২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সড়ক দুর্ঘটনায় রাবি শিক্ষক নিহত

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ মোটরসাইকেল ও কাভার্ডভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আরবী বিভাগের শিক্ষক ড. এ ওয়াই কে এম জাহাঙ্গীর নিহত হয়েছেন। বুধবার গ্রামেরবাড়ি সিরাজগঞ্জ যাওয়ার পথে নাটোরে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

একই দুর্ঘটনায় তার ছেলে এবং রাবির গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ওয়াকিল খান গুরুতর আহত হয়েছেন। তিনি রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

রাবির আরবী বিভাগের সভাপতি প্রফেসর মুহাম্মদ আব্দুস সালাম মিঞা জানান, মোটরসাইকেলে ড. জাহাঙ্গীর ও তার ছেলে ওয়াকিল বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন কাজলার বাসা থেকে গ্রামেরবাড়ি সিরাজগঞ্জের উদ্দেশে যাচ্ছিলেন। সকাল ৮টার দিকে নাটোর রেলক্রসিংয়ের কাছে পৌঁছলে দ্রুতগতির একটি কাভার্ডভ্যান পেছন থেকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই ড. জাহাঙ্গীর মারা যান। তার ছেলেকে আহত অবস্থায় রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রামেক হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার মোশাররফ হোসেন জানান, নিহত শিক্ষকের লাশ ময়নাতদন্ত করবে না মর্মে লিখিত দেয়ায় পরিবারের হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে। দুপুরের পর লাশ গ্রামেরবাড়ি নিয়ে গেছেন স্বজনরা।

বাগেরহাটে ভ্যানচালক

স্টাফ রিপোর্টার বাগেরহাট থেকে জানান, বাগেরহাট-খুলনা মহাসড়কের ষাটগম্বুজ এলাকায় বুধবার ট্রাকচাপায় রেজাউল করিম (৩৭) নামে এক ভ্যানচালক নিহত এবং তিন শ্রমিক আহত হয়েছেন। নিহত রেজাউলের বাড়ি বাগেরহাট সদর উপজেলার বারাকপুর গ্রামে।

নওগাঁয় মোটরসাইকেল আরোহী

নিজস্ব সংবাদদাতা নওগাঁ থেকে জানান, মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কের বলিহার ব্রিজ-বাবলাতলীর মাঝামাঝি স্থানে ট্রাকচাপায় শফিকুল ইসলাম ময়নুল (৩৮) নামে এক মোটরসাইকেল-আরোহী নিহত হয়েছেন। তিনি আলিকো নামে একটি ইনস্যুরেন্স কোম্পানি নওগাঁ শাখায় চাকরি করতেন।

বাজিতপুরে স্কুলছাত্রী

নিজস্ব সংবাদদাতা কিশোরগঞ্জ থেকে জানান, জেলার বাজিতপুরে অটোরিক্সার চাপায় মোস্তফা মীম (৭) নামে এক স্কুলছাত্রী নিহত হয়েছে। সে উপজেলার দীঘিরপাড় ইউনিয়নের দীঘিরপাড় গ্রামের মস্তু মিয়ার শিশুকন্যা।

বুধবার বেলা পৌনে ১১টায় বাজিতপুর-দীঘিরপাড় সড়কের বোর্ডঘর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শনিবার পদ্মা সেতুর মূল কাজ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ॥ সেতুমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের মূল সেতুর কাজ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে এ সরকারের কঠিক চ্যালেঞ্জটি অতিক্রম করতে যাচ্ছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা এ সেতু। আগামী ১২ তারিখ এ সেতুর কাজের উদ্বোধনের মাধ্যমে স্বপ্ন এখন বাস্তবে রূপ নিতে যাচ্ছে। বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে মাওয়ায় মঞ্চ এলাকা পরিদর্শনকালে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিশ্বব্যাংকসহ অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো যখন পদ্মা সেতু প্রকল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়, তখন এ সেতু নির্মাণ বর্তমান সরকারের কঠিন চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দেয়। পদ্মায় আকাশজুড়ে মেঘের ঘনঘটা নেমে আসে। কুয়াশার চাদরে আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে আকাশ। সকল অন্ধকার দূর করে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যোগ্য নেতৃত্বে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ শুরু করেন। এটি ছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ। অবশেষে সব বাধা উপেক্ষা করে আগামী শনিবার প্রধানমন্ত্রী এ সেতুর মূল কাজের উদ্বোধন করতে যাচ্ছেন।