২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিউজিল্যান্ড সফরে পাক দলে আমির!

  • ভাগ্য খুলল বিপিএলে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আগামী মাসে নিউজিল্যান্ড সফরেই মোহাম্মদ আমির পাকিস্তান দলে ফিরতে পারেন বলে জানিয়েছেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) এক উর্ধতন কর্মকর্তা। তবে এ মাসের শেষদিকে শ্রীলঙ্কার মাটিতে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে প্রস্তাবিত সিমিত ওভারের সিরিজে আমিরের দলে ফেরার সম্ভাবনা নাকচ করেছেন পিসিবি চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান। তিনি বলেন ‘না, প্রস্তাবিত ভারতের বিপক্ষে সিরিজে সে আমাদের বিবেচনা নেই। কেননা তাকে (আমির) জাতীয় দলে ফেরানোর আগে আমরা কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করব ও কিছু বিষয়ে নিশ্চিত হতে চাই।’

জানুয়ারি মাসে নিউজিল্যান্ড সফরে সিমিত ওভারের সিরিজে আমির খেলতে পারে কি নাÑএমন প্রশ্নের জবাবে খান বলেন, ‘হ্যাঁ, ওই সিরিজের জন্য আমরা তার কথা ভাবছি এবং এ সফরেই সে জাতীয় দলে ফিরতে পারে।’ বর্তমানে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে (বিপিএল) আমিরের সঙ্গে খেলা মিসবাহ-উল হক, শহীদ আফ্রিদি এবং মোহাম্মদ হাফিজের মতো সিনিয়র খেলোয়াড়দের সঙ্গেও পিসিবি যোগাযোগ রাখছে বলে নিশ্চিত করেন খান। তিনি বলেন, ‘আমিরের আচার-ব্যবহার, মনোভাব এবং কেমন করছে সে বিষয়ে আমরা তাদের কাছ থেকে খবরাখবর পাচ্ছি। তবে এ সব খবরা-খবরের ভিত্তিইে আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত নেব এমনটা ভাবার কারণ নেই।’

পিসিবি প্রধান আরও বলেন, ‘তবে যেহেতু আমির তার পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শেষ করেছে, বোর্ডের নিয়ম কানুন মেনে চলেছে এবং মাঠে ভাল করছে তাই তাকে পাকিস্তান দলে ফেরানোর একটা চিন্তা-ভাবনা আছে। মোহাম্মদ আসিফ এবং সালমান বাটের বিষয়টিও আমাদের মাথায় আছে। তাদের আগামী বছরের ওয়ানডে টুর্নামেন্টে খেলার অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে তাদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়া চলছে। তিনি যোগ করেন,‘ প্রথমে আগামী বছর প্রথম শ্রেণীর ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার পর তারাও জাতীয় দলে ফেরার জন্য বিবেচিত হবে বলে আমি মনে করি।’ খানের মতে, আমিরের সক্ষমতা নিয়ে পিসিবির কোন সন্দেহ নেই বা ছিল না। তারা কেবলমাত্র তার আচার-ব্যবহার ও মনোভাব নিশ্চিত হতে চায়। ‘চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে আমরা তার সঙ্গে বসব এবং আলোচনা করব।’

চলমান বিপিএলে পাকিস্তানের টেস্ট অধিনায়ক মিসবাহ, টি২০ অধিনায়ক আফ্রিদি এবং তারকা অলরাউন্ডার হাফিজের উইকেট শিকার করেছেন আমির। ভাল বোলিং করে নজর কাড়ছেন তিনি। ২০১০ সালে ইংল্যান্ড সফরে লর্ডস টেস্টে আলোচিত সেই স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়ে তৎকালীন পাকিস্তান অধিনায়ক সালমান বাট, দুই পেসার মোহাম্মদ আসিফ ও মোহাম্মদ আমির। দোষ প্রমাণিত হওয়ায় পাঁচ বছরের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন আমির। জেলও খাটতে হয় তাদের। বয়স কম হওয়ায় (তখন ১৮ বছর) কিশোর সংশোধনাগারে কাটাতে হয় আমিরকে। গত সেপ্টেম্বরে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ঘরোয়া ক্রিকেট দিয়ে আবার খেলায় ফেরেন। যেনতেন ফেরা নয়, বল হাতে আগুনের গোলা ছড়াচ্ছে তিনি।