২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ব্যাংক ঋণের জামিন হয়ে বিপাকে কুয়াকাটার স্বতন্ত্র প্রার্থী

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ৮ ডিসেম্বর ॥ ব্যাংক ঋণের জামিনদার হয়ে বিপাকে পড়েছেন কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচনের স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী বাইতুল আরজ জামে মসজিদের ইমাম ও স্কুলশিক্ষক শেখ মোঃ মাইনুল ইসলাম মান্নান। তার মনোনয়নপত্র নির্বাচন কমিশন বৈধ ঘোষণা করলেও বৈধ আদেশের বিরুদ্ধে আপীল করা হয়েছে।

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক ও আপীল কর্তৃপক্ষের কাছে অগ্রণী ব্যাংক কুয়াকাটা শাখার কর্মকর্তা মোঃ বশির উদ্দিন গত ৭ ডিসেম্বর বকেয়া লোন আদায়ের জন্য এ আপীল করেন। জেলা প্রশাসক আজ বুধবার আপীল শুনানির দিন ধার্য করেন। মাইনুল ইসলাম মান্নান জানান, কুয়াকাটা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি থাকাকালীন শতাধিক ব্যবসায়ীর ব্যাংক ঋণের তিনি জামিনদার হয়েছেন, যার মধ্যে দুই শিক্ষকসহ ছয় ব্যবসায়ী প্রায় সাত লাখ টাকা খেলাপী হয়েছেন বলে জানতে পেরেছেন। তবে ব্যাংক থেকে এর আগে তাকে কোন নোটিস করা হয়নি। অগ্রণী ব্যাংক কুয়াকাটা শাখার ম্যানেজার মোঃ সেলিম রেজা জানান, খেলাপী ঋণের টাকা আদায়ের জন্য তারা নির্বাচন কমিশনে এ আপীল করেছেন। তার প্রার্থিতা বাতিল হবে কি-না, সে বিষয়টি বলতে পারবে নির্বাচন কমিশন। তবে কলাপাড়ায় প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে কেন ব্যাংকের প্রতিনিধি উপস্থিত থেকে খেলাপীর অভিযোগ করেননি, তার কোন উত্তর মেলেনি।

কলাপাড়ায় জমে উঠেছে দুই ভাইয়ের লড়াই

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ৮ ডিসেম্বর ॥ কলাপাড়া পৌরসভা নির্বাচনে নয় নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে আপন দুই ভাই ভোট যুদ্ধে নেমেছে। এরা হচ্ছেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমীন সরদার ও তার আপন বড় ভাই উপজেলা যুবলীগের সদস্য আবদুস সালাম সরদার। এ নিয়ে সেখানকার ভোটারদের মধ্যে চলছে নানা আলোচনা- সমালোচনা। তবে আল-আমিন সরদার দলের সমর্থিত প্রার্থী।

আবদুস সালাম সরদার বলেন, পারিবারিকভাবেই আমরা আওয়ামী লীগকে সমথর্ন করি। সে কারণে আমি নির্বাচন করার ইচ্ছে পোষণ করেছি। নির্বাচনের আগে পরিবারের সদস্য নিয়ে বসেছিলাম। পরিবার থেকে আমাকে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত দিয়েছে। দলীয় মনোনয়ন চেয়েছি, পাইনি। এলাকাবাসী আমাকে সমর্থন দেয়ায় নির্বাচনে করতে যাচ্ছি।

এদিকে ছোট ভাই আলামিন সরদার বলেন, আমি দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগ করি। দল থেকে সমর্থনও পেয়েছি। বড় ভাইয়ের এখন নির্বাচন থেকে সরে এসে আমাকে সমর্থন করা উচিত। অপর দিকে একই ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুজ্জামান হাসান সিকদারের বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আরেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোস্তফা নজরুল।