২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অতীতের অভিজ্ঞতা

জাহেদুল ইসলাম সমাপ্ত

এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে স্থানীয় সরকার নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তাই নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক মহলে তৈরি হয়েছে নানা রকম বিতর্ক। কিন্তু তা সত্ত্বেও নির্বাচন বড় দুটি রাজনৈতিক দলের কাছে চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন অনেকেই। কিন্তু স্থানীয় নির্বাচনে ভোটাররা সাধারণত কেবল দলীয় বিবেচনা থেকে ভোট দেন না। ব্যক্তির ভাবমূর্তি এখানে বিশেষভাবে কাজ করে।

বিগত পৌর নির্বাচনগুলোতে লালমনিরহাট পৌরসভাকে মডেল শহরে রূপান্তরের আশ্বাস, পৌর এলাকার ছোট-বড় সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি পৌরবাসীর দুখে-দুঃখে পাশে দাঁড়াবেন এমন প্রতিশ্রুতি দিয়ে চেয়ারম্যান/মেয়রের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন অনেকেই। এর মধ্যে কিছু চেয়ারম্যান/মেয়র তাদের প্রতিশ্রুতির কিছুটা রাখার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু বিগত ৫ বছরে পৌরসভার উন্নয়ন তো দূরের কথা প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী চোখে পড়ার মতো কোন উল্লেখযোগ্য কাজ হয়নি। পৌরসভার রাস্তা-ঘাট, ড্রেন সংস্কার, ময়লা ও আবর্জনা পরিষ্কার না করা, শহরের অকেজো লাইট পোস্টগুলোতে আলোর ব্যবস্থা না করাসহ বিভিন্ন সমস্যায় আজও জনদুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পৌরবাসীকে।

এবারের নির্বাচনেও প্রার্থীদের অতীতের প্রতিশ্রুতি, বর্তমান কর্মদক্ষতা ও ভবিষ্যতের চিন্তা ভাবনার দিকে লক্ষ্য রেখে শিক্ষিত, দক্ষ এবং দলমতের ঊর্ধ্বে যিনি পৌর এলাকার বাস্তব সমস্যাগুলো বিবেচনায় নিয়ে তা সমাধানের আশ্বাস দেবেন ও বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করবেন তাকেই এবার পৌর পিতার আসনে বসাবেন পৌরবাসী।

পূর্ব থানাপাড়া, লালমনিরহাট থেকে