টেরিহাট এলাকায় সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে তাদের গাড়িবহরে ডাকাত দল হানা দেয়। এ সময় তারা প্রথমে গাড়ির যাত্রীদের কাছ থেকে ৪৫ হাজার ভারতীয় রুপী ও বেশ কয়েকটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। আহতরা জানান, চট্টগ্রাম থেকে মাইক্রোবাসযোগে মঙ্গলবার তাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন গুরুদুয়ারা নানক মন্দির পরিদর্শনের কথা ছিল। পুণ্যার্থী দলে এক সদস্য নারায়ণ রবি দাশ পাপ্পু জানান, আমাদের বহনকারী ৪টি মাইক্রোবাসকে গতিরোধ করে দুর্বৃত্তরা। প্রথমে গাড়িতে ঢিল ছুঁড়ে তারা। এরপর রাস্তার ওপর গাছের গুঁড়ি ফেলে ব্যারিকেড দেয়। পরে দুর্বৃত্তরা অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তাদের। পরে দু’জনকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে নগদ ৪৫ হাজার ভারতীয় রুপী, মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যায়। পুলিশ খবর পেয়ে তাদের উদ্ধার করে মিরসরাইয়ের সেবা মেডিক্যালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জখম হওয়া ওই দুই ভারতীয়সহ সকলকে পুলিশী প্রহরায় ঢাকায় পৌঁছে দেয়া হয়।