১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ট্রাম্পের মুসলিম বিরোধী বক্তব্যে বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড়

  • ‘ধর্মীয় বিদ্ধষ ছড়ানোর আশঙ্কা’

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ আসন্ন মার্কিন নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্পের এক বক্তব্য নিয়ে নিন্দার ঝড় বইছে। স্থানীয় সময় সোমবার এক নির্বাচনী প্রচারে তিনি বলেন, ক্যালিফোর্নিয়ায় সন্ত্রাসী হামলার পর যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে মুসলমানদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের বিষয়ে মুসলমানদের মনোভাব যতদিন না আমাদের দেশের প্রতিনিধিরা স্পষ্ট বুঝতে পারছেন, ততদিন এই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ রাখা দরকার। মুসলিমদের নিয়ে ট্রাম্পের এই বক্তব্যের পর পরই জাতিসংঘসহ খোদ যুক্তরাষ্ট্র এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশে সমালোচনা এবং নিন্দার ঝড় শুরু হয়। নিন্দা জানান স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

এ ধরনের বক্তব্য বিশ্বব্যাপী ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়াবে বলে জানায় জাতিসংঘ। এর নিন্দা জানিয়ে হোয়াইট হাউসের এক বিবৃতিতে বলা হয়, তার এ ধরনের বক্তব্য আমেরিকান সুলভ হয়নি। এই বক্তব্য মার্কিন মূল্যবোধ এবং জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। খবর বিবিসি, এএফপি ও ফক্স নিউজের।

ট্রাম্পের এ ধরনের বক্তব্যের সমালোচনা এসেছে তার দলের অপর মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কাছ থেকেও। রিপাবলিকান মনোনয়নপ্রত্যাশী লিন্ডসে গ্রাহাম যুক্তরাষ্ট্রে মুসলমানদের নিষিদ্ধ করার বিষয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিবৃতির নিন্দা জানান এবং অন্যদেরও এ ধরনের বক্তব্যে নিন্দা জানানোর আহ্বান জানান।

ফ্লোরিডার সাবেক গবর্নর এবং অপর মনোনয়নপ্রত্যাশী জেব বুশ ট্রাম্পের এ ধরনের বক্তব্যের জন্য বলেছেন ট্রাম্প মানসিক ভারসাম্য হারিয়েছেন। এ সময় ট্রাম্পকে একজন বিকৃত মস্তিষ্কের নেতা বলেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিম কমিউনিটিার নেতারাও এ ধরনের বক্তব্যের নিন্দা জানিয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। কাউন্সিল অন আমেরিকান ইসলামিক রিলেশনের নির্বাহী প্রধান নিহাদ আজাদ বলেছেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পের বক্তব্য শুনে মনে হয়েছে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের মতো একটা বড় জাতি নয় একটি ক্ষুদ্র অংশের নেতা।

সোমবারের নির্বাচনী প্রচারে ট্রাম্প আরও বলেন, জরিপে দেখা যাচ্ছে, মার্কিনীদের প্রতি মুসলমানদের ঘৃণা পুরো জাতিকেই ঝুঁকিতে ফেলবে। আর যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের প্রতিনিধিরা নির্ণয় করতে না পারেন যে আসলে কি ঘটছে, ততক্ষণ পর্যন্ত মুসলমানদের জন্য সীমান্ত বন্ধ করে রাখা উচিত। তবে তার এই বক্তব্যের পর অপর রিপাবলিকান প্রার্থী বেন কারসেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে সফররত সকল বিদেশীদের ‘নিবন্ধন ও নজরদারী’র আওতায় আনা দরকার।

প্রেসিডেন্ট ওবামাসহ ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সকল প্রেসিডেন্ট মনোনয়নপ্রত্যাশী ও অধিকাংশ কংগ্রেস সদস্য তীব্র ভাষায় ট্রাম্পের বক্তব্যের নিন্দা করেছেন। ডেমোক্র্যাটিক দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী হিলারি ক্লিনটনও ট্রাম্পের বক্তব্যেও সমালোচনা করে টুইট বার্তায় বলেন, এটি নিন্দনীয়, পক্ষপাতদুষ্ট ও বিবাদ সৃষ্টিকারী বক্তব্য। এমন প্রস্তাব গ্রহণ করা যায় না। কেননা এটি আমাদের জীবনহীন করবে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল কমিউনিকেশন কাউন্সিলের ডিরেক্টর ইব্রাহিম হুপার বলেছেন, আমার মনে হচ্ছে আমি ১৯৩০-এ ফিরে গিয়েছি। হিটলারের সময়ের সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেন, এমনটা হলে, মার্কিন মুলুকে আমাদের ঠাঁই কোথায়?

গত সপ্তাহেই ক্যালিফোর্নিয়ায় এক মুসলিম দম্পতির গুলিতে ১৪ জন প্রাণ হারায়। ধারণা করা হচ্ছে ওই দম্পতি ইসলামী কট্টরপন্থায় উদ্বুদ্ধ ছিল।