২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শুধু জয়ের কথাই ভাবছেন ঢাকার নাসির

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বুধবার সিলেট সুপার স্টারসের বিপক্ষে জিতলেই শেষ চারে খেলা নিশ্চিত হয়ে যেত ঢাকা ডায়নামাইটসের। কিন্তু হার হলো ঢাকার। আর তাই শেষ চারে ওঠা নিশ্চিত হলো না। আজ বরিশাল বুলসের বিপক্ষে ম্যাচ আছে ৮ পয়েন্ট থাকা ঢাকার। এ ম্যাচে হারলেও শেষ চারে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে ঢাকার। যদি দিনের প্রথম ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে হারে ৬ পয়েন্ট থাকা সিলেট। ঢাকার অলরাউন্ডার নাসির অবশ্য অন্য দলের হার-জিতের দিকে কোন খেয়াল রাখতে চান না। শুধু নিজেদের জয় নিয়েই ভাবছেন।

সিলেটের কাছে ৬ উইকেটে হারের সংবাদিকদের মুখোমুখি হন নাসির। তাকে প্রশ্ন করা হয়, আগামীকাল (আজ) সিলেটের আগে ম্যাচ, সবকিছু জেনে মাঠে নামার সুযোগ পাচ্ছেন; এটা স্বস্তির কি না? নাসির জানান, ‘আমি জানি না আগামীকাল (আজ) কার খেলা। আমি জানি আমাদের খেলা। বরিশালের সঙ্গে খেলা। এতটুকু জানি বরিশালের সঙ্গে জিতলে আমরা কোয়ালিফাই করব। কে হারছে আর কে জিতছে, এইসব নিয়ে আমার কোন মাথা ব্যথা নেই।’ পাল্টা প্রশ্ন, কালকের (আজকের) ম্যাচ জিততেই হবে এমন সমীকরণে অতিরিক্ত কোন চাপ কাজ করবে কি না? দলের বিপদের সময় ৩১ রান করা নাসির জানালেন, ‘চাপ তো সব ম্যাচেই থাকে। এই ম্যাচেও থাকবে এটাই স্বাভাবিক।’

ঢাকা ১৫৭ রান করল। তবুও জিততে পারল না। শেষে গিয়ে জিতেই যাচ্ছিল, কিন্তু টানা দুই বলে শহীদ আফ্রিদি ছক্কা হাঁকিয়েই ঢাকাকে হারিয়ে দেন। নাসিরকে জিজ্ঞেস করা হলো, ১৫০+ স্কোর গড়ে কি মনে হয়েছিল জেতাটা সহজ হবে? জানালেন, ‘উইকেট ভাল ছিল। আমরাও বুঝতে ছিলাম এত সহজে আমরা জিততে পারব না। আমাদের মূল টার্গেট ছিল শুরুটা ভাল করা। আমরা খুব একটা ভাল আবার খুব একটা খারাপও করিনি। আমরা ৮-১৪ ওভার পর্যন্ত একটু বাজে বোলিং করেছি। এই সময় একটু রান হয়েছে। ওভারঅল ঠিক আছে।’

মুস্তাফিজুর রহমান ১৯তম ওভার করে সিলেটকে চাপে ফেলে দেয়। মাত্র ৫ রান দেয়। তখন জিততে শেষ ওভারে সিলেটের প্রয়োজন ছিল ১০ রান। এমন সময় নাবিল সামাদ, মোশাররফ হোসেন রুবেল ও ইয়াসির শাহকেও বোলিং করানো যেত। কিন্তু না ফরহাদ রেজার হাতে বল তুলে দেয়া হলো। কেন, কার কার বুদ্ধিতে শেষ ওভারে ফরহাদ রেজা আসল? নাসির বললেন, ‘সাঙ্গাকারা আমাকে জিজ্ঞেস করছিল ইয়াসির শাহ করবে না ফরহাদ করবে। আমি বলেছি ফরহাদ ভাইয়ের কথা। ইয়াসির শাহকে না করানোর কারণ সোহেল তানভীর ছিল, আফ্রিদি ছিল। আফ্রিদি স্পিন ভাল খেলে। অনেক কিছুই সম্ভব হতো। আমার মনে হয় না ফরহাদ ভাই শেষ ওভারে খারাপ বল করেছে। ওরা ভাল মেরেছে।’

নাসির যত ভাল ব্যাটিংই করেন, ৩০ রানের ঘরেই আটকে আছেন। কেন এমন হচ্ছে? নাসির আক্ষেপ নিয়েই যেন বললেন, ‘আমি অনেক ম্যাচেই ৩০ রান করেছি। এটা বড় করতে পারছি না। পেছনে যদি অনেক ব্যাটসম্যান থাকত তাহলে সাহস নিয়ে মারা যেত। আমার মধ্যে কাজ করে, আমি যদি আউট হয়ে যাই পরে কে খেলবে? আর কেউ নেই। এজন্য আমি একটু সেøা করছি। চেষ্টা করছি। কিন্তু শেষ ৩-৪ ওভারের আগে আউট হয়ে যাচ্ছি। এটা টি২০ খেলা। সবকিছুর উপর স্কোর নির্ভর করে! চেষ্টা করি স্কোর করার জন্য। আমি তো ওইরকম বিগ হিটার না যে নামব আর ধাম-ধুম ছয় মারব। আমারও একটু সময় দরকার হয় ব্যাটিংয়ে গিয়ে। চেষ্টা করছি।’ সেই চেষ্টা আজ সফল হলেই হয়।