২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মহা তারকাদের দলবদল

  • অতশী রহমান;###;ঠিকানা পরিবর্তন হতে পারে রোনাল্ডো, মেসি, নেইমার, রোবেন, লেভানডোস্কি, সানচেজ, ইব্রাহিমোভিচদের

গুঞ্জনটা অনেকদিনের। তবে ক্রমশই তা ডালপালা ছড়াচ্ছে। স্প্যানিশ লা লীগায় অধ্যায় শেষ হয়ে যাচ্ছে সময়ের দুই সেরা তারকা লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর! আগেও বেশ কয়েকবার এমন খবর রটেছে। সম্প্রতি আবারও এই সংবাদে সরগরম হয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম।

শুধু রোনাল্ডো-মেসিতেই থেমে নেই গুঞ্জন। শোনা যাচ্ছে, কর ফাঁকির ঝামেলার কারণে স্প্যানিশ অধ্যায় শেষ করতে পারেন ব্রাজিলিয়ান অধিনায়ক নেইমারও। এছাড়া চাউর হয়েছে, ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ ছেড়ে স্প্যাানিশ লীগে যেতে পারেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তারকা ওয়েন রুনি। আবার চেলসির কোচ পদ থেকে ফরাসী ক্লাব প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইনে নাম লেখাতে পারেন পর্তুগীজ লৌহমানব জোশে মরিনহো।

পুরনো ঠিকানাতেই ফিরছেন রোনাল্ডো? গুঞ্জনটা ক্রমশ আলোর মুখ দেখছে বলেই মনে হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে এ বিষয়ে একাধিক খবর রটেছে। ২২ নবেম্বর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কোচ লুইস ভ্যান গালের সাক্ষাতকারে বিষয়টি আরও স্পষ্ট হয়েছে। রেড ডেভিলস কোচ জানিয়েছেন, তারা নতুন নতুন ফুটবলার খুঁজছেন। এই তালিকায় তাদের লক্ষ্য আছে রোনাল্ডোও। সি আর সেভেনের মনের বাসনাও নাকি পুরনো তাঁবুতে ফেরা।

রিয়াল মাদ্রিদে গত এক বছর ধরেই তেমন ভাল সময় যাচ্ছে না রোনাল্ডোর। বর্তমান ফিফা সেরা তারকা নাকি অস্থির সময় কাটাচ্ছেন সান্টিয়াগো বার্নাব্যুতে। এ কারণে ওল্ডট্র্যাফোর্ডে ফেরার ইঙ্গিত প্রায়শই দিচ্ছেন। ভ্যান গাল যা বলেছেন তা যদি সত্য হয় তাহলে স্বপ্নপূরণ হতে চলেছে পর্তুগাল অধিনায়কের। ভ্যান গাল সাক্ষাতকারে বলেন, আমরা আরও মানসম্পন্ন খেলোয়াড় খুঁজছি। শুধু রোনাল্ডোই নয়; তিনি আরও বলেন, রোনাল্ডোকে পেতে আমরা আশায় আছি এবং অপেক্ষা করছি। শুধু ম্যানইউর আগ্রহ নয়, রোনাল্ডোরও মন আকুপাকু করছে আজকের তারকা হওয়ার পেছনে বড় অবদান রাখা ক্লাবটিতে ফিরতে। বিভিন্ন সময়ে তিনি এমন আভাস দিয়েছেন। সপ্তাহখানেক আগে সাক্ষাতকারে তিনবারের ফিফা সেরা তারকা বলেন, ‘আমি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ভালবাসি’। ওল্ডট্র্যাফোর্ডে থেকেই ক্যারিয়ারের ইতি টানার ইচ্ছার কথা জানান বর্তমান ফিফা সেরা ফুটবলার। ৩০ বছর বয়সী রোনাল্ডোর ভবিষ্যত নিয়ে বেশ কিছুদিন থেকেই চলছে আলোচনা, জল্পনা-কল্পনা।

তবে অনেকের মতে, একদিন ফের ম্যানচেস্টারে ফিরবেন পর্তুগীজ তারকা। ব্রিটিশ রেকর্ড ৮০ মিলিয়ন পাউন্ড ট্রান্সফার ফিতে স্প্যানিশ পরাশক্তি রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেয়ার আগে ২০০৩ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত ইংলিশ ক্লাব ম্যানইউতে ছিলেন সি আর সেভেন। তারকা এই ফুটবলার নিজেকে নিয়ে নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্রে ওল্ডট্র্যাফোর্ডে প্রত্যাবর্তনের গুজব নিয়ে খুব বেশি কথা বলেননি। রোনাল্ডো সাক্ষাতকারে বলেন, আমি রিয়াল মাদ্রিদে বেশ সুবিধাজনক অবস্থায় আছি। তবে আমি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকেও ভালবাসি। ভবিষ্যত নিয়ে কেউ কিছু বলতে পারে না। তবে এই মুহূর্তে রিয়ালে আমি সুখেই আছি।

রোনাল্ডো আরও বলেন, আমার ইচ্ছা ক্যারিয়ারের চূড়ায় অবস্থানের সময় অবসর নেব। আমি চাই ভাল একটি ক্লাবে থাকা অবস্থায় নিজের মর্যাদা নিয়ে বিদায় নিতে। এর মানে এই নয় যে, দুবাই কিংবা যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া অনুচিত। তবে আমি নিজেকে সেখানে দেখতে চাই না। অবসরের পর কোচ হওয়ার ইচ্ছা আছে কিনা- এই প্রশ্নের জবাবে রিয়াল তারকা বলেন, না, কোচ হওয়ার কোন ইচ্ছা আমার নেই। আমি আমার সুনাম নিয়ে থাকতে চাই। নিজের ব্র্যান্ডকে এগিয়ে নিতে চাই। কারণ আমার বেশ কয়েটি ব্যান্ড আছে, যেগুলোকে আমি আরও বিকশিত করতে চাই। এদিকে রোনাল্ডোকে রিয়াল ছাড়ার পরামর্শ দিয়েছেন বার্সিলোনার সাবেক সভাপতি জোয়ান লাপোর্টা। অন্য কোন ক্লাবে যেতে চাইলে পর্তুগালের এই তারকা ফরোয়ার্ডের জন্য এটাই সঠিক সময় বলে মনে করেন তিনি। লাপোর্টা বলেন, এটা আমাকে অবাক করে না। আমার মনে হয়, একজন খেলোয়াড় হিসেবে রোনাল্ডোর ক্যারিয়ার এমন একটি জায়গায় আছে, যখন তার দল পরিবর্তন নিয়ে ভাবা উচিত। ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগসহ এখন প্রায় সব দেশেই ট্রান্সফার মার্কেটের অবস্থা ভাল বলে মনে করেন তিনি। তার মতে, মাদ্রিদে রোনাল্ডো অনেক বছর কাটিয়েছে এবং হয়ত সে অন্য পথ খুঁজবে। খেলোয়াড়রা সেরা চুক্তির খেঁাঁজে থাকে। আর এজন্য সবচেয়ে সঠিক সময়ে আছে সে।

এর আগে পর্তুগীজ তারকার দলবদল প্রসঙ্গে ফ্রান্সের সাবেক ফুটবলার ডেভিড গিনোলা বলেন, রোনাল্ডো শীঘ্রই প্যারিসে আসবেন। সেই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, বর্তমানে চেলসির কোচ মরিনহোও পিএসজিতে আসতে পারেন। গিনোলা বলেন, আমি দেখতে পাচ্ছি রোনাল্ডো আগামী বছর পিএসজিতে আসছে। কারণ তার আরও অনেক বেশি অর্থের প্রয়োজন, যা পিএসজি দিতে প্রস্তুত। এখানে এসে সে চ্যাম্পিয়ন্স লীগও জিততে চাইবে। সি আর সেভেনের পাশাপাশি মরিনহোরও কোচ হয়ে আসার ব্যাপারে তিনি আশাবাদী।

অন্যদিকে বার্সিলোনার সঙ্গে হৃদয়ের বন্ধন মেসির। সেই শৈশব থেকে ক্যাটালান ক্লাবটিতে খেলেই হয়েছেন বিশ্বসেরা ফুটবলার। হরমোনজনিত সমস্যার কারণে যখন জীবন নিয়ে টানাপোড়েন সৃষ্টি হয়েছিল ক্ষুদে এই জাদুকরের, তখন বার্সিলোনাই এগিয়ে এসেছিল। বার্সার তৎকালীন ক্রীড়া পরিচালক কার্লোস রেক্সাস চুক্তি করেন মেসির সঙ্গে। তারপর থেকেই রূপকথার উত্থান আর্জেন্টাইন তারকার। এ কারণে সংখ্যাগরিষ্ঠের ধারণা, বার্সিলোনা ছেড়ে কোথাও যাবেন না মেসি। এমন কথা ২৮ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড অনেকবারই বলেছেন।

তবে মাঝেমধ্যেই প্রাণের ন্যুক্যাম্প ছাড়ার গুঞ্জন শোনা গেছে মেসির। মাসকয়েক আগে চাউর হয়, ফরাসী ক্লাব প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইনে নাম লেখাতে পারেন। মাঝেমধ্যে ইংল্যান্ডে আসার কথাও শোনা যায়। গত অক্টোবরে এমন কথা শোনা যায়। এবার আরেকবার এই কথাটি বাজারে রটেছে। বাজিকর প্রতিষ্ঠান স্কাই বেট ভালভাবেই দেখতে পাচ্ছে মেসির নতুন ঠিকানা প্রিমিয়ার লীগ! এর আগে স্পেনের সাংবাদিক গুইলেম বালাগেও বলেছেন, ভবিষ্যতে ইংল্যান্ডে আসতে পারেন মেসি। সেক্ষেত্রে স্পেন ছেড়ে তার নতুন ঠিকানা হতে পারে চেলসি, ম্যানচেস্টার সিটি কিংবা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। মেসির বার্সা ছাড়া প্রসঙ্গে গুইলেম বলেন, এটা অনেক কাছাকাছি এসে গেছে যে, সে বার্সিলোনা ছাড়ছে। কেন ন্যুক্যাম্প ছাড়বেন সে বিষয়েও ধারণা দিয়েছেন তিনি। তার মতে, স্পেনে বর্তমানে অস্থির সময় কাটাচ্ছেন মেসি। বার্সার হয়ে গোলের পর গোল ও রেকর্ডের পর রেকর্ড গড়লেও কর ফাঁকি মামলা নিয়ে ঝামেলায় আছেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। এই বিষয়টি মেসিকে ন্যুক্যাম্প ছাড়ার সিদ্ধান্তে প্রভাবিত করছে বলে মনে করছেন অনেকে।

কর ফাঁকির এই ঝামেলায় মেসিকে ঠিকানা পরিবর্তন করতে প্রভাবিত করছে বলে শোনা যাচ্ছে। এমন সম্ভাবনার কারণে সঙ্গত কারণেই নড়েচড়ে বসেছে ইউরোপের ফুটবলের পরাশক্তিরা। আগ্রহী ক্লাবগুলোর তালিকায় শীর্ষে আছে চেলসি। ব্লুজদের পাশাপাশি আর্সেনাল, ম্যানইউ, ম্যানসিটিও তালিকায় আছে। বাজিকর প্রতিষ্ঠান স্কাই বেটের চেলসির পক্ষে বাজির দর ৮/১। দ্বিতীয় স্থানে আর্সেনালের পক্ষে বাজির দর ১২/১। ম্যানচেস্টার সিটির পক্ষে সম্ভাবনা ১৮/১। এরপর আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ১৮/১, জার্মান ক্লাব বেয়ার্ন মিউনিখ (২০/১), ফরাসী ক্লাব প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইন (২২/১) ও ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাস (২৫/১)।

তবে লা লীগার প্রধান জ্যাভিয়ের টেবাস মেসি ও রোনাল্ডোর স্পেন ছাড়ার গুঞ্জন নাকচ করে দিয়েছেন। তবে ম্যানইউ তারকা ওয়েন রুনি ও ডেভিড ডি গিয়াকে স্পেনে চান তিনি। সাক্ষাতকারে টেবাস বলেন, আমি চাই প্রিমিয়ার লীগের তারকা খেলোয়াড়রা লা লীগায় খেলুক। রুনি স্পেনে এলে ব্যাপারটি দারুণ হবে। ডি গিয়া বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম সেরা গোলরক্ষক। তাকেও আমি স্প্যানিশ লীগে চাই। এ দু’জন ছাড়াও ইউরোপের অন্যান্য লীগেও বিশ্বমানের খেলোয়াড় আছে। এ তালিকায় ফ্রাঙ্ক রিবেরির নাম না বললেই নয়।