২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিমানের এমডি নিয়োগ প্রশ্নে সিদ্ধান্ত হতে পারে আজ

  • পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিমানের ব্রিটিশ এমডি কাইল হেউডের ভাগ্য নির্ধারণ হতে যাচ্ছে আজ। বিমান পরিচালনা পর্ষদের আজকের বিশেষ সভায় কাইলের চুক্তি নবায়ন করা, তার বেতন ভাতাদি পরিশোধসহ আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এটাই এ বছরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সভা বলে বিবেচিত এ জন্যই যে, এরপর আর মাত্র একটা বৈঠক বাকি থাকে। যেটা অনুষ্ঠিত হবে বছরের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর।

সূত্র জানায়, বর্তমান ব্রিটিশ এমডি কাইলের এক বছরের চাকরির মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ৪ জানুয়ারি। সে হিসাবে তার মেয়াদ বাড়ানো না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত আজকের বৈঠকে নিতে হবে। যদিও ইতোমধ্যে একজন নতুন এমডি নিয়োগের জন্য দরপত্র ডাকা হয়েছে। ওই নিয়োগ প্রক্রিয়া সহসা সম্পন্ন হবার কোন লক্ষণ নেই। সে অবস্থায় কার ওপর বর্তাবে এ দায়িত্ব। বিশেষ করে বিমানের সিনিয়র পরিচালক ক্যাপ্টেন মোসাদ্দিক আহমেদও আজ (বৃহস্পতিবার) অবসরে যাচ্ছেন। পরিচালনা পর্ষদের তিনজন আমলা সদস্য গত মাসের বৈঠকে তাকে এক বছরের জন্য এক্সটেনশন বা চুক্তিভিত্তিক আরও কমপক্ষে ৬ মাস রাখার প্রস্তাব দিলেও তা প্রত্যাখ্যান করে দেন অন্য সদস্যরা। যে কারণে তাকেও বিমানের ভারপ্রাপ্ত এমডি হিসেবে রাখারও সুযোগ এই মুহূর্তে নেই।

এ অবস্থায় কে ধরছেন বিমানের হাল- এমন প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে।

এ সম্পর্কে বিমান পর্ষদের একাধিক সদস্য জনকণ্ঠকে বলেন, শেষ পর্যন্ত কাইলকেই হয়তবা নতুন এমডি নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত দায়িত্ব চালিয়ে যাবার জন্য সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে। যদিও তার বেতন ভাতাদি ও ছুটি নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে। কারণ তিনি বিমানে যোগ দেয়ার পর শারীরিক অসুস্থতার দরুন ৫২ দিন কর্মস্থলে অনুপস্থিত ছিলেন। এ সময়ের বেতন তাকে দেয়া হবে কি হবে না তা নির্ভর করছে পর্ষদের আজকের বৈঠকে।

এদিকে কাইল হেউড জনকণ্ঠকে বলেছেন, আমি ৫২ দিন না হয় অনুপস্থিত ছিলাম। কিন্তু ৩১৩ দিন তো কর্মস্থলে ছিলাম। আমার দক্ষতা ও পেশাদারিত্ব নিয়ে কি কোন প্রশ্ন তুলেছে কেউ? আমার সময়ে তো বিমান লাভের মুখ দেখেছে। চুক্তি মোতাবেক তো আমি লভ্যাংশও দাবি করেছি। সেটা দিতে হবে। আমি বিমানের জন্য কাজ করতে চাই। এখন আমি শারীরিক ও মানসিকভাবে প্রস্তুত আছি। তবে যদি নবেম্বর মাসের বেতন না দেয়া হয় তাহলে আমি বিমান ছেড়ে যাব।

পর্ষদের একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জনকণ্ঠকে জানান, আজকের বৈঠকে কাইলের নবেম্বরের বেতন ভাতাদি পরিশোধের অনুমোদন দেয়া ছাড়াও তাকে আরও অন্তত তিন মাস কাজ চালিয়ে যাবার মতো সিদ্ধান্ত হতে পারে।

নির্বাচিত সংবাদ